দেশে আরও ২ জন করোনায় আক্রান্ত

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও দুই জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ৫৬ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে।
এমআইএস পরিচালক ডা. মো. হাবিবুর রহমান। ছবি: অনলাইন ব্রিফিং থেকে নেওয়া

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও দুই জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ৫৬ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে অনলাইন ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেমের (এমআইএস) পরিচালক ডা. মো. হাবিবুর রহমান।

তিনি বলেন, ‘কোভিড-১৯ সন্দেহে গত ২৪ ঘণ্টায় বাংলাদেশে ১৪১ জনের নমুনা আমরা পরীক্ষা করেছি। এদের মধ্যে দুই জনকে করোনাভাইরাস আক্রান্ত হিসেবে আমরা শনাক্ত করতে পেরেছি। এই দুই জনসহ বাংলাদেশে মোট ৫৬ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় কোনো করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীর মৃত্যু ঘটেনি। যে দুইজন রোগী নতুন আক্রান্ত হয়েছেন, তাদের মধ্যে দুই জনই পুরুষ। একজনের বয়স ৩০-৪০ এর মধ্যে। অন্যজনের বয়স ৭০-৮০ এর মধ্যে।’

এমআইএস পরিচালক বলেন, ‘করোনার অভিশাপ থেকে মুক্তি লাভ করার জন্য বিদেশফেরত ব্যক্তি এবং আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসা সকলকে কোয়ারেন্টিন করার কোনো বিকল্প নেই। আজ পর্যন্ত আমরা মোট ৬১ হাজার ৮৮০ জনকে হোম কোয়ারেন্টিন এবং ২৪৩ জনকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন এবং সর্বমোট ৬২ হাজার ১২৭ জনকে কোয়ারেন্টিন করেছি। গত ২৪ ঘণ্টায় ১ হাজার ৪০৪ জনকে হোম কোয়ারেন্টিন ও নয় জনকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন করেছি। অর্থাৎ, ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টিন সংখ্যা ১ হাজার ৪১৩। এ পর্যন্ত মোট ৪৫ হাজার ৪২৭ জনকে কোয়ারেন্টিন মুক্ত করায় বর্তমানে ১৬ হাজার ৭০০ জন কোয়ারেন্টিনে আছেন।’

‘বিদেশ থেকে যারা বিভিন্ন বিমানবন্দর, স্থলবন্দর, সমুদ্রবন্দর দিয়ে দেশে প্রবেশ করেন, তাদের প্রত্যেককে আমরা স্ক্রিনিং করছি। কোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণে বিদেশ থেকে আগত ৬ লাখ ৬৬ হাজার ৯৩১ জন যাত্রীকে বিভিন্ন বিমানবন্দর, স্থলবন্দর ও সমুদ্রবন্দরে স্ক্রিনিং করেছি। গত ২৪ ঘণ্টায় ৪০১ জন দেশে প্রবেশ করেছেন। যাদের প্রত্যেককে স্ক্রিনিং করা হয়েছে’, যোগ করেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, ‘স্বাস্থ্য বাতায়নে (১৬২৬৩ এবং ৩৩৩) আমরা গত ২৪ ঘণ্টায় কোভিড-১৯ বিষয়ক ৬৬ হাজার ৪৬৫টি ফোন পেয়েছি। এখন পর্যন্ত স্বাস্থ্য বাতায়নে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত মোট ১০ লাখ ৪২ হাজার ৯৫২টি ফোন কল আমরা রিসিভ করেছি। আমরা ইতোমধ্যে ৩ লাখ ৫৭ হাজার ২৫০টি পারসোনাল প্রোটেকটিভ ইকুইপমেন্ট (পিপিই) দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বিতরণ করেছি এবং আমাদের কাছে পর্যাপ্ত পিপিই মজুদ রয়েছে। পিপিই সরবরাহ ও বিতরণ অব্যাহত আছে।’

‘পিসিআর পরীক্ষা বিভিন্ন ইনস্টিটিউটে সম্প্রসারিত করা হয়েছে। ঢাকায় ছয়টি এবং ঢাকার বাইরে চারটি প্রতিষ্ঠান পরীক্ষা করা ইতোমধ্যে শুরু করেছে। আজকে আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে একটি নির্দেশনা পেয়েছি। ইতোমধ্যে আমাদের মহাপরিচালক ঢাকাসহ প্রত্যেকটা বিভাগের পরিচালক এবং সব সিভিল সার্জনকে নির্দেশনা দিয়েছেন যেনো আজকের মধ্যে প্রত্যেকটি উপজেলা থেকে কমপক্ষে দুইটি করে নমুনা সংগ্রহ করা হয়। আমরা যেন আজকের ভেতরে অন্তত ১ হাজার নমুনা সংগ্রহ করতে পারি এবং আগামীকাল সেগুলো পরীক্ষা করতে পারি’, যোগ করেন তিনি।

এমআইএস পরিচালক আরও বলেন,  ‘গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে পাঁচ জনকে আইসোলেশনে নেওয়া হয়েছে। এখন পর্যন্ত মোট ৩৭৩ জনকে আইসোলেশন করা হয়েছিল। যাদের মধ্যে ২৯৫ জনকে ছেড়ে দেওয়ায় বর্তমানে মোট ৭৮ জন আইসোলেশনে রয়েছেন।’

Comments

The Daily Star  | English

Fewer but fiercer since the 90s

Though Bangladesh is experiencing fewer cyclones than in the 1960s, their intensity has increased, a recent study has found.

6h ago