করোনা আপডেট: নোয়াখালী, বরিশাল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, গাজীপুর

নোয়াখালীতে গত ২৪ ঘণ্টায় পুলিশ, ব্যাংকার, ব্যবসায়ীসহ আরও ৬৯ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। করোনা উপসর্গ নিয়ে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে দুই জন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় নিজ বাড়িতে এক প্রবাসী ও গাজীপুরের শ্রীপুরের একটি স্কুলের প্রধান শিক্ষক চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

নোয়াখালীতে গত ২৪ ঘণ্টায় পুলিশ, ব্যাংকার, ব্যবসায়ীসহ আরও ৬৯ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। করোনা উপসর্গ নিয়ে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে দুই জন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় নিজ বাড়িতে এক প্রবাসী ও গাজীপুরের শ্রীপুরের একটি স্কুলের প্রধান শিক্ষক চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

আজ বুধবার দ্য ডেইলি স্টারের স্থানীয় সংবাদদাতারা এ সব তথ্য দিয়েছেন।

নোয়াখালীতে আরও ৬৯ জনের করোনা শনাক্ত

নোয়াখালীতে গত ২৪ ঘণ্টায় পুলিশ, ব্যাংকার, ব্যবসায়ীসহ আরও ৬৯ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় এ পর্যন্ত এক হাজার ৮০৯ জনের করোনা শনাক্ত হলো।

নোয়াখালী সিভিল সার্জন ডা. মাসুম ইফতেখার আজ বিকেলে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, নতুন করে জেলা সদরের ১৯ জন, বেগমগঞ্জে আট জন, সোনাইমুড়ীতে একজন, কবিরহাটে ১১ জন, হাতিয়ায় তিন জন, চাটখিলে তিন জন, কোম্পানীগঞ্জে ১৩ জন ও সুবর্ণচর উপজেলায় ১১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

আক্রান্তদের আইসোলেশনের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। তাদের বাড়ি লকডাউন করা হবে বলে তিনি জানান।

সিভিল সার্জন জানান, জেলায় এ পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত এক হাজার ৮০৯ জনের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৬৮০ জন ও মারা গেছেন ৪১ জন।

নোয়াখালীতে করোনা উপসর্গ নিয়ে আজ দুই জন মারা গেছেন। আজ বুধবার সকাল ৭টার দিকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তারা মারা যান। তাদের একজন সদর ও অপর জন হাতিয়া উপজেলার বাসিন্দা।

মৃত ব্যক্তিদের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে বলে জানান নোয়াখালীর জেনারেল হাসপাতালের করোনা ফোকাল পার্সন ডা. সৈয়দ মহিউদ্দিন আব্দুল আজিম। তাদের নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট আসার পর জানা যাবে তারা করোনা আক্রান্ত ছিলেন কিনা।

বরিশালে করোনা উপসর্গ নিয়ে ২ জনের মৃত্যু

করোনা উপসর্গ নিয়ে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে দুই জন মারা গেছেন। আজ বিকেল ২টা থেকে বিকেল ৫টার মধ্যে তারা মারা যান।

করোনা ইউনিটের দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক মনিরুজ্জামান শাহীন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার ৭০ বছর বয়সী এক বৃদ্ধ গত ২১ জুন করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে ভর্তি হন। আজ দুপুর ২টায় তিনি মারা যান।

এ দিকে, বরিশালের উজিরপুরের ৬৫ বছর বয়সী এক বৃদ্ধা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ বিকেল পৌনে ৫টায় মারা যান বলে জানান ডা. মনিরুজ্জামান।

হাসপাতালের পরিচালক ডা. বাকির হোসেন জানান, মৃত দুইজনের করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করে মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে পাঠানো হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় করোনা উপসর্গ নিয়ে আফ্রিকা প্রবাসীর মৃত্যু

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা প্রবাসী এক ব্যক্তি মারা গেছেন। ওই প্রবাসী গতকাল মঙ্গলবার সকালে উপজেলার মেহারী ইউনিয়নে নিজ বাড়িতে মারা যান।

কসবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাসুদ উল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মঙ্গলবার সকালে উপজেলার মেহারী ইউনিয়নে ওই প্রবাসী নিজ বাড়িতে মারা যান। ওই ব্যক্তি গত প্রায় পাঁচ মাস আগে দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে দেশে ফেরেন। এক সপ্তাহ ধরে তিনি জ্বর, সর্দি ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন।

করোনা পরীক্ষার জন্য মৃত ব্যক্তির এবং তার সংস্পর্শে আসা পরিবারের সদস্যদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে বলে জানান ইউএনও।

তিনি জানান, ওই পরিবারের সদস্যদের হোম কোয়ারেন্টিন পালনের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

গাজীপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে প্রধান শিক্ষকের মৃত্যু

করোনা উপসর্গ নিয়ে গাজীপুরের শ্রীপুরের একটি স্কুলের প্রধান শিক্ষক মারা গেছেন। আজ বুধবার দুপুর আড়াইটার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

তিনি ঠাণ্ডাজনিত কাশি, জ্বরসহ করোনা উপসর্গে ভুগছিলেন বলে তার ভাই অ্যাডভোকেট বাহাদুর জানান।

তিনি আরও জানান, গত প্রায় পাঁচ দিন আগে তাকে ঢাকার ইস্ট ওয়েস্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। করোনা পরীক্ষার জন্য সেখানে তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়।

পরীক্ষার রিপোর্ট এখনও আসেনি বলেও জানান তিনি। 

Comments

The Daily Star  | English

Create right conditions for Rohingya repatriation: G7

Foreign ministers from the Group of Seven (G7) countries have stressed the need to create conditions for the voluntary, safe, dignified, and sustainable return of all Rohingya refugees and displaced persons to Myanmar

58m ago