জাতীয় লিগের ম্যাচ ফি বাড়ানোর দাবির প্রশ্নে নিরুত্তর সাকিব

ক্রিকেটারদের এগারো দফা দাবির বেশিরভাগই মেনে নেওয়া হয়েছে, কিংবা মেনে নেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে বলেই নিজেদের সন্তুষ্টি জানিয়েছেন সাকিব আল হাসান। তুলে নিয়েছেন গত সোমবার ডাকা ধর্মঘটও। বোর্ড প্রধানের সঙ্গে সুর মিলিয়েই আলোচনা ফলপ্রসূ হওয়ার কথাও এসেছে তার মুখ থেকে। কিন্তু যাদের নিয়ে আন্দোলন করলেন, সেই স্থানীয় ক্রিকেটারদের বড় দাবি ছিল জাতীয় লিগের ম্যাচ ফি এক লাখ করা। সে প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে গেলেন সাকিব।
Shakib Al Hasan
ছবি: ফিরোজ আহমেদ

ক্রিকেটারদের এগারো দফা দাবির বেশিরভাগই মেনে নেওয়া হয়েছে, কিংবা মেনে নেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে বলেই নিজেদের সন্তুষ্টি জানিয়েছেন সাকিব আল হাসান। তুলে নিয়েছেন গত সোমবার ডাকা ধর্মঘটও। বোর্ড প্রধানের সঙ্গে সুর মিলিয়েই আলোচনা ফলপ্রসূ হওয়ার কথাও এসেছে তার মুখ থেকে। কিন্তু যাদের নিয়ে আন্দোলন করলেন, সেই স্থানীয় ক্রিকেটারদের বড় দাবি ছিল জাতীয় লিগের ম্যাচ ফি এক লাখ করা। সে প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে গেলেন সাকিব।

টানা দুদিনের অচলাবস্থা শেষে বুধবার রাতে (২৩ অক্টোবর) বিসিবি কার্যালয়ে দুপক্ষের আলোচনায় আসে সুরাহা। বোর্ড প্রধান নাজমুল হাসান পাপন জানান, তাদের এখতিয়ারে থাকা নয়টি দাবিই তারা মেনে নিচ্ছেন। আরও একটি আংশিক মানারও কথা হয়েছে (বছরে দুটির বেশি ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ)। বিসিবির এখতিয়ারে না থাকা কোয়াব কমিটির পদত্যাগের প্রক্রিয়া নিয়েও নাঈমুর রহমান দুর্জয়ের কাছ থেকে মিলেছে ইতিবাচক বার্তা।

সাকিবদের সন্তুষ্ট হওয়ারই কথা। কিন্তু স্থানীয় ক্রিকেটারদের অনেকেরই মুখে দেখা গেল রাজ্যের অন্ধকার। আসলে বিসিবির সঙ্গে আলোচনায় জাতীয় লিগের ম্যাচ ফি এক লাখ করার কোনো সিদ্ধান্তই যে হয়নি। অর্থাৎ সাকিবেরই নিজ মুখে উচ্চারণ করা ৪ নম্বর দাবিই মানা হয়নি।

আন্দোলন প্রত্যাহারের ঘোষণা দেওয়ার পর সাকিবের কাছে তাই সরাসরি প্রশ্ন গেল, জাতীয় লিগের ম্যাচ ফি এক লাখ করার দাবি ছিল। সেটা নিয়ে কি কোনো সিদ্ধান্ত হয়েছে? কিংবা আগের চেয়ে কত বাড়ানো হয়েছে? উত্তরে এই তারকা ক্রিকেটার বলেন, ‘আসলে বলেছিলাম প্রশ্ন করলেই উত্তর দেওয়া মুশকিল।’ আর কিছু না বলে উঠে যান তিনি।

যৌথ সংবাদ সম্মেলনে অচলাবস্থা অবসানের ঘোষণার পর বিসিবি কার্যালয় থেকে বেরিয়ে যাওয়া স্থানীয় ক্রিকেটারদের মুখে তৃপ্তির ছোঁয়া পাওয়া গেল না। অনেকেরই মুখে আঁধার। তাদের কয়েকজনের কাছ থেকেই শোনা গেল, ম্যাচ ফির ব্যাপারে স্পষ্ট কোনো আলোচনা হয়নি, হয়তো অল্প কিছু বাড়তে পারে। তবে সেটা তাদের দেওয়া দাবির কাছাকাছিও নয়।

Comments

The Daily Star  | English

Secondary schools, colleges closed until further notice

At least six people were killed in three districts, including the capital, in clashes between Chhatra League and quota reform protesters today.

32m ago