খেলা

এক ম্যাচ বাকি থাকতেই সিরিজ হারল ভারত

এক প্রান্তে বুক চিতিয়ে লড়াই করেছিলেন রবিন্দ্র জাদেজা। কিন্তু শেষ রক্ষা করতে পারলেন না টপ অর্ডারের ব্যর্থতায়। শেষ দিকে অবশ্য সঙ্গী হিসেবে পেয়েছিলেন নভদিপ সাইনিকে। কিন্তু তাও যথেষ্ট হলো না। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচেও হারের স্বাদ পেল সফরকারী ভারত। এতে এক ম্যাচ বাকী থাকতেই সিরিজ খুইয়েছে বিরাট কোহলির দল।
ছবি: এএফপি

এক প্রান্তে বুক চিতিয়ে লড়াই করেছিলেন রবিন্দ্র জাদেজা। কিন্তু শেষ রক্ষা করতে পারলেন না টপ অর্ডারের ব্যর্থতায়। শেষ দিকে অবশ্য সঙ্গী হিসেবে পেয়েছিলেন নভদিপ সাইনিকে। কিন্তু তাও যথেষ্ট হলো না। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচেও হারের স্বাদ পেল সফরকারী ভারত। এতে এক ম্যাচ বাকী থাকতেই সিরিজ খুইয়েছে বিরাট কোহলির দল। 

অকল্যান্ডে শনিবার ভারতকে ২২ রানে হারিয়েছে নিউজিল্যান্ড। আগে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেটে ২৭৩ রান করে কিউইরা। জবাবে ৪৮.৩ ওভার ব্যাট করে ২৫১ রানে গুটিয়ে যায় ভারতীয় শিবির। ফলে তিন ম্যাচের সিরিজে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে সিরিজ জেতা নিশ্চিত হয়ে গেছে স্বাগতিকদের। 

লক্ষ্য তাড়ায় এদিন শুরুটাই ভালো হয়নি ভারতের। কিউই পেসারদের তোপে শুরু থেকেই নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে তারা। জমেনি  বলার মতো কোন জুটি। শতরান পার হওয়ার আগেই টপ অর্ডারের পাঁচ ব্যাটসম্যান সাজঘরমুখী হন। তবে এক প্রান্ত আগলে দলের জয়ের আশা টিকিয়ে রেখে উইকেট ছিলেন রবিন্দ্র জাদেজা। অষ্টম উইকেটে নভদিপ সাইনির সঙ্গে ৭৬ রানের দারুণ এক জুটি গড়ে জয়ের সম্ভাবনা জাগান এ অলরাউন্ডার। তার ব্যাটে মিলছিল রোমাঞ্চকর শেষের আভাস।   কিন্তু এ জুটি ভাঙতেই সব শেষ হয়ে যায় ভারতের। ৯ বল বাকি থাকতেই অলআউট হয়ে যায় দলটি।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৫৫ রানের ইনিংস খেলে শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হয়েছেন জাদেজা। ৭৩ বলে ২টি চার ও ১টি ছক্কায় এ রান করেন তিনি। ৫৭ বলে ৭টি চার ও ১ ছক্কায় ৫২ রান করেন শ্রেয়াস আইয়ার। নয় নম্বর ব্যাটসম্যান সাইনি ৪৯ বলে ৪৫ রানের কার্যকরী এক ইনিংস খেলেন। ৫ চার ও ২ ছক্কায় নিজের ইনিংস সাজান তিনি। নিউজিল্যান্ডের পক্ষে ২টি করে উইকেট নিয়েছেন হামিশ বেনেট, টিম সাউদি, কাইল জেমিসন ও কলিন ডি গ্রান্ডহোম।

এর আগে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে উড়ন্ত সূচনা পায় নিউজিল্যান্ড। দুই ওপেনার মার্টিন গাপটিল ও হেনরি নিকোলস স্কোরবোর্ডে ৯৩ রান যোগ করেন। এরপর নিকোলস আউট হল টম ব্লান্ডেলের সঙ্গে ৪৯ রানের আরও একটি জুটি গড়েন গাপটিল। অবশ্য এ জুটি ভাঙার পর দারুণ নিয়ন্ত্রিত বোলিং করতে থাকে ভারতীয় বোলাররা।  নিয়মিত বিরতিতে উইকেটও তুলে নেয় তারা। ৫৫ রানের ব্যবধানে ৭ উইকেট হারিয়ে বেশ চাপে পড়ে স্বাগতিকরা।

কিন্তু তখনও নিউজিল্যান্ডের স্বপ্ন ধরে রেখে টিকে ছিলেন আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান রস টেইলর। কাইল জেমিসনের সঙ্গে অসাধারণ এক জুটি গড়ে দলে লড়াইয়ের পুঁজি এনে দেন তিনি। নবম উইকেটে অবিচ্ছিন্ন ৭৬ রানের জুটি গড়েন তারা। এদের জুটিতেই নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেটে ২৭৩ রানের সংগ্রহ পায় কিউইরা।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭৯ রানের ইনিংস খেলেন গাপটিল। ৭৯ বলে ৮টি চার ও ৩টি ছক্কার সাহায্যে নিজের ইনিংসটি সাজান তিনি। ৭৪ বলে ৭৩ রানের হার না মানা এক ইনিংস খেলেন টেইলর। ৬টি চার ও ২টি চারের সাহায্যে এ রান করেন তিনি। নিকোলসের ব্যাট থেকে আসে ৪১ রান। ১০ নম্বরে ব্যাট করতে নেমে জেমিসনের ব্যাট থেকে আসে কার্যকরী ২৫ রান।

ভারতের পক্ষে ৫৮ রানের খরচায় ৩টি উইকেট নেন জুজবেন্দ্র চাহাল। এছাড়া শারদুল ঠাকুর ২ ও রবিন্দ্র জাদেজা ১ উইকেট পান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

নিউজিল্যান্ড: ৫০ ওভারে ২৭৩/৮ (গাপটিল ৭৯, নিকোলস ৪১, ব্লান্ডেল ২২, টেইলর ৭৩*, লাথাম ৭, নিশাম ৩, গ্রান্ডহোম ৫, চাপম্যান ১, সাউদি ৩, জেমিসন ২৫*; শারদুল ২/৬০, বুমরাহ ০/৬৪, সাইনি ০/৪৮, চাহাল ৩/৫৮, জাদেজা ১/৩৫)।

ভারত: ৪৮.৩ ওভারে ২৫১ (পৃথ্বী ২৪, আগারওয়াল ৩, কোহলি ১৫, আইয়ার ৫২, রাহুল ৪, জাদেজা ৫৫, শারদুল ১৮, সাইনি ৪৫, চাহাল ১০, বুমরাহ ০*; বেনেট ২/৫৮, সাউদি ২/৪১, জেমিসন ২/৪২, গ্রান্ডহোম ২/৫৪, নিশাম ১/৫২)।

ফলাফল: নিউজিল্যান্ড ২২ রানে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: কাইল জেমিসন (নিউজিল্যান্ড)

 

 

Comments