খেলা

দ্রাবিড়ের বিখ্যাত ‘১’ রানের স্মৃতি ফিরিয়ে আনলেন স্মিথ

২০০৮ সালের কথা। সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে (এসসিজি) স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি ভারত। ১৮ রান নিয়ে উইকেটে আছেন রাহুল দ্রাবিড়। এরপর খোলসে বন্দি হয়ে গেলেন তিনি। টানা খেললেন ৪০টি ডট! এরপর যখন ৪১তম ডেলিভারিতে সিঙ্গেল (১ রান) নিয়ে ১৯-এ পৌঁছালেন, তখন মুহূর্তেই যেন কেঁপে উঠল গ্যালারি!
steve smith
ছবি: এএফপি

২০০৮ সালের কথা। সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে (এসসিজি) স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি ভারত। ১৮ রান নিয়ে উইকেটে আছেন রাহুল দ্রাবিড়। এরপর খোলসে বন্দি হয়ে গেলেন তিনি। টানা খেললেন ৪০টি ডট! এরপর যখন ৪১তম ডেলিভারিতে সিঙ্গেল (১ রান) নিয়ে ১৯-এ পৌঁছালেন, তখন মুহূর্তেই যেন কেঁপে উঠল গ্যালারি!

হাততালির জোরালো শব্দে কান পাতা দায়। উইকেটে ধৈর্যের অনুপম নিদর্শন দেখিয়ে ‘দ্য ওয়াল’ তকমা পাওয়া ভারতীয় ব্যাটসম্যানকে দাঁড়িয়ে সম্মান জানালেন উপস্থিত দর্শকরা। সমঝদার দ্রাবিড়ও হতাশ করলেন না। দর্শকদের উদ্দেশে ব্যাট উঁচিয়ে কৃতজ্ঞতা জানালেন।

১২ বছর পর অস্ট্রেলিয়ার তারকা ব্যাটসম্যান স্টিভ স্মিথ যেন ফিরিয়ে আনলেন সেই স্মৃতি, সেই এসসিজিতেই! শুক্রবারের (৩ জানুয়ারি) ঘটনা। টেস্টের প্রথম দিনে দুই ওপেনার সাজঘরে ফিরে যাওয়ার পর ক্রিজে গেলেন স্মিথ। কিন্তু নিউজিল্যান্ডের বোলারদের বিপক্ষে তাকে রীতিমতো লড়াই করতে হলো। প্রথম ঘণ্টায় কেবল ঠেকিয়েই যান। রানের খাতা খোলার আগে মোকাবিলা করেন ৩৮টি বল!

৩৯তম ডেলিভারিতে গিয়ে সিঙ্গেল নিয়ে নামের পাশে রানের অঙ্ক লেখান স্মিথ। কিন্তু সেটাও সহজে হয়নি। রান পূর্ণ করতে ডাইভ দিতে হয় তার সঙ্গী মারনাস লাবুশেনকে। এরপর স্বাগতিক সমর্থকদের উল্লাসধ্বনিতে গ্যালারি যেন ফেটে পড়ল! স্মিথ নিজেও বিষয়টি উপভোগ করেন দারুণভাবে। ক্রিজের ভেতরে কিউই পেসার নিল ওয়াগনারের সঙ্গে মেতে ওঠেন খুনসুটিতে। তার বলেই তো গেরো খোলেন স্মিথ।

এমন কাণ্ডের পর অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট বোর্ডের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ‘ক্রিকেট ডট কম ডট এইউ’ তাদের টুইটার পেজে দ্রাবিড়ের সেই বিখ্যাত সিঙ্গেলের ভিডিওটি শেয়ার করে। ক্যাপশনে লিখে দেয়, ‘স্টিভ স্মিথের ডট বলগুলো এসসিজিতে আরেকটি বিখ্যাত ইনিংসের কথা আমাদের মনে করিয়ে দেয়- যখন ২০০৮ সালে রাহুল দ্রাবিড় টানা ৪০টি ডট দিয়েছিলেন!’

Comments

The Daily Star  | English

PM’s India Visit: Dhaka eyes fresh loans from Delhi

India may offer Bangladesh fresh loans under a new framework, as implementation of the projects under the existing loan programme is proving difficult due to some strict loan conditions.

10h ago