প্রসঙ্গ গুজব: ভাইরাস যখন ভাইরাল হয়ে যায়

করোনা আক্রান্ত রোগী নিয়ে গুজবের কোনো শেষ নেই। করোনা মারাত্মক ছোঁয়াচে এ কথা সত্য। তাই সবাইকে সচেতন থাকার কথা বলা হচ্ছে বারবার। এই রোগ ও রোগীর কাছ থেকে নির্দিষ্ট দূরত্বে থাকাই ভালো। কাছে গেলেও বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করে যেতে হবে। এমনকি, মৃতদেহ দাফন করার ক্ষেত্রেও রয়েছে নিয়ম।
Corona BD.jpg
প্রতীকী ছবি। সংগৃহীত

ফেসবুক বন্ধুদের অনেককেই দেখছি তাদের ইনবক্সে আসা করোনাভাইরাস সংক্রান্ত আজগুবি সব তথ্য নিয়ে দিশাহারা। এসব তথ্য যারা বুঝে বা না বুঝে পাঠাচ্ছেন তাদের ফেসবুক বন্ধু তালিকা থেকে ছাঁটাই করারও হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন তারা।

আমিও সারাদিন ধরে এসব তথ্য পেয়ে বিরক্ত হচ্ছি। আবার একই সঙ্গে মজাও পাচ্ছি। বিরক্ত হচ্ছি, কারণ এসব ফালতু জিনিস ফেলতে ফেলতে হয়রান হচ্ছি। আর মজা পাচ্ছি বা অবাক হয়ে যাচ্ছি এই দেখে যে উচ্চশিক্ষিত মানুষও আমাকে এমনসব তথ্য শেয়ার করছে, যার কোন ভিত্তি নেই। যেমন: আমার এক পরিচিত ভদ্রলোক পাঠালেন, ‘সাবধান করোনাভাইরাস কিন্তু ডিম পাড়ে।’ তার মেসেজটা দেখে মনে হলো মানুষ এত কাণ্ডজ্ঞানহীন হয় কেমন করে যে ভাইরাস ডিম পাড়ে, এই তথ্যও শেয়ার করছে। ভাইরাস কি মুরগী না হাঁস? নাকি কাল্পনিক ঘোড়ার ডিম? এরকম একটি অদ্ভুত মেসেজ তিনি শেয়ার করছেন কোনকিছু না ভেবেই। আমি নিশ্চিত সে নিশ্চয়ই আরও বেশ কজনকে তিনি এই মেসেজ দিয়েছে। হয়তো এদের মধ্যে কয়েকজন এই তথ্য বিশ্বাস করে শেয়ারও করেছেন।

কারণ, অতীতে দেখেছি ‘চাঁদে সাঈদীর মুখ দেখা যাচ্ছে’ এই গুজবও বিভিন্ন অফিসের শিক্ষিত কর্মকর্তারাও বিশ্বাস করছেন। আমার পরিচিত একজন সাপোর্ট স্টাফ বলেছিলেন যে তিনি নিজের চোখে তার গ্রামের বাড়িতে ‘চাঁদে সাঈদীর মতো মুখাবয়ব’ দেখেছেন। তাও মেনে নিয়েছি। স্বল্পশিক্ষিত একজন মানুষ যদি তা দেখে থাকেন, তাতে কী আর এমন এসে যায়। কিন্তু, নাহ পরে দেখলাম, ভাইরাস ডিম পাড়ে, বিশ্বাস করা এই লোকটির মতো বহু লোকই ‘চাঁদে সাঈদীকে’ দেখেছেন।

সে যাক বাংলাদেশে গুজব ছড়ানোর মতো খুব অনুকূল পরিবেশ আছে। এই পরিবেশে একটি গুজব এসে পড়লে তা ডালপালা মেলতে সময় লাগে না। এর পেছনে সবচেয়ে বড় কারণ যথাযথ তথ্যের অভাব, মানুষের সচেতনতার অভাব ও শিক্ষার হার কম। সাংবাদিকতা বিভাগে পড়ার সময় প্রথম বছরই পড়ানো হয়েছিল— সঠিক তথ্যের অভাব, গুজব সৃষ্টি করে। মানুষ আসলে কোনো বিষয়ে অনিশ্চয়তা বেশিক্ষণ সহ্য করতে পারে না, তখন তাদের একটি অংশ নিজের মতো করে তথ্য ছড়ায়, একটি অংশ ইচ্ছে করে বা মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্য মিথ্যা তথ্য ছড়ায়। চাঁদে সাঈদীকে দেখা নিয়ে যারা গুজব ছড়িয়েছিল, তারা অসাধু ইচ্ছা নিয়েই এটা করেছিল। এই গ্রুপটি সবসময়ই যেকোনো ক্রান্তিকালে জাতিকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করে।

