করোনা আপডেট: ফরিদপুর ও জামালপুর

ফরিদপুরে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩০ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। জামালপুরের সরিষাবাড়িতে নারায়ণগঞ্জফেরত এক ব্যক্তি করোনার উপসর্গ নিয়ে আজ মারা গেছেন। দ্য ডেইলি স্টারের স্থানীয় সংবাদদাতারা এ সব তথ্য জানিয়েছেন।
Coronavirus-1.jpg
করোনাভাইরাস। ছবি: সংগৃহীত

ফরিদপুরে  গত ২৪ ঘণ্টায় ৩০ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। জামালপুরের সরিষাবাড়িতে নারায়ণগঞ্জফেরত এক ব্যক্তি করোনার উপসর্গ নিয়ে আজ মারা গেছেন। দ্য ডেইলি স্টারের স্থানীয় সংবাদদাতারা এ সব তথ্য জানিয়েছেন।   

ফরিদপুরে আরও ৩০ জনের করোনা শনাক্ত

গত ২৪ ঘণ্টায় ফরিদপুরে নতুন করে আরও ৩০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। জেলায় এ পর্যন্ত ৩৬৫ জনের করোনা শনাক্ত হলো। ফরিদপুরের সিভিল সার্জন মো. ছিদ্দীকুর রহমান আজ বুধবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, নতুন করে যে ৩০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে তাদের মধ্যে ভাঙ্গা ১৮ জন, সদর উপজেলায় পাঁচ জন, বোয়ালমারীতে তিন জন, নগরকান্দায় দুই জন, সদরপুরে একজন ও চরভদ্রাসনে একজন। 

তিনি আরও জানান, ফরিদপুরে এ পর্যন্ত শনাক্ত ৩৬৫ জনের মধ্যে সদর উপজেলায় রয়েছেন ৯৩ জন, ভাঙ্গার ৯০ জন, বোয়ালমারীতে ৫৬ জন, নগরকান্দায় ৩৪ জন, চরভদ্রাসনে ৩১ জন, আলফাডাঙ্গায় ২৭ জন, সদরপুরে ১৬ জন, মধুখালীতে ১১ জন এবং সালথা উপজেলায় সাত জন আছেন।

ফরিদপুরের পুলিশ সুপার মো. আলিমুজ্জামান বলেন, ‘জেলায় নতুন করে যে ৩০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে, তাদের বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে।’

জামালপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে ১ জনের মৃত্যু

জামালপুরের সরিষাবাড়ি উপজেলায় নারায়ণগঞ্জফেরত এক ব্যক্তি করোনার উপসর্গ নিয়ে আজ মারা গেছেন। ৩৮ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি নারায়ণগঞ্জে একটি কারাখানায় কাজ করতেন।

সরিষাবাড়ি উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা গাজী রফিকুল হক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘মেলান্দহ উপজেলার ওই ব্যক্তি দুই দিন আগে নারায়ণগঞ্জ থেকে সরিষাবাড়িতে তার শ্যালকের বাড়িতে আসেন। তখন থেকেই তার করোনার উপসর্গ ছিল। আজ ভোর ৬ টার দিকে জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে ওই বাড়িতেই তিনি মারা যান।’

বাড়িটি লকডাউন করা হয়েছে বলে জানান সরিষাবাড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শিহাব উদ্দিন আহমেদ।

মৃত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসা ওই বাড়ির সবার করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হবে বলে তিনি জানান।

Comments

The Daily Star  | English

Coastal villagers shifted to LPG from Sundarbans firewood

'The gas cylinder has made my life easy. The smoke and the tension of collecting firewood have gone away'

1h ago