করোনা আপডেট: কক্সবাজার, হবিগঞ্জ, জয়পুরহাট, চাঁদপুর, মানিকগঞ্জ

কক্সবাজারে শনাক্ত করোনা রোগীর সংখ্যা ইতোমধ্যে দুই হাজার ছাড়িয়েছে। একইসঙ্গে টেকনাফে ১১ চিকিৎসকের ও হবিগঞ্জের আজমিরিগঞ্জ থানার ওসির করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ ছাড়া, জয়পুরহাটে ২ র‌্যাব সদস্যসহ ৬ জনের, চাঁদপুরে ১৫ পুলিশ সদস্যসহ আরও ৪৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। আর মানিকগঞ্জে করোনা উপসর্গ নিয়ে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে এবং শনাক্ত হয়েছেন আরও ২৩ জন।
প্রতীকী ছবি। (সংগৃহীত)

কক্সবাজারে শনাক্ত করোনা রোগীর সংখ্যা ইতোমধ্যে দুই হাজার ছাড়িয়েছে। একইসঙ্গে টেকনাফে ১১ চিকিৎসকের ও হবিগঞ্জের আজমিরিগঞ্জ থানার ওসির করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ ছাড়া, জয়পুরহাটে ২ র‌্যাব সদস্যসহ ৬ জনের, চাঁদপুরে ১৫ পুলিশ সদস্যসহ আরও ৪৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। আর মানিকগঞ্জে করোনা উপসর্গ নিয়ে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে এবং শনাক্ত হয়েছেন আরও ২৩ জন।

দ্য ডেইলি স্টারের নিজস্ব সংবাদদাতারা এ তথ্য জানিয়েছেন।

কক্সবাজার জেলায় করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ২ হাজার ছাড়াল

কক্সবাজার জেলায় শনাক্ত করোনা রোগীর ইতোমধ্যে দুই হাজার ছাড়িয়েছে। সংক্রমণের দিক থেকে দেশে চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে কক্সবাজার। কক্সবাজারের আগে রয়েছে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও নারায়ণগঞ্জ।

গতকাল শুক্রবার কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে ৬৭৯টি নমুনা পরীক্ষা করে ১৪৪ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। ওই ১৪৪ জনের মধ্যে ১১৭ জনই কক্সবাজার জেলার। বাকি ২৭ জন বান্দরবান ও চট্টগ্রামের। কক্সবাজারের ১১৭ জনের মধ্যে সদর উপজেলার ৭২ জন, টেকনাফের ছয় জন, উখিয়ার পাঁচ জন, চকরিয়ার আট জন, মহেশখালীর দুই জন, রামুর ১৪ জন, পেকুয়ার ছয় জন, কুতুবদিয়ার তিনজন ও একজন রোহিঙ্গা।

গতকাল পর্যন্ত জেলায় শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ২ হাজার ২০ জন। এর মধ্যে বাংলাদেশে আশ্রিত মিয়ানমারের বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা নাগরিক রয়েছেন ৪১ জন। এ পর্যন্ত তিন জন রোহিঙ্গা নাগরিকসহ জেলায় করোনায় মারা গেছেন ৩০ জন। এ পর্যন্ত চিকিৎসা নিয়ে করোনামুক্ত হয়েছেন ৫০০ জন।

টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ১১ চিকিৎসকের করোনা শনাক্ত

কক্সবাজার জেলার টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত ১১ জন চিকিৎসকের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। আজ দুপুরে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা টিটু চন্দ্র শীল দ্য ডেইলি স্টারকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। শনাক্তদের মধ্যে তিনি নিজেও রয়েছেন।

তিনি জানান, গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত টেকনাফ উপজেলায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ১১ জন চিকিৎসকসহ মোট ১৬৫ জন (রোহিঙ্গা নাগরিক ছাড়া) করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। ১৬৫ জনের মধ্যে সুস্থ হয়েছে ৪৭ জন। মারা গেছেন তিন জন।

আজমিরিগঞ্জ থানার ওসি করোনায় আক্রান্ত

হবিগঞ্জ জেলার আজমিরীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোশারফ হোসেন তরফদার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। গতকাল শুক্রবার পাওয়া ফলাফলে তার কোভিড-১৯ পজিটিভ আসে।

বিষয়টি দ্য ডেইলি স্টারকে নিশ্চিত করে হবিগঞ্জ জেলার ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মুখলেছুর রহমান বলেন, ‘জেলায় এখন পর্যন্ত মোট ২৭৬ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ১৫৮ জন। আর মৃত্যুবরণ করেছেন চার জন।’

ডেপুটি সিভিল সার্জন আরও বলেন, ‘আজমিরীগঞ্জ থানার ওসিসহ নতুন করে আরও ১৪ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। বর্তমানে ওসি ঢাকার নিজ বাসভবনে আইসোলেশনে রয়েছেন। রাজধানী ঢাকার এভার কেয়ার হাসপাতালে তার নমুনা পরীক্ষা হলে গতকাল পাওয়া ফলে কোভিড-১৯ পজিটিভ আসে।’

