করোনাভাইরাস: ‘বিপদজনক মোড়ে পৌঁছেছে যুক্তরাজ্য’

যুক্তরাজ্যে বাড়ছে করোনাভাইরাস সংক্রমণ। এ অবস্থায় যুক্তরাজ্য এক বিপদজনক মোড়ে এসে পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।
বরিস জনসন। ছবি: রয়টার্স

যুক্তরাজ্যে বাড়ছে করোনাভাইরাস সংক্রমণ। এ অবস্থায় যুক্তরাজ্য এক বিপদজনক মোড়ে এসে পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ঘরে থেকে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। সেই সঙ্গে নতুন করে ছয় মাসের জন্য বেশকিছু বিধিনিষেধ আরোপ করার কথাও জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী।

আজ মঙ্গলবার হাউজ অফ কমন্সে মন্ত্রী ও দেশের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে এক জরুরি বৈঠক শেষে তিনি 'লকডাউন' না করে বিধিনিষেধের প্রস্তাব করেন জনসন।

তিনি বলেন, ' দুঃখের সঙ্গে জানাচ্ছি স্পেন, ফ্রান্স এবং অন্যান্য অনেক দেশের মতো আমরাও এক বিপদজনক মোড়ে পৌঁছেছি।’

জনগণকে কর্মস্থলে ফিরে যাওয়ার কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই জনসন আজ কর্মীদের সম্ভব হলে বাড়িতে থেকে কাজ করার পরামর্শ দেন।

আগামী বৃহস্পতিবার থেকে পাব, বার, রেস্তোঁরা এবং অন্যান্য আপ্যায়নকন্দ্রগুলোকে রাত দশটায় বন্ধ করার নির্দেশ দেন তিনি।

তিনি বলেন, 'মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। যারা এটি ভঙ্গ করবে, তাদের জরিমানা করা হবে। না মানলে কঠোর আইন প্রয়োগ করা হবে।'

তবে স্কুল এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলো খোলা থাকবে বলে তিনি জানান।

যুক্তরাজ্যের সরকারি উপদেষ্টারা বলেছেন, অক্টোবরের মাঝামাঝিতে প্রতিদিন ৫০ হাজার লোক ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

প্রস্তাবিত এ সব বিধিনিষেধে কাজ না হলে, আরও কঠোর বিধিনিষেধ জারি করা হবে বলেও সতর্ক করেন।

তিনি বলেন, 'জীবন বাঁচাতে এবং জীবিকা নির্বাহের ভারসাম্য রক্ষার জন্য আমরা আলোচনা করে যথোপযুক্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।'

Comments

The Daily Star  | English

Quota protest: 15 hurt at DU as police fire rubber bullets, sound grenades

At least 15 were injured when police fired rubber bullets, and tear gas and lobbed sound grenades at the quota protesters on the Dhaka University campus this afternoon

43m ago