আরও ৮ জেলায় প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ স্থগিত

ফল প্রকাশে কোটা বিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে রিট আবেদনে আজ আট জেলার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার ফলাফল ছয় মাস স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট।

ফল প্রকাশে কোটা বিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে রিট আবেদনে আজ আট জেলার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার ফলাফল ছয় মাস স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট।

নাটোর, পাবনা, গাইবান্ধা, লক্ষ্মীপুর, পটুয়াখালী, ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ ও কিশোরগঞ্জ, এই আট জেলার নিয়োগ পরীক্ষার ফলাফল স্থগিত করা হয়েছে।

এছাড়া, লক্ষ্মীপুর ও ফরিদপুরের উত্তীর্ণ প্রার্থীদের নিয়োগপত্র না পাঠাতে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

একইসঙ্গে, এই আট জেলার নিয়োগ পরীক্ষার ফলাফল কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে চার সপ্তাহের মধ্যে জানতে চেয়ে হাইকোর্ট দুটি পৃথক রুল জারি করেছেন।

গত বছরের ডিসেম্বর মাসে প্রকাশিত পরীক্ষার ফলাফলের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে মৌখিক পরীক্ষায় অনুত্তীর্ণ ৪৬ জন পরীক্ষার্থীর করা দুটি পৃথক রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি মো. মাহমুদ হাসান তালুকদারের হাইকোর্ট বেঞ্চ আজ এ আদেশ দেয়। 

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার দ্য ডেইলি স্টারকে জানান, হাইকোর্ট ২৫টিরও বেশি জেলার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার ফলাফল স্থগিত করেছেন।

আবেদনকারীদের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মো. আসাদ উদ্দিন দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ২০১৩ সালের প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালার ৭ নম্বর ধারা অনুসারে এই পদে ৬০ শতাংশ নারী, ২০ শতাংশ পুরুষ এবং ২০ শতাংশ পোষ্য কোটা থাকার কথা।

তিনি জানান, লক্ষ্মীপুর ও ফরিদপুরের শিক্ষা কর্মকর্তারা বিধি না মেনেই উত্তীর্ণদের জন্য নিয়োগপত্র তৈরি করেছেন।

Comments