যেমনটি করছে এখন। করোনার মতো একটি ভাইরাস বিশ্বের প্রতিটি ক্ষমতাধর দেশকে নাস্তানাবুদ করে ছাড়ছে। মহামারির আকার ধারণ করেছে। অসংখ্য মানুষ মারা যাচ্ছে। অথচ আমরা এখনো এই করোনাভাইরাস ডিম পাড়ে বলে বার্তা বিনিময় করছি। এরপরও এই গুজবকে ইয়ার্কি হিসেবে মেনে নেওয়া যেত, যদি না করোনাভাইরাস ও আক্রান্ত মানুষকে নিয়ে গুজব না ছড়াত।

করোনাভাইরাস জানালা দিয়ে বের হতে পারে, এরকম একটি ধুয়া তুলে তেজগাঁওতে আকিজ গ্রুপের হাসপাতালটির কাজ শুরুর সময় এলাকার একদল মানুষ এসে হামলা চালাল। তারা নির্মাণাধীন হাসপাতালটি ভাঙচুর করতেও দ্বিধা করল না। যদিও এর পেছনে ছিল সমাজের দুষ্ট মানুষের প্ররোচনা ও ব্যক্তিগত স্বার্থ। কিন্তু, সাধারণ মানুষকে বোঝানো হয়েছিল এখানে করোনা রোগী থাকলে হাসপাতালের জানালা দিয়ে জীবাণু ছড়িয়ে পড়বে।

করোনা আক্রান্ত রোগী নিয়ে গুজবের কোনো শেষ নেই। করোনা মারাত্মক ছোঁয়াচে এ কথা সত্য। তাই সবাইকে সচেতন থাকার কথা বলা হচ্ছে বারবার। এই রোগ ও রোগীর কাছ থেকে নির্দিষ্ট দূরত্বে থাকাই ভালো। কাছে গেলেও বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করে যেতে হবে। এমনকি, মৃতদেহ দাফন করার ক্ষেত্রেও রয়েছে নিয়ম।

ভাইরাসটির এই সংক্রামক বৈশিষ্ট্যের জের ধরে এক শ্রেণির মানুষ গুজব ছড়াচ্ছে নানাভাবে। এমনকি, রাজধানীর একটি কবরস্থান করোনা আক্রান্তদের মৃতদেহর জন্য নির্ধারণ করার পর সেখানকার শিক্ষিত মানুষরা ব্যানার টাঙিয়ে এর বিরোধিতা করেছে। বলা হলো, কবরের মাটি ভেদ করেও করোনা ছড়াতে পারে। মানে মৃতদেহও করোনা ছড়াবে।

এইতো সেদিন ট্রলারযোগে গ্রামের বাড়িতে ফেরার পথে হামলার শিকার হয়েছেন পাঁচটি পরিবারের সদস্যরা। ট্রলারে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির লাশ আছে, মসজিদের মাইকে এমন গুজবের ঘোষণা দিলে নদীর এক পাড়ের অতিউৎসাহী মানুষের ছোঁড়া ইট-পাটকেলের আঘাতে ট্রলারের পাঁচ যাত্রী আহত হন। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ও রাজনৈতিক নেতারা ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। ২৬ মার্চ রাতে বরিশালের গৌরনদী উপজেলায় এ ঘটনা ঘটে। প্রশ্ন উঠতেই পারে মসজিদের মাইক কীভাবে গুজব ছড়ানোর কাজে ব্যবহৃত হলো?

