দেশে ফিরতে পারছেন না বুড়িমারীতে আটকে পড়া ৬১ ভারতীয় ট্রাকচালক

ভারতের চ্যাংড়াবান্ধা স্থলবন্দর হয়ে বুড়িমারী স্থলবন্দরে পাটবীজ নিয়ে আসা ৬১ ট্রাকচালককে ১০ দিনেও ফেরত নেয়নি ভারতীয় কর্তৃপক্ষ।
ভারতীয় কর্তৃপক্ষ ফেরত না নেওয়ায় দেশটির ৬১ ট্রাকচালক বাংলাদেশের বুড়িমারী স্থলবন্দরে আটকা পড়ে আছেন। ছবি: স্টার

ভারতের চ্যাংড়াবান্ধা স্থলবন্দর হয়ে বুড়িমারী স্থলবন্দরে পাটবীজ নিয়ে আসা ৬১ ট্রাকচালককে ১০ দিনেও ফেরত নেয়নি ভারতীয় কর্তৃপক্ষ।

বাংলাদেশে পাটবীজ আমদানিকারক ও স্থানীয় সিএন্ডএফ এজেন্ট ব্যবসায়ীরা করোনাভাইরাস দুর্যোগে ভারতীয় ট্রাকচালকদের নিয়ে পড়েছেন চরম বিপাকে। বিষয়টি ভারতীয় কর্তৃপক্ষ অবহিত করা হলেও কোন ফলপ্রসূ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে।

বুড়িমারী স্থলবন্দরে আমদানিকারক ও কাস্টমস সূত্র জানিয়েছে, ভারতের ওই বন্দরে ১৪ দিন আটকে থাকার পর উভয় দেশের সরকারি নির্দেশে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে গত ৪ এপ্রিল বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে বাংলাদেশে পাটবীজ নিয়ে আসা হয়। কিন্তু, পাটবীজ খালাসের পর থেকে ট্রাক ও চালকদেরকে নিজ দেশে ফেরত নেয়নি ভারত।

‘আমরা বাংলাদেশে এসে আটকে পড়েছি। পরিবারের লোকজন দুশ্চিন্তা করছে। চ্যাংড়াবান্ধা স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ আমাদের নিচ্ছে না। সেজন্য বাংলাদেশেই পড়ে আছি। গাড়িতেই ঘুমাচ্ছি,’ বলেন ভারতীয় ট্রাকচালক রমেশ দাস।

‘হোটেল বন্ধ থাকায় নিজেদেরই রান্না করে খেতে হচ্ছে। অনেক কষ্ট করতে হচ্ছে। পরিবারের লোকজনের সঙ্গে তেমন যোগাযোগ করতে পারছি না,’ যোগ করেন তিনি।

মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ কোচবিহার জেলার চ্যাংড়াবান্ধা স্থলবন্দর সিএন্ডএফ এজেন্ট সমিতির সাধারণ সম্পাদক উত্তম কুমার সরকার বলেন, ‘করোনাভাইরাস আতঙ্ক ও ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি না থাকায় গাড়ি ও চালকদের প্রবেশে বাধা দিচ্ছে কর্তৃপক্ষ।’

‘আমরাও কর্তৃপক্ষের অনুমতি নেওয়ার চেষ্টা করছি। অনুমতি পেলেই ভারতীয় চালকরা ট্রাকসহ বাংলাদেশ থেকে ভারতে চলে আসবেন,’ যোগ করেন তিনি।

ট্রাক থেকে পাটবীজ খালাসের পর গাড়ি নিয়ে চালকেরা ভারতে ফেরত যেতে চাইলে বুড়িমারী জিরোপয়েন্টে আটকে দেয় বিএসএফসহ ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। এরপর দফায় দফায় দুই দেশের সিএন্ডএফ এজেন্ট ও আমদানিকারক ব্যবসায়ীরা আলোচনা করেও বিষয়টির সুরহা করতে পারেনি।

বুড়িমারী স্থলবন্দরে ভারত তেকে পাটবীজ আমদানিকারক ঢাকার সিদ্দিকবাজার এলাকার মেসার্স রফিক এন্টারপ্রাইজের মালিক আলমগীর মিয়া বলেন, ‘পাটবীজ রফতানি করে ডলার আয় করেছে ভারত সরকার। এখন গাড়ি ও চালকদের কেনো ফেরত নিতে দেরি করছে। এটি আন্তর্জাতিক ব্যবসার নিয়মে পড়ে না। উভয় দেশের দুতাবাস ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে বিষয়টি আন্তরিকতার সঙ্গে দেখার অনুরোধ করছি।’

বুড়িমারী স্থলবন্দর কাস্টমস সহকারী কমিশনার (এসি) সোমেন কুমার চাকমা বলেন, ‘বিষয়টি ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি। ভারতীয় কর্তৃপক্ষের অনুমতি পেলে যেকোনো মুহূর্তে ট্রাকচালক ও গাড়িগুলো ফেরত পাঠানো হবে।’

বুড়িমারী স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের উপ-পরিচালক (ডিডি) মাহফুজুল ইসলাম বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে স্থলবন্দরের ইয়ার্ডের ভেতরেই ট্রাক ও চালকদের রাখা হয়েছে। সিএন্ডএফ এজেন্ট ও আমদানিকারক ব্যবসায়ীরা খাদ্য সহায়তা দিচ্ছেন। চালকরা নিজেরাই রান্না করে খাচ্ছেন। বিষয়টি স্থানীয় সংসদ সদস্য, জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারকে অবহিত করলে তারা সরেজমিনে দেখে গেছেন।’

দ্রুত সমস্যা সমাধানে ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন বলেও জানান তিনি।

লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফর বলেন, ‘চালকদেরকে ফেরত না নেওয়ার বিষয়টি ভারতীয় দূতাবাস ও কোচবিহার জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে (ডিএম) জানানো হয়েছে। তারা কেন্দ্রীয় সরকারকে অবহিত করেছেন। তবে এখনো কোনো নির্দেশনা আসেনি।’

Comments