লালমনিরহাটে কৃষকের খেত থেকে আমনের চারা উপড়ে ফেলার অভিযোগ

লালমনিরহাটের আদিতমারীতে পূর্ব শত্রুতার কারণে রাতের আঁধারে কৃষকের এক বিঘা জমি থেকে আমন ধানের চারাগাছ উপড়ে ফেলে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় এক প্রভাবশালীর বিরুদ্ধে। বুধবার মধ্যরাতে আদিতমারী উপজেলার পূর্ব দৈলজোড় গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
জমিতে কোনো আমনের গাছ নেই, শুধু ফাঁকা জমি পড়ে আছে। ছবি: এস দিলীপ রায়

লালমনিরহাটের আদিতমারীতে পূর্ব শত্রুতার কারণে রাতের আঁধারে কৃষকের এক বিঘা জমি থেকে আমন ধানের চারাগাছ উপড়ে ফেলে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় এক প্রভাবশালীর বিরুদ্ধে। বুধবার মধ্যরাতে আদিতমারী উপজেলার পূর্ব দৈলজোড় গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক রিয়াজ উদ্দিনের (৭৪) ভাতিজা আব্দুর রহমান বাদী হয়ে দুজনের নাম উল্লেখ করে ২০-২৫ জনের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক রিয়াজ উদ্দিন বলেন, ‘প্রায় মাস দেড়েক আগে ওই জমিতে আমনের চারা রোপন করেছিলাম। তবে এক প্রভাবশালী প্রতিবেশী দীর্ঘদিন ধরে এই জমিটি বেদখলে নেওয়ার চেষ্টা করে আসছিল। কিন্তু, গ্রামবাসীর প্রতিরোধের কারণে তা করতে পারেনি চক্রটি। বুধবার মধ্যরাতে প্রভাবশালী মেহের আলী ও তার ছেলে দলবল নিয়ে রাতের আঁধারে আমার জরি আমন ধানের চারা উপড়ে নিয়ে গেছে।’

তিনি অভিযোগ করেন, ‘সকালে ঘুম থেকে উঠে জমিতে এসে দেখি জমিতে কোন আমনের গাছ নেই। শুধু ফাঁকা জমি পড়ে আছে।’

এ ঘটনায় রিয়াজ উদ্দিন এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।

রিয়াজ উদ্দিনের ভাতিজা আব্দুর রহমান (৪২) বলেন, ‘বয়সের কারণে আমার চাচা অক্ষম হওয়ায় আমি থানায় গিয়ে অভিযোগ করেছি। এ ঘটনা পুলিশ তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছে।’

তবে, অভিযুক্ত মেহের আলী (৫৭) ঘটনার সঙ্গে তাদের সম্পৃক্ততার কথা অস্বীকার করেন।

মেহের আলী বলেন, ‘রিয়াজ উদ্দিন ও তার দলবল এ ঘটনা ঘটিয়ে আমাদের ওপর দোষ চাপাচ্ছেন। তবে, ওই জমি নিয়ে আমাদের মধ্যে বিরোধ চলছে।’

আদিতমারী থানার অফিসার্স ইন-চার্জ (ওসি) সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা অভিযোগ পেয়েছি। পুলিশ তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।’

Comments

The Daily Star  | English

Fixed expenses to eat up 40pc of next budget

The government has to spend about 40 percent of the next budget on subsidies, interest payments, and salaries and allowances of government employees, which will limit its ability to spend on social safety net, health and education.

Now