অবশ্য করোনা নিয়ে যে শুধু বাংলাদেশে গুজব রটছে, তা নয়। ভারতে করোনা মোকাবিলার ক্ষেত্রে অনেক বড় সমস্যা এর ১৩০ কোটি জনসংখ্যা, একটি বিস্তৃত স্বাস্থ্য ব্যবস্থা এবং অপর্যাপ্ত অবকাঠামো। কিন্তু সেখানকার সচেতন সমাজ মনে করে এর চেয়েও অনেক বড় সমস্যা গুজব। এবং বিভিন্ন ধরনের ধোঁকাবাজি ব্যবসা। যেমন: এই সাপের তেল খেলে করোনা ভাল হবে, অমুক সাধুর কাছে করোনার চিকিৎসা আছে। শুধু তাই নয়, ভারতে এক শ্রেণির মানুষ নানা ধরনের ভয় আর অনিশ্চয়তাও ছড়াচ্ছে।

ডিমের মাধ্যমে করোনাভাইরাস ছড়ায় এই গুজবের পর ভারতে গত কয়েক সপ্তাহে মুরগী ও ডিম বিক্রি ৫০ ভাগ কমে গেছে। দাম কমেছে ৭০ ভাগ। গত ৩০ মার্চে ভারতীয় গণমাধ্যম দূরদর্শনে বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে দিয়ে বলছেন যে এক শ্রেণির লোক গুজব ছড়াচ্ছে—সরকার নাকি বলেছে করোনা রোগ হওয়া একটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ। দয়া করে এ কথা কেউ বিশ্বাস করবেন না। সরকার এরকম কোন কথা বলেনি।

বাংলাদেশ বা ভারত নয় আমেরিকার মতো জায়গাতেও গুজব রটেছিল যে করোনা ভাইরাস ঠেকানোর জন্য রয়েছে ভিটামিন, তেল এবং বিশেষ ধরনের চা অথচ এর কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি ছিল না। এমনকি বিভিন্ন স্বাস্থ্য সংস্থা থেকেও করোনা চিকিৎসা বিষয়ে ইমেইল যাচ্ছে মার্কিন নাগরিকদের কাছে, যেগুলো মিথ্যা। হ্যাকাররা সংস্থাগুলোর কম্পিউটার হ্যাক করে বিভিন্ন গুজব ছড়াচ্ছে।

স্বভাবতই মনে প্রশ্ন জাগে মানুষ কেন গুজব রটায়? স্বার্থান্বেষী মহলের নানা উদ্দেশ্য থাকে। কিন্তু সাধারণ মানুষও কেন গুজবে সায় দেয়, গুজব রটাতে পছন্দ করে? সমাজবিজ্ঞানীরা বলেন, মানুষের আগ্রহ আছে, এমন বিষয়েই সাধারণত গুজব ছড়ানো হয়। যারা আতঙ্কে থাকেন, তারা অনেকই গুজবে বিশ্বাস করেন নিজেদের অনিরাপত্তা দূর করার জন্য, অস্বচ্ছতা দূর করার জন্য বা কী ঘটতে যাচ্ছে, তা জানার জন্য। তবে এটাও ঠিক যে তথ্য যদি রসালো না হয় বা জনগণের আগ্রহের না হয়, তাহলে গুজব ছড়ানো কঠিন হয়।

গুজবের উৎস খুব সহজে খুঁজে পাওয়া যায় না, আবার মাঝেমাঝে একেবারেই খুঁজে পাওয়া যায় না। গুজব নিয়ে সেই পুরনো গল্প আমরা জানি। জার্মান সমাজবিজ্ঞানী উইলিয়াম স্টের্ন ১৯০২ সালে এই থিওরি দিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন একজনের কানে একটি তথ্য দিলে তা লোকমুখে ঘুরে ঘুরে অনেক পরিবর্তিত হয়ে যায়। ‘মাউথ টু ইয়ার’ নামের এই থিওরিতে বলা হয়েছে তথ্য ছোট হতে হতে একেবারে অন্য তথ্যে বদলে যেতে পারে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়কার এক হাজার গুজবের ওপর ভিত্তি করে পেপার লিখেছিলেন রবার্ট এইচ ন্যাপ  ‘এ সাইকোলজি অব রিউমার’ ১৯৪৪ সালে। উনি বলেছেন মানুষকে বিশ্বাস করানোর জন্য কোন সমস্যা বা সমাধানবিহীন ইস্যুকে যখন সাময়িক কোনো রেফারেন্স দিয়ে বর্ণনা করা হয়, সেটাই গুজব। সেখানে  কোন অফিসিয়াল কনফারমেশন থাকে না। সাধারণত কমিউনিটির আবেগকে পুঁজি করে গুজব ছড়ানো হয়।

