৫ বছরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩৭১৭০ জন: যাত্রী কল্যাণ সমিতি

গত পাঁচ বছরে দেশে ২৬ হাজার ৯০২টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৭ হাজার ১৭০ জন নিহত হয়েছেন। এসব দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন ৮২ হাজার ৭৫৮ জন।
৭ জুন ২০১৯, সিরাজগঞ্জের হরিণছড়া এলাকায় রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা একটি ট্রাককে দ্রুতগতির একটি প্রাইভেট কার সজোরে ধাক্কা দিলে গাড়িটির দুই আরোহী নিহত হন। ছবি: স্টার

গত পাঁচ বছরে দেশে ২৬ হাজার ৯০২টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৭ হাজার ১৭০ জন নিহত হয়েছেন। এসব দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন ৮২ হাজার ৭৫৮ জন।

আগামীকাল ২২ অক্টোবর জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির এক বিবৃতিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

যাত্রী কল্যাণ সমিতির প্রতিবেদনে দেখা যায়, ২০১৫ সালে ৬৫৮১টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৮৬৪২ জন নিহত ও  ২১৮৫৫ জন আহত হয়েছে। ২০১৬ সালে ৪৩১২টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৬ হাজার ৫৫ জন নিহত ও ১৫৯১৪ জন আহত হয়েছে, ২০১৭ সালে ৪৯৭৯টি দুর্ঘটনায় ৭৩৯৭ জন নিহত ও ১৬১৯৩ জন আহত হয়েছে, ২০১৮ সালে ৫৫১৪টি দুর্ঘটনায় ৭২২১ জন নিহত ও ১৫৪৬৬ জন আহত হয়েছে এবং ২০১৯ সালে ৫৫১৬টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৭৮৫৫ জন নিহত এবং আহত হয়েছে ১৩৩৩০ জন।

তবে সংগঠিত দুর্ঘটনার সিংহভাগই সংবাদপত্রে প্রকাশিত হয় না বলেও জানায় যাত্রী কল্যাণ সমিতি।

বিবৃতিতে বলা হয়, এসব সড়ক দুর্ঘটনা পর্যবেক্ষণ করে দেখা যায়, বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানো এবং বিপদজনক ওভারটেক বেড়ে যাওয়ার কারণে সড়ক দুর্ঘটনায় হতাহতের সংখ্যা বাড়ছে।

সমিতি মনে করে, সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ বাস্তবায়নের পরও সড়কে কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন লক্ষ্য করা যায়নি। বিশৃঙ্খলা, অরাজকতা, ভাড়া নৈরাজ্য ও যাত্রী হয়রানি আগের মতোই আছে। ফলে যাত্রী ভোগান্তি, যানজট ও সড়ক দুর্ঘটনা দিন দিন বেড়েই চলেছে।

সড়কে এই পরিস্থিতি বহাল রেখে নিরাপদ সড়ক দিবস পালন বেমানান বলে মনে করে যাত্রী কল্যান সমিতি।

নিরাপদ সড়ক শুধুমাত্র দিবসের মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করার নির্বাচনী অঙ্গীকার জরুরি ভিত্তিতে বাস্তবায়নের দাবি জানিয়েছে সমিতি।

সেইসঙ্গে অন্যান্য জাতীয় দিবসের মতো গতানুগতিকভাবে একদিন পালন না করে দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে সমাজের সব স্তরে নিরাপদ সড়কের বার্তা পৌঁছে দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

Comments

The Daily Star  | English

Sylhet floods worsening

The flood situation in Sylhet has been deteriorating fast with the rivers inundating vast tracts of land and upending the lives of millions.

11h ago