মানিকগঞ্জে আইসোলেশনে ৩ জনের মৃত্যু

গত ২৪ ঘণ্টায় শ্বাসকষ্ট ও কাশি নিয়ে মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক নারীসহ তিন জন মারা গেছেন।
স্টার অনলাইন গ্রাফিক্স

গত ২৪ ঘণ্টায় শ্বাসকষ্ট ও কাশি নিয়ে মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক নারীসহ তিন জন মারা গেছেন।

আজ বৃহস্পতিবার হাসপাতালটির তত্ত্বাবধায়ক ডা. আরশ্বাদ উল্লাহ বিষয়টি দ্য ডেইলি স্টারকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, তিন জনের মধ্যে দুই জন গতকাল দিনগত রাতে ও আরেকজন সন্ধ্যার আগে মারা গেছেন। তারা সবাই শ্বাসকষ্ট ও কাশিতে ভুগছিলেন। তাদের মধ্যে একজন গতকাল সকালে ও অপর দুই জহন ২৮ এপ্রিল দুপুরে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন।

তিনি আরও জানান, তাদের মধ্যে একজন নারী ও দুই জন পুরুষ। সবার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। তাদের একজনের (৫৫) বাড়ি ঘিওর উপজেলার কেল্লাই গ্রামে, একজনের (৫০) সদর উপজেলার হাটিপাড়া গ্রামে ও নারীর (৫০) বাড়ি মানিকগঞ্জ পৌর এলাকায়। এ ছাড়া, তাদের সংস্পর্শে যাওয়া ব্যক্তিদের কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত ও বাড়ি লকডাউনের ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে স্থানীয় প্রশাসনকে জানানো হয়েছে।

ঘিওর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আইরিন আক্তার জানান, মারা যাওয়া ব্যক্তির মরদেহ আজ সকালে তার স্বজনরা নিজ গ্রাম কেল্লাইয়ে নিয়ে গেছেন। তাকে নিয়ম অনুযায়ী দাফন করা হবে। এ ছাড়া, তার বাড়ি লকডাউন করাসহ তার সংস্পর্শে যাওয়া ব্যক্তিদের ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে রাখা হবে।

মানিকগঞ্জ সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডা. মো: লুৎফর রহমান জানান, মারা যাওয়া ব্যক্তির মরদেহ নিজ গ্রাম হাটিপাড়ায় নেওয়া হচ্ছে। নিয়ম অনুযায়ী তাকে দাফন করা হবে। এ ছাড়া, তার বাড়ি লকডাউন করাসহ তার সংস্পর্শে যাওয়া ব্যক্তিদের ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে রাখা হবে।

মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) আলী রাজিব মাহমুদ মিঠুন জানান, মারা যাওয়া নারী মানিকগঞ্জের একটি হাসাপাতালে পরিচ্ছন্নতাকর্মী হিসেবে কাজ করতেন। তাকে সরকারি নিয়ম অনুযায়ী দাফন করা হয়েছে।  এ ছাড়া, তার বাড়ি লকডাউনসহ তার সংস্পর্শে যাওয়া ব্যক্তিদের ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে।

Comments

The Daily Star  | English

Govt may go for quota reforms

The government is considering a logical reform in the existing quota system in public service, but it will not take any initiative to that effect or give any assurances until the matter is resolved by the Supreme Court, where the issue is now pending.

1d ago