ন্যাপ বলেছেন, বিভিন্ন কারণে গুজব ছড়ানো হয়। মানুষ যা আশা করে, যা দেখতে চায়, সেটাকে পুঁজি করে গুজব ছড়ানো হয়। যেমন: করোনাকে ভয় পাওয়ার কিছু নাই, গরমকাল এলে সব জীবাণু মারা যাবে। কিছু গুজব থাকে শুধু ভয় ছড়ানোর জন্য—যেমনটা বাংলাদেশে ছড়াচ্ছে। এত ভয় ছড়াচ্ছে যে মানুষ হাসপাতাল হতে দিচ্ছে না, করোনা আক্রান্ত মৃতদেহ দাফন করতে দিচ্ছে না। আবার এমন কারণেও গুজব ছড়ায় যেন সামাজিক সহাবস্থান নষ্ট হয় বা অন্য কোন জাতি/গোষ্ঠীর প্রতি নেতিবাচক মনোভাব তৈরি হয়। যেমন বছর দুয়েক আগে রামুতে ফেসবুকের মাধ্যমে ধর্ম অবমাননার যে গুজব রটানো হয়েছিল, যা সাম্প্রদায়িক হানাহানির রূপ নিয়েছিল। এখন হচ্ছে করোনাকে নিয়ে। বলা হচ্ছে করোনা কাফেরদের তৈরি, এটা মুসলমানদের হবে না। ইহুদী-নাসারা চায় নামাজ বন্ধ হোক, তাই করোনার কথা বলছে। মানুষ এমনও ভিডিও শেয়ার করছে যেখানে দেখা যাচ্ছে ভয়ে ‘কাফেররা’ নামাজ পড়ার চেষ্টা করছে এবং অনেক মানুষই তা বিশ্বাস করছে। ইতিমধ্যে এই গুজবে ভরা লিফলেটও বাজারে ছাড়া হয়েছে।

১৯৪৭ সালে এসে গুজবের মনস্তত্ত্ব বিচার করতে গিয়ে ন্যাপ বলেছেন, গুজব ছড়াতে ছড়াতে এর আকার ছোট হয়ে যায়, যেন সহজেই মানুষ বুঝতে পারে। যেমন বলা হচ্ছিল চীনারা সাপ, ব্যাঙ, কেঁচো খেয়ে খেয়ে এই করোনা ছড়িয়েছে। বলা হয়েছিল যে চীনারা মার্কিনীদের ঘায়েল করার জন্য করোনাভাইরাস তৈরি করেছিল, দুর্ঘটনাক্রমে তা নিজেদের দেশেই ছড়িয়ে পড়ে। এরকম অনেক গুজব বাতাসে ভাসতে ভাসতে শেষে এসে ঠেকেছে যে—বাদুরের স্যুপ থেকে করোনা ছড়িয়েছে। গুজবেরও ৭০ ভাগ বার্তা ক্রমে ক্রমে হারিয়ে যায়।

সামাজিক যোগাযোগের এই যুগে গুজব ছড়ানো খুবই সহজ কাজ। মনমতো যেকোনো একটি মিথ্যা তথ্য ভাইরাল করতে পারলেই হলো। গুজব ঠেকানোর জন্য এজন্য বলা হচ্ছে অনলাইনে কিছু ছাড়ার আগে বা শেয়ার করার ক্ষেত্রে একে পরীক্ষা করে দেখা দরকার। দেখতে হবে একাউন্টটা কবে খোলা হয়েছে। স্থানীয় কর্তৃপক্ষ এ সংক্রান্ত কোনো তথ্য দিচ্ছে কিনা, সেটাও খতিয়ে দেখতে হবে। তবে এইসব পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার ইচ্ছাটা সকলের থাকে না, সকলের দ্বারা সম্ভবও নয়। সবচেয়ে বড় কথা অধিকাংশ মানুষ গুজবে কান দেবেন না বললেও, গুজবে কান দিতেই ভালবাসেন। আর একে ঠেকানোর একমাত্র উপায় বেশি বেশি করে সঠিক তথ্য প্রচার।

শাহানা হুদা রঞ্জনা: যোগাযোগকর্মী

Comments

The Daily Star  | English
Shipping cost hike for Red Sea Crisis

Shipping cost keeps upward trend as Red Sea Crisis lingers

Shafiur Rahman, regional operations manager of G-Star in Bangladesh, needs to send 6,146 pieces of denim trousers weighing 4,404 kilogrammes from a Gazipur-based garment factory to Amsterdam of the Netherlands.

7h ago