করোনার দীর্ঘমেয়াদি জটিলতা: যুক্তরাজ্য-ইতালিতে পুনর্বাসন কেন্দ্র

করোনাভাইরাস থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তির দেহে দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব ফেলছে ক্লান্তি, অবসাদ ও শ্বাসকষ্টের মতো সমস্যা। করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠার পরেও যারা নানারকম শারীরিক জটিলতায় ভুগছেন তাদের জন্য ইউরোপের বিভিন্ন দেশে হচ্ছে পুনর্বাসন কেন্দ্র।

করোনাভাইরাস থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তির দেহে দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব ফেলছে ক্লান্তি, অবসাদ ও শ্বাসকষ্টের মতো সমস্যা। করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠার পরেও যারা নানারকম শারীরিক জটিলতায় ভুগছেন তাদের জন্য ইউরোপের বিভিন্ন দেশে হচ্ছে পুনর্বাসন কেন্দ্র।

সিএনএন জানায়, হাসপাতালে ভর্তি হওয়া গুরুতর করোনা রোগী ছাড়াও যাদের শরীরে করোনার মৃদু উপসর্গ ছিল, যারা হালকা অসুস্থ হয়েছিলেন তারাও দীর্ঘস্থায়ী শারীরিক জটিলতার মুখে পড়ছেন।

এমিলিয়ানো পেসাকালোরো নামে এক ডুবুরির উদাহরণ টেনে সিএনএন জানায়, গত মার্চ মাসে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার পর ইতালির বন্দর শহর জেনোয়ার একটি হাসপাতালে তিনি ১৭ দিন চিকিৎসাধীন ছিলেন। গত ১০ এপ্রিল তাকে ওই হাসপাতাল থেকে ছাড়া হয়। তিন মাস পার হলেও ৪২ বছর বয়সী ওই ডুবুরি এখনও শ্বাসকষ্টের নানা জটিলতায় ভুগছেন।

পেসাকালোরো বলেন, ‘হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফেরার কয়েক সপ্তাহ পরেও আমার শারীরিক অবস্থার কোনও উন্নতি হয়নি। একটু হাঁটাচলা করলেই আমার মনে হতো যেন এভারেস্ট পর্বত পাড়ি দিয়ে এসেছি। কথা বলার মতোও দম ছিল না।’

জেনোয়ার পুর্নবাসন ক্লিনিকে পেসাকালোরোর মতো আরও অনেকে আছেন যারা করোনা থেকে সেরে উঠেছিলেন। রিহ্যাবে থেরাপির কারণে এখন অনেকটাই ভালো আছেন বলে জানিয়েছেন পেসাকালোরো।  

ইউরোপের সংক্রমণের হার কমে এলেও হাসপাতালগুলোতে এখনও কয়েক সপ্তাহ বা মাসখানেক আগে সুস্থ হয়ে ওঠা হাজারো করোনা রোগী ভিড় করছেন। রিপোর্টে করোনা নেগেটিভ হলেও এখনও পুরোপুরি সুস্থ হয়ে ওঠেননি অনেকে।

অনেকেই এখন অনলাইনে করোনার দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব সম্পর্কে জানতে চাইছেন। ইতোমধ্যেই, ইউরোপের দুই দেশ ইতালি ও যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ কোভিড-১৯ এ সুস্থ হওয়াদের পুনর্বাসন সেবা দিতে শুরু করেছে।

এখনো পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের দেহে এর দীর্ঘমেয়াদি প্রভাব সম্পর্কে নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি। তবে, অনেক গবেষণাই ইঙ্গিত দিচ্ছে যে, করোনাভাইরাস কেবল ফুসফুস নয়, কিডনি, যকৃত, হৃদপিন্ড, মস্তিষ্ক, স্নায়ুতন্ত্র, ত্বক ও গ্যাস্ট্রোইনটেস্টিনাল প্রক্রিয়াকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে।

জেনোয়ার ওই পুনর্বাসন ইনস্টিটিউটের পরিচালক ডা. পিয়েরো ক্লাভারিও জানান, তার দল গত মে মাসে সেখানকার বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিত্সার মাধ্যমে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা কয়েকশ মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তাদের মধ্যে এখন পর্যন্ত ৫৫ জনকে তারা পরিদর্শন করেছেন।

তিনি বলেন, ‘কেবল আইসিইউতে থাকা রোগীরা না, হাসপাতালে তিন দিন থেকে বাড়িতে চলে গেছেন এমন রোগীও দীর্ঘস্থায়ী সমস্যায় ভুগছেন। আমরা তাদের স্ট্যান্ডার্ড ভাইরোলজিকাল ও পালমোনারি পরীক্ষা করে বিষয়টি জানতে চেষ্টা করি।

ক্লাভারিও জানান, তার টিম যে ৫৫ জনকে পরিদর্শন করেছেন তাদের মধ্যে আট জনের কোনও ধরনের ফলোআপ পরীক্ষার প্রয়োজন হয়নি, তাদের মধ্যে কোনও জটিলতা নেই। ৫০ শতাংশের মধ্যে মনস্তাত্ত্বিক জটিলতা দেখা গেছে, ১৫ শতাংশ মানসিক চাপজনিত রোগ বা পিটিএসডিতে (পোস্ট ট্রমামেটিক স্ট্রেস ডিসঅর্ডার) ভুগছেন।

