বন্ধ হচ্ছে না মানিকগঞ্জের অবৈধ ইটভাটা

হাইকোর্ট বিভাগের নিষেধাজ্ঞার পরেও বন্ধ হয়নি মানিকগঞ্জের অবৈধ ইটভাটা। সাতটি উপজেলায় মোট ১৫০টি ইটভাটার মধ্যে অবৈধ ইটভাটার তালিকায় আসে ২৭টির নাম। এর মধ্যে কয়েকটির কার্যক্রম বন্ধ থাকলেও বাকিগুলো চলছে দেদারসে।
Brickfield_Manikganj
মানিকগঞ্জে বন্ধ হচ্ছে না অবৈধ ইটভাটা। ছবি: স্টার

হাইকোর্ট বিভাগের নিষেধাজ্ঞার পরেও বন্ধ হয়নি মানিকগঞ্জের অবৈধ ইটভাটা। সাতটি উপজেলায় মোট ১৫০টি ইটভাটার মধ্যে অবৈধ ইটভাটার তালিকায় আসে ২৭টির নাম। এর মধ্যে কয়েকটির কার্যক্রম বন্ধ থাকলেও বাকিগুলো চলছে দেদারসে।

মানিকগঞ্জ পরিবেশ অধিদপ্তরের সূত্র জানায়, রাজধানী ঢাকা ও এর আশেপাশের জেলাগুলোর অবৈধ ইটভাটা উচ্ছেদে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট বিভাগ। ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে ইতোমধ্যে দুটি ইটভাটা গুড়িয়ে দিয়েছেন।

সাটুরিয়া উপজেলার দোতরা এলাকার তমা বিক্সের একাংশের মালিক জাকির হোসেন বলেন, আদালতের রিট আদেশ নিয়ে আমরা ইটভাটা চালাচ্ছিলাম। এরপর ভ্রাম্যমাণ আদালত প্রথমে জরিমানা করে এবং এর মাস খানেক পরে ইটভাটা সম্পূর্ণ ভেঙে দেয়। অথচ এই উপজেলায় আরও তিনটি অবৈধ ইটভাটার কার্যক্রম চলছে।

অবৈধ ভাটার তালিকায় রয়েছে উপজেলার কান্দাপাড়ার ফ্রেন্ডস বিক্স নামে একটি ইটভাটা। ভাটার পরিচালক মো. সোহেল মিয়া বলেন, আমরা কিভাবে ভাটা পরিচালনা করছি সে বিষয়ে সাংবাদিকদের কোনো বক্তব্য দেবো না। ম্যাজিস্ট্রেটকে সাথে নিয়ে এলে ভাটার কাগজপত্র দেখাবো।

সাটুরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশরাফুল আলম বলেন, সাটুরিয়া উপজেলায় ৫টি অবৈধ ইটভাটা রয়েছে। এর মধ্যে দুটি ইটভাটায় উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়েছে। বাকি তিনটি অবৈধ ইটভাটায় জরিমানা করা হয়েছে। আবারো উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে।

হরিরামপুর উপজেলার একটি অবৈধ ইটভাটার মালিক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ম্যাজিস্ট্রেট একবার এসে জরিমানা করে গেছেন। একদিন ভাটা বন্ধ ছিল, পরের দিন চালু করেছি। গণমাধ্যমে সংবাদ না হলে ম্যাজিস্ট্রেট আর আসবেন না।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মানিকগঞ্জ পরিবেশ অধিদফতরের উপপরিচালক মো. খালেদ হাসান বলেন, আমাদের ম্যাজিস্ট্রেসি পাওয়ার নেই। ইচ্ছা করলেই আমরা অবৈধ ইটভাটা উচ্ছেদে অভিযান চালাতে পারি না। জেলা প্রশাসন বা উপজেলা প্রশাসনের নির্বাহী কর্মকর্তার ওপর নির্ভর করে থাকতে হয়।

মানিকগঞ্জের জেলা প্রশাসক এস.এম ফেরদৌস দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, মানিকগঞ্জে অবৈধ বেশ কিছু ইটভাটা উচ্ছেদ করা হয়েছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যেই বাকিগুলো গুড়িয়ে দেওয়া হবে।

Comments

The Daily Star  | English
Digital Health Cards are to be introduced soon in Bangladesh hospitals.

Government plans digital health cards for all citizens

The government has taken an initiative to introduce digital health cards for all citizens, in a bid to eradicate the need of preserving physical prescription and test files by creating a unified digital database.

1h ago