আন্তর্জাতিক
করোনাভাইরাস

মৃত্যু ৬ লাখ ৩২ হাজার, আক্রান্ত ১ কোটি ৫৪ লাখের বেশি

বিশ্বব্যাপী প্রতিনিয়ত মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ছে। ইতোমধ্যে ছয় লাখ ৩২ হাজারের বেশি মানুষ মারা গেছেন। আক্রান্ত হয়েছেন এক কোটি ৫৪ লাখের বেশি। এ ছাড়া, সুস্থও হয়েছেন সাড়ে ৮৭ লাখের বেশি মানুষ।
ভারতে করোনা পরীক্ষার জন্য নিরাপদ পোশাক পরে নমুনা সংগ্রহ করছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা। ২০ জুলাই ২০২০। ছবি: রয়টার্স

বিশ্বব্যাপী প্রতিনিয়ত মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ছে। ইতোমধ্যে ছয় লাখ ৩২ হাজারের বেশি মানুষ মারা গেছেন। আক্রান্ত হয়েছেন এক কোটি ৫৪ লাখের বেশি। এ ছাড়া, সুস্থও হয়েছেন সাড়ে ৮৭ লাখের বেশি মানুষ।

আজ শুক্রবার জনস হপকিনস ইউনিভার্সিটির করোনাভাইরাস রিসোর্স সেন্টার এ তথ্য জানিয়েছে।

জনস হপকিনস ইউনিভার্সিটির সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন এক কোটি ৫৪ লাখ ৪৬ হাজার ৮০০ জন এবং মারা গেছেন ছয় লাখ ৩২ হাজার ১৭৮ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ৮৭ লাখ ৬৩ হাজার ৭৯৬ জন।

করোনাভাইরাসে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যু যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ৪০ লাখ ৩৪ হাজার ১০২ জন এবং মারা গেছেন এক লাখ ৪৪ হাজার ২৪২ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ১২ লাখ ৩৩ হাজার ২৬৯ জন।

যুক্তরাষ্ট্রের পর সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যু দক্ষিণ আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২২ লাখ ৮৭ হাজার ৪৭৫ জন, মারা গেছেন ৮৪ হাজার ৮২ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১৬ লাখ ২০ হাজার ৩১৩ জন।

মৃত্যুর সংখ্যার দিক থেকে তৃতীয়তে রয়েছে যুক্তরাজ্য। দেশটিতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত ৪৫ হাজার ৬৩৯ জন মারা গেছেন। আক্রান্ত হয়েছেন দুই লাখ ৯৮ হাজার ৭৩১ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৪২৫ জন।

প্রতিবেশী দেশ ভারতে আক্রান্ত হয়েছেন ১২ লাখ ৩৮ হাজার ৭৯৮ জন, মারা গেছেন ২৯ হাজার ৮৬১ জন এবং সুস্থ হয়েছেন সাত লাখ ৮২ হাজার ৬০৭ জন।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ছে রাশিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, পেরু, চিলিতে ও মেক্সিকোতেও। রাশিয়ায় এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন সাত লাখ ৯৩ হাজার ৭২০ জন, মারা গেছেন ১২ হাজার ৮৭৩ জন এবং সুস্থ হয়েছেন পাঁচ লাখ ৭৯ হাজার ২৯৫ জন। দক্ষিণ আফ্রিকায় এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন চার লাখ আট হাজার ৫২ জন, মারা গেছেন ছয় হাজার ৯৩ জন এবং সুস্থ হয়েছেন দুই লাখ ৩৬ হাজার ২৬০ জন। পেরুতে আক্রান্ত হয়েছেন তিন লাখ ৭১ হাজার ৯৬ জন, মারা গেছেন ১৭ হাজার ৬৫৪ জন এবং সুস্থ হয়েছেন দুই লাখ ৫৫ হাজার ৯৪৫ জন।

মেক্সিকোতে আক্রান্ত হয়েছেন তিন লাখ ৭০ হাজার ৭১২ জন, মারা গেছেন ৪১ হাজার ৯০৮ জন এবং সুস্থ হয়েছেন দুই লাখ ৭৫ হাজার ৪৫৪ জন। চিলিতে আক্রান্ত হয়েছেন তিন লাখ ৩৮ হাজার ৭৫৯ জন, মারা গেছেন আট হাজার ৮৩৮ জন এবং সুস্থ হয়েছেন তিন লাখ ১১ হাজার ৪৩১ জন।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ইরানে আক্রান্ত হয়েছেন দুই লাখ ৮৪ হাজার ৩৪ জন, মারা গেছেন ১৫ হাজার ৭৪ জন এবং সুস্থ হয়েছেন দুই লাখ ৪৭ হাজার ২৩০ জন। তুরস্কে আক্রান্ত হয়েছেন দুই লাখ ২৩ হাজার ৩১৫ জন, মারা গেছেন পাঁচ হাজার ৫৬৩ জন এবং সুস্থ হয়েছেন দুই লাখ ছয় হাজার ৩৬৫ জন।

ইউরোপের দেশ স্পেনে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন দুই লাখ ৭০ হাজার ১৬৬ জন, মারা গেছেন ২৮ হাজার ৪২৯ জন এবং সুস্থ হয়েছেন এক লাখ ৫০ হাজার ৩৭৬ জন। ইতালিতে আক্রান্ত হয়েছেন দুই লাখ ৪৫ হাজার ৩৩৮ জন, মারা গেছেন ৩৫ হাজার ৯২ জন এবং সুস্থ হয়েছেন এক লাখ ৯৭ হাজার ৮৪২ জন। ফ্রান্সে আক্রান্ত হয়েছেন দুই লাখ ১৬ হাজার ৬৬৭ জন, মারা গেছেন ৩০ হাজার ১৮৫ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৮০ হাজার ৬০০ জন। জার্মানিতে আক্রান্ত হয়েছেন দুই লাখ চার হাজার ৮৮১ জন, মারা গেছেন নয় হাজার ১১০ জন এবং সুস্থ হয়েছেন এক লাখ ৮৯ হাজার ১৪০ জন।

ভাইরাসটির সংক্রমণস্থল চীনে আক্রান্ত হয়েছেন ৮৬ হাজার ৪৫ জন, মারা গেছেন ৪ হাজার ৬৪৯ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৮০ হাজার ২৯৭ জন।

উল্লেখ্য, গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)। প্রতিষ্ঠানটির সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, দেশে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত দুই লাখ ১৬ হাজার ১১০ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। মারা গেছেন দুই হাজার ৮০১ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন এক লাখ ১৯ হাজার ২০৮ জন।

Comments

The Daily Star  | English

'Why haven't my parents come to see me?'

9-year-old keeps asking while being treated at burn institute

13m ago