ক্লাভারিও জানান, প্রতিটি রোগীকে আড়াই দিন পর্যন্ত সময় নিয়ে কয়েকটি পরীক্ষা করাতে হয়েছে। চিকিৎসক, কার্ডিওলজিস্ট, স্নায়ু বিশেষজ্ঞ ও মনোবিজ্ঞানী নিয়ে গঠিত একটি দল পরীক্ষাগুলো করেছেন।

তিনি বলেন, ‘যেটা আমাকে সবচেয়ে বেশি অবাক করেছে তা হলো, অনেক রোগী আইসিইউতে না থাকা সত্ত্বেও অত্যন্ত দুর্বল হয়ে পড়েছেন। তাদের মধ্যে কার্ডিওলজি বা পালমোনারি সমস্যার কোনও প্রমাণ নেই। অথচ তারা সিঁড়ি বেয়ে অল্প একটু উপরে উঠতেও কষ্ট পাচ্ছেন।’ 

যুক্তরাজ্যে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন এমন অনেকেই এই অভিজ্ঞতার কথা জানিয়েছেন। মে মাসে কোভিড আক্রান্তদের পুনর্বাসন, গবেষণা ও স্বীকৃতির আহ্বান জানিয়ে ফেসবুকে ‘লং কোভিড সাপোর্ট গ্রুপ’ নামে একটি গ্রুপ খোলা হয়। ওই গ্রুপে ৮ হাজার ৫০০ জনেরও বেশি মানুষ যুক্ত আছেন।

করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিত্সা নেওয়ার পাশাপাশি অসংখ্য মানুষ বাড়িতে থেকেই রোগটির সঙ্গে লড়াই করেছেন। অনেকে উপসর্গ থাকা সত্ত্বেও স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাননি, অনেকে আবার সময়মতো পরীক্ষা করানোর সুযোগ পাননি। ফলে, আনুষ্ঠানিকভাবে তারা করোনা আক্রান্ত কিনা সেটি নিশ্চিত হওয়া যায় না।

শুরুর দিকে অনেকেই এমনকি সামনের সারির স্বাস্থ্যকর্মীরাও সক্ষমতার অভাবে সঠিক সময়ে পরীক্ষা করাতে পারেননি। লন্ডনের ৩৪ বছর বয়সী সিনিয়র নার্স ক্লাউডিয়া ডি ফ্রেইটাসও ‘লং কোভিড এসওএস’ গ্রুপের একজন সদস্য।

সিএনএনকে তিনি জানান, মার্চের মাঝামাঝি সময়ে তার কাশি, জ্বর, শ্বাসকষ্ট, বুকে ব্যথাসহ অন্যান্য উপসর্গ দেখা দেয়। সেসময় তাকে হাসপাতালের ইমার্জেন্সি বিভাগে নেওয়া হয়।

এক্স-রে ও রক্ত পরীক্ষায় তার অক্সিজেনের মাত্রাসহ সবকিছুই স্বাভাবিক আসে। তিনি বাড়িতে থেকে বিশ্রাম ও ডাক্তারের পরামর্শমতো ওষুধ খেয়ে সুস্থ হয়ে ওঠেন। করোনা পরীক্ষার জন্য সোয়াব টেস্টে তার নেগেটিভ এলেও, ৭ জুলাই অ্যান্টিবডি পরীক্ষা করে ওই রিপোর্টে তিনি পজেটিভ পান।

গ্রুপের আরেক সদস্য মার্গারেট ওহারা ইংলিশ মিডল্যান্ডসের একটি হাসপাতালের গবেষণা বিভাগে কাজ করেন। অনেকের মতো ৫০ বছর বয়সী মার্গারেটের রিপোর্টেও করোনা পজেটিভ আসেনি। তবুও চিকিৎসক তাকে বাড়িতে বিশ্রাম নেওয়ার পরামর্শ দেন।

আট সপ্তাহ পর তার কাশি সম্পূর্ণ ভালো হয়। সুস্থ বোধ করার পর তিনি সেদিন হাঁটতে বের হন। প্রায় আধা মাইল হাঁটেন তিনি। কিন্তু, এরপর দিন আবারও তার কাঁশি দেখা যায়।

তিনি বলেন, আমার স্মৃতিশক্তি কমে গেছে। এখন কোনো দুটো বিষয় নিয়ে চিন্তা করতেও আমার কষ্ট হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘অনেকের মধ্যে এই সরল ধারণা আছে যে, আপনি যদি হাসপাতালে না থাকেন তার মানে আপনি হালকা আক্রান্ত ছিলেন। দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবেন। কিন্তু এটা ভুল। কারণ, আমার মতো ওই গ্রুপে অসংখ্য মানুষ আছে যারা দীর্ঘসময় ধরে অসুস্থতায় ভুগছেন।’

