প্রথম দিনের অভিযানে ৮৭টি বাড়িতে এডিসের লার্ভা পেয়েছে ডিএনসিসি

ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া জ্বরের বাহক এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এর আজ প্রথম দিনের অভিযানে ৮৭টি বাড়ি ও স্থাপনায় লার্ভা ও প্রজননের উৎসের সন্ধান পেয়েছে।
ডিএনসিসির মশকবিরোধী অভিযান। ছবি: সংগৃহীত

ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া জ্বরের বাহক এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এর আজ প্রথম দিনের অভিযানে ৮৭টি বাড়ি ও স্থাপনায় লার্ভা ও প্রজননের উৎসের সন্ধান পেয়েছে।

মশার প্রজননস্থল ধ্বংস করতে ঢাকা উত্তরের ৫৪টি ওয়ার্ডে একযোগে ১০ দিনের চিরুনি অভিযান শুরু করেছে ডিএনসিসি। আজ ডিএনসিসি প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে।

প্রথম দিনের অভিযানে ১২ হাজার ৭৩৬টি বাড়িতে খোঁজ চালিয়ে ৮৭টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা পাওয়া গেছে। সেই সঙ্গে সাত হাজার ৩০১টি স্থাপনা এবং নির্মাণাধীন ভবনে পানি জমে থাকতে দেখা গেছে বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

অভিযান চলাকালে এডিসের লার্ভা পাওয়া যাওয়ার কারণে ২০টি বাড়ি ও স্থাপনার মালিকদের এক লাখ ২৮ হাজার টাকা জরিমানা করেছে সিটি করপোরেশনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। অন্য স্থাপনার মালিকদেরকে সতর্ক করা হয়েছে।

ডিএনসিসি এই বিশেষ পরিচ্ছন্নতা অভিযান শেষ হবে ২০ আগস্ট। তবে, ১১, ১৪ ও ১৫ আগস্ট অভিযান বন্ধ থাকবে। প্রতিটি ওয়ার্ডকে ১০টি সেক্টরে এবং প্রতিটি সেক্টরকে ১০টি সাব-সেক্টরে ভাগ করে অভিযান পরিচালনা করা হবে। প্রতিদিন একটি সেক্টরে অর্থাৎ ১০টি সাব-সেক্টরে অভিযান চলবে।

আজকের অভিযানে পরিত্যক্ত টায়ার, বালতি, ফুলের টব, বোতল, পানির মিটার, গ্যারেজ, ভাঙা মগ, মেঝে, পানির ট্যাঙ্ক, প্লাস্টিকের পাত্র, নালা, দইয়ের হাঁড়ি, পরিত্যক্ত কমোড, নারকেলের খোসা, ভাঙা পাত্র, দুই বাড়ির মধ্যে ফাঁকা জায়গায় এডিসের লার্ভা পাওয়া গেছে বলে ডিএনসিসির এক কর্মকর্তা জানান।

এর আগে ডিএনসিসি এর তিনবারের অভিযানে দুই লাখ ৭৪ হাজার ৫৭৬টি স্থাপনায় অভিযান চালিয়ে দুই হাজার ৬৮৬টি স্থাপনায় এডিসের লার্ভা পেয়েছিল। তখন জরিমানা আদায় করা হয়েছিল ৪৮ লাখ ১২ হাজার টাক।

Comments