ভারতে করোনা মোকাবিলায় সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগ

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতোই নতুন করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) আতঙ্কে ভুগছে ভারত। দেশটিতে গত তিন দিনে সবচেয়ে বেশি মানুষের শরীরে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৪৬৭ জনে পৌঁছেছে।
Reliance Corona Hospital-1.jpg
‘রিলায়েন্স করোনা-হাসপাতাল’ বানাতে সময় লেগেছে মাত্র দু’সপ্তাহ। ছবি: সংগৃহীত

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতোই নতুন করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) আতঙ্কে ভুগছে ভারত। দেশটিতে গত তিন দিনে সবচেয়ে বেশি মানুষের শরীরে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৪৬৭ জনে পৌঁছেছে।

গত রোববার নতুন করে ৮১ জনের দেহে ধরা পড়েছিলো কোভিড-১৯। পাশাপাশি বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা।

গতকাল কলকাতায় প্রথম করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে ভারতে এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ১০ জন। এই ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির সঙ্গে লড়াইয়ে জন্য ভারতের ৮০টিরও বেশি জেলা ‘লকডাউন’ করে রাখা হয়েছে।

এমন পরিস্থিতিতে দেশটির সরকারের প্রতি সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিচ্ছে ব্যক্তিমালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানগুলো। ইতোমধ্যে কাজও শুরু করে দিয়েছে তারা।

ভারতে প্রথম করোনা-হাসপাতাল বানাল রিলায়েন্স

ভারতে প্রথম করোনা-হাসপাতাল বানিয়েছে শিল্পপতি মুকেশ আম্বানির সংস্থা রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ। শুধু করোনা সংক্রমণের চিকিৎসার জন্য ‘রিলায়েন্স করোনা-হাসপাতাল’ বানাতে সময় লেগেছে মাত্র দু’সপ্তাহ।

গতকাল মুম্বাইতে এই হাসপাতাল উদ্বোধন করা হয়েছে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বর্তমানে এখানে একসঙ্গে ১০০ করোনা রোগীর চিকিৎসা সম্ভব।

মহারাষ্ট্রের লোধিভালিতে ‘আইসোলেশন ইউনিট’ তৈরি করেছে রিলায়েন্স। শুধু হাসপাতালই নয়, সারা দেশের চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য প্রতিদিন ১০ লাখ মাস্ক তৈরির কথা জানিয়েছে এই সংস্থা।

একইসঙ্গে এমন সংকটজনক পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষকে বিনামূল্যে দুই বেলা খাবার এবং জ্বালানি সরবরাহসহ অন্যান্য সুবিধা দেওয়ারও ঘোষণা দিয়েছে তারা।

মাহিন্দ্রর রিসোর্ট হবে অস্থায়ী সেবাকেন্দ্র

ভারতের অপর শিল্পপতি এমঅ্যান্ডএম গ্রুপের চেয়ারম্যান আনন্দ মাহিন্দ্র একাধিক টুইটে লিখেছেন, ‘‌যা পরিস্থিতি, তাতে মনে হচ্ছে ভারত ক্রমশ করোনা মহামারির তৃতীয় স্তরে পৌঁছে যাচ্ছে। এমনভাবে সংখ্যাটা বাড়তে থাকলে লাখ লাখ মানুষ আক্রান্ত হতে পারেন, যার সরাসরি প্রভাব পড়তে পারে ভারতের স্বাস্থ্য পরিকাঠামোয়।’

তিনি লিখেছেন, ‘আশা করা যায়, আগামী কয়েক সপ্তাহের এই লকডাউন একটু হলেও চাপ কমাবে আর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সাহায্য করবে। কিন্তু তবুও আমাদের অস্থায়ী সেবাকেন্দ্র তৈরি রাখতে হবে, পাশাপাশি ভেন্টিলেটর তৈরির কাজেও নামতে হবে। আর সে কারণেই মাহিন্দ্র গ্রুপ এই মুহূর্ত থেকে ভেন্টিলেটর তৈরির কাজ শুরু করবে। দেখা হবে কীভাবে আমাদের পরিকাঠামোয় আমরা এই জিনিস তৈরি করা যায়।’

তিনি আরও লিখেছেন, ‘আর মাহিন্দ্রর রিসোর্টগুলোতে অস্থায়ী সেবাকেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হবে। সরকার ও সেনাবাহিনীকে আমাদের কর্মীরা সবসময় সাহায্যের জন্য প্রস্তুত আছে। ছোট ব্যবসায়ীদের সাহায্যের জন্যও মাহিন্দ্র ফাউন্ডেশন বিশেষ তহবিলের ব্যবস্থা করছে।’

কলকাতা মেডিকেল দ্রুত খালি করার নির্দেশ

করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য কলকাতা মেডিকেল হাসপাতালকে দ্রুত খালি করার নির্দেশ দিয়েছে রাজ্যের স্বাস্থ্য সংস্থা।

গতকাল এক ঘোষণায় তারা জানিয়েছে, এবার থেকে রাজ্যের করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা চলবে কলকাতা মেডিকেল হাসপাতালে। বেলেঘাটা আইডি হাসপাতাল থেকে করোনা আক্রান্তদের সরিয়ে নিয়ে আসা হবে এখানে এবং এখান থেকে অন্য রোগীদের সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হবে।

নতুন করে কলকাতা মেডিকেলে অন্য রোগী ভর্তি নেওয়া হবে না। গতকাল বিকাল থেকেই নতুন করে করোনা ছাড়া অন্য কোনো রোগীর ভর্তি নেওয়া বন্ধ রয়েছে। পাশাপাশি করোনা আক্রান্তদের জন্য এই হাসপাতালে আরও তিন হাজার নতুন বেডের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। ধাপে ধাপে হাসপাতাল খালি করা হবে। এ ছাড়া বিভিন্ন হাসপাতালে আইসোলেশন ওয়ার্ড তৈরি করা হয়েছে।

Comments

The Daily Star  | English

US sanction on Aziz not under visa policy: foreign minister

Bangladesh embassy in Washington was informed about the sanction, he says

2h ago