অসুস্থতার দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব নিয়ে গবেষণার ক্ষেত্রেও দেখা গেছে, যারা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন কেবল তাদের উপরই দৃষ্টি রাখা হচ্ছে।

এ বিষয়ে উদ্বেগ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা যারা হাসপাতালে ছিলাম না, তাদের কথা কেউই জানতে চাইছে না। আমরা যেন পুরো ব্যবস্থার বাইরে রয়েছি।’

ব্রিটিশ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানকক নিজেও মার্চে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। গত বুধবার স্কাই নিউজে তিনি জানান, ‘কিছু সংখ্যক’ মানুষের মাঝে দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব আছে। রোগটি মানুষকে ‘বেশ দুর্বল’ করে ফেলতে পারে।

তিনি আরও বলেন, ‘এই পরিস্থিতিতে যারা রয়েছেন, তাদের জন্য আমরা কী করতে পারি এটি জানার জন্য গবেষণা প্রয়োজন।’

এই মাসের শুরুর দিকে, হ্যানকক হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের উপর কোভিড -১৯ এর দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব নিয়ে একটি গবেষণার বিষয়ে ঘোষণা দেন। পিএইচওএসপি-কোভিড নামের ওই গবেষণার অধীনে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা ১০ হাজার মানুষকে আগামী ১২ মাস বা তারও বেশি সময় ধরে পর্যবেক্ষণ করা হবে।

পিএইচওএসপি-কোভিড গবেষণার প্রধান লিচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ক্রিস ব্রাইটলিং সিএনএনকে জানান, এটি গবেষণাটি বিশ্বের সবচেয়ে বড় গবেষণাগুলোর একটি।

ব্রাইটলিং জানান, গবেষণাটি যারা নিশ্চিতভাবে কোভিড -১৯ এ আক্রান্ত অর্থাৎ যারা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন তাদের উপরই হচ্ছে। তবে, ব্রাইটলিং এও স্বীকার করেছেন যে, আনুষ্ঠানিকভাবে করোনা আক্রান্ত হননি কিংবা হাসপাতালে চিকিত্সা নেননি তারাও দীর্ঘমেয়াদী স্বাস্থ্য সমস্যায় ভুগতে পারেন।

তিনি বলেন, ‘রোগটিকে পুরোপুরি বুঝতে পারার জন্য আমরা কেবল যারা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন তাদের দিকেই মনোযোগ দিচ্ছি। তবে, আমাদের এই গবেষণাগুলো প্রসারিত করা দরকার। নিশ্চিত হওয়ার জন্য অন্যদেরও গবেষণায় যুক্ত করা দরকার।’

উত্তর ইংল্যান্ডের ব্র্যাডফোর্ড হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. পল হুইটেকার ওয়ার্ডগুলোতে গুরুতর আক্রান্ত রোগীদের চিকিত্সা দিতে গিয়ে কোভিড-পরবর্তী রোগীদের জন্য একটি ক্লিনিক স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।

এক মাস আগে ওই ক্লিনিকটি চালু হয়। তিনি জানান, যা ভেবেছিলাম তার চেয়ে অনেক বেশি মানুষ ফুসফুসের সমস্যা নিয়ে সেখানে আসছেন।

সিএনএনকে তিনি বলেন, ‘আমরা কয়েকজন রোগী পেয়েছি যাদের শ্বাসকষ্টের সমস্যা ফিরে আসছে, কিছু রোগীর পালমোনারি ফাইব্রোসিস আছে, কিছু রোগীর ফুসফুস ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে, এরা সংখ্যায় কম।’

তিনি আরও বলেন, ‘অধিকাংশ ক্ষেত্রেই যেটা দেখা যাচ্ছে, যাদের মধ্যে দীর্ঘস্থায়ী উপসর্গ আছে, তারা আক্রান্ত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হননি। সুস্থ হয়ে ওঠার পরেও অনেককে প্রায়শই ক্লান্তি, শ্বাসকষ্ট, বুক ধড়ফড় করা, হৃদস্পন্দন বেড়ে যাওয়া, নিদ্রাহীনতা, মাথা ব্যথা এবং দুর্বলতার সঙ্গে লড়াই করতে হচ্ছে।’

ওই ক্লিনিকে বিশেষজ্ঞদের একটি দল রোগীদের সমস্যাগুলো যাচাই করছেন। পুনর্বাসনের কর্মসূচির আওতায় করোনা থেকে সেরে ওঠাদের থেরাপির মাধ্যমে সাহায্য করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

তিনি বলেন, ‘এটা স্পষ্ট যে, এই ধরনের হাসপাতাল আরও বেশি প্রয়োজন।

Comments

The Daily Star  | English
Shipping cost hike for Red Sea Crisis

Shipping cost keeps upward trend as Red Sea Crisis lingers

Shafiur Rahman, regional operations manager of G-Star in Bangladesh, needs to send 6,146 pieces of denim trousers weighing 4,404 kilogrammes from a Gazipur-based garment factory to Amsterdam of the Netherlands.

4h ago