যেভাবে মোহামেডান থেকে আবাহনীতে হেলেছেন মুশফিক

শৈশবে ছিলেন মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের ভক্ত। পরে পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে ঐতিহ্যবাহী দলটিতে খেলেছেনও মুশফিকুর রহিম। প্রথমবারের মতো এবার তিনি ভিড়েছেন মোহামেডানেরই চির প্রতিদ্বন্দ্বী আবাহনী লিমিটেডের ডেরায়। এক সময় মোহামেডানের পাঁড় ভক্ত থাকলেও মুশফিকের সমর্থনের পাল্লা সময়ে সময়ে না-কি হেলে গেছে আবাহনীর দিকে!
Mushfiqur Rahim
ছবি: ফিরোজ আহমেদ

শৈশবে ছিলেন মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের ভক্ত। পরে পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে ঐতিহ্যবাহী দলটিতে খেলেছেনও মুশফিকুর রহিম। প্রথমবারের মতো এবার তিনি ভিড়েছেন মোহামেডানেরই চির প্রতিদ্বন্দ্বী আবাহনী লিমিটেডের ডেরায়। এক সময় মোহামেডানের পাঁড় ভক্ত থাকলেও মুশফিকের সমর্থনের পাল্লা সময়ে সময়ে না-কি হেলে গেছে আবাহনীর দিকে!

আজ রোববার মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আবাহনীর হয়ে প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমেই বাজিমাত মুশফিকের। শুরুতে উইকেট হারানো বিপর্যস্ত দলকে টেনে তুলে ১২৪ বলে খেলেন ১২৭ রানের ইনিংস। ২৮৯ রান তুলে পরে আবাহনী পারটেক্সকে হারায় ৮১ রানে।

অনুমিতভাবেই ম্যাচ সেরাও হয়েছেন মুশফিক। আকাশী-নীল জার্সিতে সেরার স্বীকৃতি নিয়ে জানালেন, ছোটবেলায় তার প্রিয় দল ছিল মোহামেডান, তবে সময়ের সঙ্গে বদলে গেছে সমর্থনের ধরন, ‘সত্যি বলতে, ওই সময়ে মোহামেডানেরই ভক্ত ছিলাম। যখন দেখলাম, নাহ, আবাহনী সবসময় সেরা দল বানায় এবং ফুটবলে, ত্রিকেটে তারাই চ্যাম্পিয়ন হয়, আস্তে আস্তে আবাহনীর প্রতি আমার দুর্বলতা বাড়ে। সমর্থক হিসেবে আপনি সবসময় চাইবেন জয়ের ভেতরে থাকে এমন দলকে সমর্থন করতে। সেদিক থেকে আবাহনীই সেরা।’

অবশ্য আবাহনী-মোহামেডানের লড়াইয়ের সেই উত্তাপ এখন আর নেই। সমর্থন নিয়ে নেই তুমুল তর্ক-বিতর্কও। কারণ হিসেবে একটা ব্যাখ্যাও দিলেন মুশফিক, ‘আবাহনী-মোহামেডানের অনেক গল্প শুনেছি। ওই সময়ে শুনেছি দল হেরে যাওয়ার পর রাত হয়ে গেলেও খেলোয়াড়রা স্টেডিয়াম থেকে বের হতে পারত না । আমার ওইগুলো দেখার সৌভাগ্য হয়নি। আসলে এখন আন্তর্জাতিক ম্যাচ এত বেশি দেখে লোকে, হয়তোবা তাদের সময় বের করে লিগের ম্যাচ দেখা কঠিন হয়ে যায়।’

Comments

The Daily Star  | English
Bank Asia plans to acquire Bank Alfalah

Bank Asia moves a step closer to Bank Alfalah acquisition

A day earlier, Karachi-based Bank Alfalah disclosed the information on the Pakistan Stock exchange.

4h ago