জাতীয় মানবাধিকার কমিশন উচ্চপদস্থ আমলাদের রিটায়ারমেন্ট হোম: শাহদীন মালিক

সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী শাহদীন মালিক বলেছেন, জাতীয় মানবাধিকার কমিশন সরকারের উচ্চপদস্থ আমলাদের ‘রিটায়ারমেন্ট হোম’-এ পরিণত হয়েছে।
shahdeen-malik.jpg
৫ অক্টোবর ২০১৯, জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘গুম নিয়ে জাতিসংঘের সুপারিশ ও বাস্তবতা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী শাহদীন মালিক। ছবি: স্টার/রাফিউল ইসলাম

সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী শাহদীন মালিক বলেছেন, জাতীয় মানবাধিকার কমিশন সরকারের উচ্চপদস্থ আমলাদের ‘রিটায়ারমেন্ট হোম’-এ পরিণত হয়েছে।

আজ (৫ অক্টোবর) রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে মৌলিক অধিকার সুরক্ষা কমিটি আয়োজিত ‘গুম নিয়ে জাতিসংঘের সুপারিশ ও বাস্তবতা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

শাহদীন মালিক বলেন, “একজন ব্যক্তি যখন সহকারী সচিব হিসেবে থাকেন, তিনি উপ-সচিবের নির্দেশে কাজ করেন। উপ-সচিব হলে যুগ্ম-সচিবের নির্দেশ অনুযায়ী আদেশ তামিল করেন। সচিব পর্যায়ে গেলে মন্ত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী কাজ করেন।”

তিনি বলেন, “সরকারি আমলাতন্ত্রে এ সংস্কৃতি নেই যে, একজন কর্মকর্তা তার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে দ্বিমত করবেন। দ্বিমত থাকলেও তারা চুপ করে থাকেন। অতএব সাংবিধানিকভাবে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন পরিচালনা ও প্রতিনিধিত্বের ক্ষেত্রে তারা যোগ্য নন।”

“একজন লোক ৩৫ বছর ধরে জ্বী হুজুর জ্বী হুজুর করে দক্ষতার সঙ্গে নির্দেশ তামিল করেন, মানবাধিকার কমিশনে থাকাবস্থায় কোনো নিয়মবহির্ভূত কাজের ব্যাপারে তিনি সরকারকে চ্যালেঞ্জ করবেন, রাষ্ট্রকে চ্যালেঞ্জ করবেন? এটি হতে পারে না”, বলেন তিনি।

সুপ্রিম কোর্টের এই আইনজীবী আরও বলেন, “জাতীয় মানবাধিকার কমিশন এখন আমলাদের একটি রিটায়ারমেন্ট হোম, যেখানে তারা ৩ থেকে ৬ বছর ভালোভাবে থাকতে পারেন, বড় গাড়ি আছে, প্রচুর বিদেশ সফর আছে। কাজেই মানবাধিকার কমিশনের কাছে আগামী তিন বছর আমার কোনো প্রত্যাশা নেই। ওনারা আরামে থাকুক।”

Comments

The Daily Star  | English

World Bank suggests unified exchange rate, further monetary tightening

The World Bank has recommended Bangladesh put in place a unified exchange rate and tighten monetary policy further in order to tame persistently high inflationary pressure and end the foreign exchange crisis.

6h ago