নিলামে মুন্নার জার্সি ৩ লাখে বিক্রি, রেফারি তৈয়বের ৫ লাখ ৫৫ হাজারে

নিলাম চলাকালীন মুন্নার আরও একটি জার্সি বিক্রি হয়েছে।
munna jersey final
ছবি: সংগৃহীত

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে সংকটে পড়া দেশের অসহায় মানুষদের সাহায্যার্থে নিলামে তোলা হয়েছিল মোনেম মুন্নার একটি জার্সি। তা বিক্রি হয়েছে তিন লাখ টাকায়। বাংলাদেশের সাবেক ফিফা রেফারি তৈয়ব হাসানের একটি জার্সিও নিলামে উঠেছিল। সেটা থেকে পাওয়া গেছে পাঁচ লাখ ৫৫ হাজার টাকা।

শনিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ‘অকশন ফর অ্যাকশন’ পেজ থেকে সরাসরি নিলাম অনুষ্ঠান পরিচালনা করা হয়। অকাল প্রয়াত তারকা ফুটবলার মুন্না ও রেফারি তৈয়বের জার্সি দুটির ভিত্তিমূল্য ধরা হয়েছিল দুই লাখ টাকা করে। ভিত্তিমূল্যের চেয়ে বেশি দামেই সেগুলো বিক্রি হয়েছে।

১৯৮৯ সালে ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয়েছিল প্রেসিডেন্ট গোল্ডকাপ। ফাইনালে দক্ষিণ কোরিয়ার একটি দলকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বাংলাদেশ লাল দল। ওই আসরে ‘দ্য কিং ব্যাক’ খ্যাত মুন্না ‘২’ নম্বর জার্সি পরে খেলেছিলেন। সেটাই তোলা হয়েছিল নিলামে। তিন লাখ টাকায় জার্সিটি কিনেছে কার্নিভাল ইন্টারনেট প্রতিষ্ঠান।

নিলাম চলাকালীন মুন্নার আরও একটি জার্সি বিক্রি হয়েছে। ২০০৫ সালে মাত্র ৩৮ বয়সে না ফেরার দেশে পাড়ি দেওয়ার আগে ঐতিহ্যবাহী আবাহনী লিমিটেডের রক্ষণভাগের অতন্দ্র প্রহরী ছিলেন তিনি। তার আবাহনীর সেই জার্সিগুলোর একটি বিক্রি হয়েছে দুই লাখ দশ হাজার টাকায়। কিনেছেন এইচএসবিসি ব্যাংকের সিইও মাহবুবুর রহমান। এই জার্সিটি শুরুতে নিলামে ছিল না।

tayeb hasan referee
ছবি: সংগৃহীত

অবসরে যাওয়ার আগে দীর্ঘ ১৮ বছর আন্তর্জাতিক অঙ্গনে রেফারিং করেন তৈয়ব। ২০১৩ সালে নেপালের কাঠমুণ্ডুতে দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম রেফারি হিসেবে সাফের ফাইনাল ম্যাচ পরিচালনা করেছিলেন তিনি। সেই জার্সিটি বিক্রি হয়েছে পাঁচ লাখ ৫৫ হাজার টাকা। কিনে নিয়েছেন সাতক্ষীরা চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি নাছিম ফারুক খান।

জার্সিগুলো বিক্রি করে পাওয়া পুরো অর্থ দান করা হবে করোনাভাইরাসের আঘাতে জর্জরিত অসহায় ও দুস্থ মানুষদের সহযোগিতায়।

Comments