ভিড় বাড়ছে আরিচা-পাটুরিয়া ঘাটে, সড়কে বেপরোয়া যানবাহন

মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাটে বাড়ছে ঘরমুখী মানুষের ভিড়। দীর্ঘ হচ্ছে পণ্যবাহী ও ব্যক্তিগত গাড়ির সারি। আজ শনিবার সকাল থেকেই পাটুরিয়া ও আরিচা ঘাটের এই চিত্র।
Manikganj_Paturia_23May2020.jpg
মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাটে বাড়ছে ঘরমুখী মানুষের ভিড়। দীর্ঘ হচ্ছে পণ্যবাহী ও ব্যক্তিগত গাড়ির সারি। ছবি: স্টার

মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাটে বাড়ছে ঘরমুখী মানুষের ভিড়। দীর্ঘ হচ্ছে পণ্যবাহী ও ব্যক্তিগত গাড়ির সারি। আজ শনিবার সকাল থেকেই পাটুরিয়া ও আরিচা ঘাটের এই চিত্র।

ভিড় বড়লেও যাত্রী বা পণ্যবাহী ট্রাক পারাপারে ভোগান্তি হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) আরিচা কার্যালয়ের উপমহাব্যবস্থাপক জিল্লুর রহমান। তিনি দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, এই মুহূর্তে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে ১৬টি ফেরির মধ্যে ১৫টি প্রস্তুত আছে। বর্তমানে আটটি ফেরি চলাচল করছে।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভ্রমণ করার অনুমতি দেওয়া হলেও দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলার প্রবেশমুখ দিয়ে গাদাগাদি করেই ফিরতে দেখা গেছে ঘরমুখী মানুষদের। ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে বেপরোয়াভাবে চলছে যানবাহন, যে কোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা আছে।

ঢাকা থেকে কুষ্টিয়া যাচ্ছেন রেশমা আক্তার। তিনি বলেন, ‘যাদের ব্যক্তিগত গাড়ি আছে তাদের কোনো সমস্যা নেই। বাস বন্ধ, আমাদের পিকআপ ভ্যান, মোটরসাইকেলে চলতে হচ্ছে। এভাবে সমাজিক দূরত্ব রক্ষা করা সম্ভব না।’

আরেক যাত্রী সাবিনা আক্তার বলেন, ‘নানা কারণে বাড়িতে যেতে হচ্ছে। মাস্ক পরেছি, কিন্তু সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সম্ভব হচ্ছে না। সরকার যদি সমাজিক দূরত্বের নিয়ম করে বাস চলতে দিতো, তাহলে আমাদের ভোগান্তির শিকার হতে হতো না। বাড়তি টাকাও খরচ হতো না।’

মানিকগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (শিবালয় সার্কেল) তানিয়া সুলতানা বলেন, ‘ফেরি সার্ভিস স্বাভাবিক আছে। বেপরোয়া গাড়ি চালকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

Comments