বার্সার সঙ্গে কোনো অদল-বদল চুক্তি করবে না পিএসজি!

নতুন মৌসুমের দলবদলের বাজারে বার্সেলোনার প্রথম লক্ষ্য ইন্টার মিলানের লাউতারো মার্তিনেজ। তবে নেইমারকে ফিরিয়ে আনার লক্ষ্য থেকে সরে আসেনি তারা। তাকে ফেরানোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে দলটি। কিন্তু এবারও সেই পুরনো সমস্যার কারণেই হয়তো তাকে নাও পেতে পারে দলটি। কারণ নেইমারকে ফেরাতে হলে কোনো অদল বদলে যাবে না তার বর্তমান ক্লাব প্যারিস সেইন্ট জার্মেই (পিএসজি)। রিলিজ ক্লজের পুরো ১৭৫ মিলিয়ন ইউরো দিয়েই তাকে ফেরাতে হবে বলে সংবাদ প্রকাশ করেছে স্প্যানিশ গণমাধ্যম দিয়ারিও স্পোর্ত।
ফাইল ছবি: এএফপি

নতুন মৌসুমের দলবদলের বাজারে বার্সেলোনার প্রথম লক্ষ্য ইন্টার মিলানের লাউতারো মার্তিনেজ। তবে নেইমারকে ফিরিয়ে আনার লক্ষ্য থেকে সরে আসেনি তারা। এখনও চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে দলটি। কিন্তু এবারও সেই পুরনো সমস্যা। নেইমারকে ফেরাতে হলে কোনো অদল-বদলে যাবে না তার বর্তমান ক্লাব প্যারিস সেইন্ট জার্মেই (পিএসজি)। রিলিজ ক্লজের পুরো ১৭৫ মিলিয়ন ইউরো দিয়েই তাকে ফেরাতে হবে বলে সংবাদ প্রকাশ করেছে স্প্যানিশ গণমাধ্যম দিয়ারিও স্পোর্ত।

২০১৭ সালের গ্রীষ্মের দলবদলে রেকর্ড ২২২ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে বার্সেলোনা ছেড়ে পিএসজিতে নাম লেখান নেইমার। তবে ফ্রান্সে গিয়ে খুব একটা সুখে নেই এ তারকা। আবার ফিরতে চান বার্সেলোনায়। তার সঙ্গে বার্সেলোনা অধিনায়ক লিওনেল মেসি ও লুইস সুয়ারেজের সঙ্গে বন্ধুত্বটাও খুব ভালো। তাকে ফের ন্যু ক্যাম্পে দেখতে চান তারাও। কিন্তু সমস্যা একটাই। ক্লাবের অর্থনৈতিক ঘাটতি। অন্যদিকে, কোনো ধরণের অদল-বদলের কথা শুনতেই চায় না পিএসজি। চলতি মৌসুমেও এমন প্রস্তাবে সরাসরি না করে দিয়েছে বলে সংবাদে লিখেছে স্পোর্ত। নগদ অর্থের বিকল্প কিছুই শুনতে চায় না ফ্রান্সের ক্লাবটি। 

গত মৌসুমেও নেইমারকে দলে ফিরে পেতে প্রায় উঠে পড়ে লেগেছিল বার্সেলোনা। খেলোয়াড় বিনিময়ের নানা ধরনের প্রস্তাব দিয়েছিল। কিন্তু ২২২ মিলিয়ন ইউরোর এক অঙ্ক কমেও তাকে ছাড়বে না বলে জানিয়ে দেয় পিএসজি। শেষ পর্যন্ত বার্সা পুরো অর্থ দিতে না পারায় নেইমারকে থেকে যেতে হয় পিএসজিতেই। তবে এবারের মৌসুমে নেইমারের দাম কমাতে বাধ্য হয়েছে ক্লাবটি। খেলোয়াড়দের দলবদলের ক্ষেত্রে ফিফার ‘প্রোটেক্টেড পিরিয়ড’ ধারার কারণে তার ‘প্রাইস ট্যাগ’ ১৭৫ মিলিয়ন ইউরো করেছে তারা।

কিন্তু তাতেও লাভ হয়নি বার্সেলোনার। করোনাভাইরাসের কারণে ক্লাবে তৈরি হয়েছে বড় ধরণের অর্থনৈতিক ঘাটতি। ক্লাবের সাধারণ স্টাফদের বেতনও ঠিকভাবে দিতে পারছে না দলটি। যে কারণে খেলোয়াড়-কোচদের বেতন ৭০ শতাংশ কেটে রাখার সিদ্ধান্ত নেয় তারা। যার ফলে ১৪ মিলিয়ন ইউরো বাঁচায় দলটি। কিন্তু তাও যথেষ্ট নয়। ঘাটতি আরও ৯ মিলিয়ন ইউরো। যে কারণে আরও এক দফা খেলোয়াড়দের বেতন কমানোর অনুরোধ করেছেন ক্লাবের প্রেসিডেন্ট জোসেপ মারিয়া বার্তেমেউ।

এদিকে, বার্সেলোনা মূল লক্ষ্য লাউতারোর ক্ষেত্রেও একই সমস্যা দেখা দিয়েছে। ইন্টারও কোনো ধরণের বিনিময় প্রথায় আগ্রহী নয়। মূলত লাউতারোকে বিক্রিই করতে চায় না তারা। তাকে পেতে হলে রিলিজ ক্লজের পুরো ১১১ মিলিয়ন ইউরো প্রদান করেই নিতে হবে জানিয়ে দিয়েছে ক্লাবটি।

Comments