জয়পুরহাটে ২ র‌্যাব সদস্যসহ ৬ জনের করোনা শনাক্ত

জয়পুরহাটে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) দুই সদস্যসহ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও ছয় জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ২৪৬ জনে দাঁড়িয়েছে। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৬১ জন।

গতকাল শুক্রবার রাতে ঢাকা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ল্যাবরেটরি মেডিসিন অ্যান্ড রেফারেল সেন্টার থেকে আসা রিপোর্টে ছয় জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে বলে দ্য ডেইলি স্টারকে নিশ্চিত করেন জেলা সিভিল সার্জন ডা. সেলিম মিঞা।

তিনি জানান, র‌্যাব সদস্যদের রাজশাহীতে নিজস্ব তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা চলছে। একজন নওগাঁ জেলার বদলগাছীতে নিজ বাড়িতে হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন। এ ছাড়া, তিন জনকে আক্কেলপুর উপজেলার গোপীনাথপুর অব হেলথ টেকনোলজির আইসোলেশন ইউনিটে আনার প্রস্তুতি চলছে।

চাঁদপুরে ১৫ পুলিশ সদস্যসহ আরও ৪৪ জনের করোনা শনাক্ত

চাঁদপুরে ১৫ পুলিশ সদস্যসহ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও ৪৪ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ৫৫৬ জনে। 

আজ জেলা সিভিল সার্জন ডা. মো.সাখাওয়াত উল্লাহ বিষয়টি দ্য ডেইলি স্টারকে নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘৪৪ জনের মধ্যে সদর উপজেলার ২৬ জন, মতলব দক্ষিণের ১৫ জন, হাজীগঞ্জের একজন, শাহরাস্তির একজন ও ফরিদগঞ্জের একজন।’

‘৪৪ জনের মধ্যে ১৫ জন পুলিশ সদস্য। তারা সবাই চাঁদপুর মডেল থানায় কর্মরত। তাদের মধ্যে একজন এসআই, বাকিরা কনস্টেবল হিসেবে কর্মরত।

সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, চাঁদপুরে এখন পর্যন্ত করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ৯৮ জন। তাদের মধ্যে ৮৩ জনের করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে। ওই ৮৩ জনের মধ্যে ৪৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

মানিকগঞ্জে করোনা উপসর্গ নিয়ে আরও একজনের মৃত্যু

মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ফরহাদ হোসেন (৫১) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। গতকাল রাত ৮টার দিকে তিনি মারা যান। আজ সকালে হাসপাতালটির তত্ত্বাবধায়ক ডা. আরশাদ উল্লাহ দ্য ডেইলি স্টারকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে গতকাল বেলা ১১টার দিকে হাসপাতালে আসলে তাকে করোনা আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে রাত ৮টার দিকেই তিনি মারা যান।’

‘ওই ব্যক্তি এর আগে ১৬ জুন হাসপাতালে এসেছিলেন। তিনি করোনায় আক্রান্ত কি না, তা নিশ্চিত হতে তার শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করে ওই দিনই তা পরীক্ষার জন্য ঢাকার সাভারে বাংলাদেশ প্রাণীসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের ল্যাবে পাঠানো হয়। এখনো তার রিপোর্ট পাওয়া যায়নি’, বলেন তিনি।

এ নিয়ে জেলায় করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেলেন ১৪ জন। পরে তাদের মধ্যে চার জনের করোনা শনাক্ত হয়।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে জেলায় আরও ২৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে এই জেলায় করোনা শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে হলো ৪৭২ জন। আজ দুপুরে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন সিভিল সার্জন কার্যালয়ের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. রফিকুন নাহার বন্যা।

তিনি বলেন, ‘নতুন শনাক্তদের মধ্যে মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার ছয় জন, সাটুরিয়ার পাঁচ জন, ঘিওরে পাঁচ জন, সিংগাইরে চার জন এবং হরিরামপুর, শিবালয় ও দৌলতপুর উপজেলায় একজন করে মোট তিন জন।’

‘এ পর্যন্ত জেলায় মোট শনাক্ত ৪৭২ জনের মধ্যে মানিকগঞ্জ সদর উপজেলায় ১৩৮ জন, সাটুরিয়ায় ৯২ জন, সিঙ্গাইরে ৮৭ জন, ঘিওরে ৬৯ জন, হরিরামপুরে ৩৯ জন, শিবালয়ে ৩০ জন ও দৌলতপুর উপজেলায় রয়েছেন ১৭ জন জন’, বলেন তিনি।

ডা. রফিকুন নাহার বন্যা আরও জানান, করোনায় সংক্রমিত ব্যক্তিদের মধ্যে জেলার বিভিন্ন হাসপাতালে আইসোলেশনে আছেন ৩০ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ২২৭ জন। অন্যরা সবাই নিজ বাসায় আইসোলেশনে রয়েছেন।

Comments

The Daily Star  | English
Awami League's peace rally

Relatives in UZ Polls: AL chief’s directive for MPs largely unheeded

Ministers’ and Awami League lawmakers’ desire to tighten their grip on grassroots seems to be prevailing over the AL president’s directive to have their family members and relatives withdrawn from the upazila polls. 

19m ago