‘শ্রীলঙ্কা চাইলেই তো হলো না’, জুলাইয়ের সিরিজ নিয়ে বিসিবি প্রধান

আগামী জুলাইয়ে বাংলাদেশের বিপক্ষে নির্ধারিত সিরিজ আয়োজনের সব রকম প্রস্তুতি তাদের আছে বলে জানিয়েছিল লঙ্কান বোর্ড। তবে বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান পাপন শুনিয়েছেন অনিশ্চয়তার কথাই।
Nazmul Hasan Papon
ফাইল ছবি: ফিরোজ আহমেদ

ক্রিকেট খেলুড়ে দেশগুলোর মধ্যে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি সবচেয়ে বেশি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেরেছে শ্রীলঙ্কা। তাই আগামী জুলাইয়ে বাংলাদেশের বিপক্ষে নির্ধারিত সিরিজ আয়োজনের সব রকম প্রস্তুতি তাদের আছে বলে জানিয়েছিল লঙ্কান বোর্ড। তবে বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান পাপন শুনিয়েছেন অনিশ্চয়তার কথাই। তার মতে, শ্রীলঙ্কা চাইলেই যে সিরিজটা অনুষ্ঠিত হওয়ার বাস্তবতা আছে, তা মনে করার কারণ নেই।

বুধবার জাতীয় ক্রীড়া পরিষদে বোর্ড প্রধান কবে আবার মাঠের খেলা শুরু হবে তা নিয়ে ঘোর অনিশ্চয়তার কথা জানান।

গত সোমবার শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী অ্যাশলি ডি সিলভা ক্রিকেট ওয়েবসাইট ইএসপিএন ক্রিকইনফোকে বলেন, আগামী জুলাই-অগাস্টে ভারত ও বাংলাদেশের বিপক্ষে দুটো সিরিজই সময়মতো আয়োজন করতে চান তারা। সেজন্য নেওয়া আছে সব প্রস্তুতি।

কিন্তু বোর্ড সভাপতি নাজমুল জানান, শ্রীলঙ্কার চাওয়ার উপরই সব নির্ভর করছে না। তিনি ইঙ্গিত দেন বিরূপ বাস্তবতার দিকে, ‘দেখুন, তারা (শ্রীলঙ্কা) আয়োজন করতে চাইলেই তো হলো না। আমরা পাঠাতে (দল) পারব কি-না, আমাদের খেলোয়াড়দের পাঠানো ঠিক হবে কি-না এই মুহূর্তে, কোথায় থাকবে, কী করবে- এগুলো সহজ সিদ্ধান্ত না।’

করোনাভাইরাসে এ পর্যন্ত শ্রীলঙ্কায় আক্রান্তের সংখ্যা ১ হাজার ৯ জন। মৃত্যু হয়েছে কেবল ৯ জনের। দেশটির পরিস্থিতি এখন ভালো থাকলেও সামনে কী ঘটবে তা নিয়ে সন্দিহান নাজমুল, ‘একটা জায়গা এখন ভালো আছে, একমাস পরে দেখা গেল, আবার হচ্ছে (করোনাভাইরাস) ওখানে। এটা তো বলা যাচ্ছে না শেষ হবে কোথায় বা কখন কী পরিস্থিতি (তৈরি হবে)।’

আপাতত দ্বিপাক্ষিক সিরিজ নিয়ে ইতিবাচক কোনো উদ্যোগ না নিয়ে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে নজর দিবে বিসিবি, ‘আমরা অন্যদের পর্যবেক্ষণ করব। আইসিসি কী করে, এসিসি কী করে। অন্য দেশগুলো কী করছে। এখন পর্যন্ত কেউ নির্দিষ্ট তারিখ দিয়ে বলতে পারেনি খেলা কবে হবে। আমরাই এক্ষেত্রে প্রথম হব, এটা ভাবা ঠিক না।’

আইসিসির ভবিষ্যৎ সফরসূচি অনুসারে, আগামী জুলাইয়ে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ হিসেবে তিন টেস্টের সিরিজ খেলতে শ্রীলঙ্কায় যাওয়ার কথা রয়েছে বাংলাদেশের।

Comments

The Daily Star  | English

Lifting curfew depends on this Friday

The government may decide to reopen the educational institutions and lift the curfew in most places after Friday as the last weekend saw large-scale violence over the quota-reform protest.

12h ago