করোনা আপডেট: সিলেট, পাবনা, বরগুনা

করোনায় আক্রান্ত হয়ে সিলেটের এক প্রবীণ আইনজীবীর মৃত্যু হয়েছে। পাবনায় করোনা উপসর্গ নিয়ে আজ ভোরে এক সরকারি কর্মকর্তা মারা গেছেন। এ ছাড়াও, করোনার চিকিৎসায় সাফল্য ধরে রেখেছে। এ হাসপাতাল থেকে এ পর্যন্ত ৫৬ জন করোনা রোগী চিকিৎসা নিলেও করো মৃত্যু হয়নি। বরগুনা জেলায় আজ শনিবার পর্যন্ত ১৫৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

করোনায় আক্রান্ত হয়ে সিলেটের এক প্রবীণ আইনজীবীর মৃত্যু হয়েছে। পাবনায় করোনা উপসর্গ নিয়ে আজ ভোরে এক সরকারি কর্মকর্তা মারা গেছেন। এ ছাড়াও, করোনার চিকিৎসায় সাফল্য ধরে রেখেছে। এ হাসপাতাল থেকে এ পর্যন্ত ৫৬ জন করোনা রোগী চিকিৎসা নিলেও করো মৃত্যু হয়নি। বরগুনা জেলায় আজ শনিবার পর্যন্ত ১৫৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

আজ শনিবার দ্য ডেইলি স্টারের স্থানীয় সংবাদদাতারা এসব তথ্য জানিয়েছেন।

সিলেটে করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়ে আইনজীবীর মৃত্যু

করোনা আক্রান্ত হয়ে সিলেটে এ প্রবীণ আইনজীবীর মৃত্যু হয়েছে। আজ ভোর পাঁচটার দিকে সিলেটের নর্থ ইস্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

নর্থ ইস্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, ‘করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ৬ জুন হাসপাতালে ভর্তির হওয়ার পর আজ ভোরে মৃত্যুবরণ করেন ওই আইনজীবী।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দৈনিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, সিলেট জেলায় মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১ হাজার ৬৮৮ জন। এরমধ্যে সুস্থ হয়েছেন ২৩৯ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৪৪ জন।

পাবনায় করোনা উপসর্গ নিয়ে সরকারি কর্মকর্তার মৃত্যু

পাবনায় করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়ার আগেই করোনা উপসর্গ নিয়ে আজ ভোরে এক সরকারি কর্মকর্তার মৃত্যু হয়েছে। পাবনা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জয়নাল আবেদিন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, ওই ব্যক্তি কয়েক দিন ধরে জ্বরে ভুগছিলেন। গত ১৭ জুন তিনি করোনা পরীক্ষার নমুনা দিয়ে বাসাতেই চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। শুক্রবার রাতে শ্বাসকষ্ট শুরু হলে তাকে পাবনা হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে ডাক্তারদের পরামর্শে রাতে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। তখন তিনি স্বাভাবিকভাবেই কথা বলছিলেন। পরে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে আইসিইউতে নেওয়ার আগেই মৃত্যু হয়।

করোনার চিকিৎসায় সফল বরগুনা জেনারেল হাসপাতাল

করোনা রোগীর চিকিৎসায় সাগর উপকূলীয় জেলা বরগুনা জেনারেল হাসপাতাল সাফল্য অব্যাহত রেখেছে। এ পর্যন্ত এ হাসপাতাল থেকে সন্দেহভাজন ও উপসর্গসহ মোট ৪৫৭ জন করোনার চিকিৎসা নিয়েছেন। তাদের মধ্যে ২১৭ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়ে সেবা নিয়েছেন। বাকিরা আউটডোরে এবং হোম কোয়ারেন্টিনে থেকে ফোনের মাধ্যমে সেবা নিয়েছেন। উন্নত সেবার কারণে এ হাসপাতালে ৫৬ জন করোনা পজিটিভ রোগী সেবা নিলেও কারো মৃত্যু হয়নি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আজ শনিবার পর্যন্ত ৩ জন নতুন রোগীসহ হাসপাতালটিতে মোট চিকিৎসাধীন আছেন ২৯ জন। এরমধ্যে নয় জন করোনা পজিটিভ এবং বাকিরা সন্দেহভাজন ও তাদের নমুনা পরীক্ষার ফলাফল এসে পৌঁছায়নি।

বরগুনা জেনারেল হাসপাতালের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ও করোনা বিষয়ে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত চিকিৎসক মো. কামরুল আজাদ বলেন, ‘বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে কোনো করেনা রোগীর মৃত্যু হয়নি। জেলার দুই উপজেলায় যে দুজনের মৃত্যু হয়েছে তাদের কেউ বরগুনা সদর হাসপাতালের চিকিৎসা নেননি। তাদের একজন চিকিৎসা নিয়েছেন বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও অপরজন পটুয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে।’

বরগুনা জেনারেল হাসপাতালের নার্স জাকিয়া পারভিন সীমা বলেন, ‘সেবাদানের জন্যই এ পেশায় এসেছি। তাই পিছিয়ে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। আন্তরিকতার সঙ্গে সেবা দেওয়ার চেষ্টা করছি।’

বরগুনা সিভিল সার্জন ডা. হুমায়ুন খান শাহীন বলেন, ‘বরগুনা জেনারেল হাসতাপালে তুলনামূলক ভালো সেবা দেওয়ার চেষ্টা অব্যাহত আছে। তবে, এখানে আইসিইউ, সেন্ট্রাল অক্সিজেন সাপ্লাই নেই। এ রকম আরও কিছু সমস্যা আছে। এসব কারিগরি বিষয় নিশ্চিত করা গেলে এখানকার সেবার মান আরও উন্নত হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বরগুনা জেলায় এ পর্যন্ত মোট ১৫৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে দুই জন মারা গেছেন।’

Comments