লাউতারো-গঞ্জালেজের লক্ষ্যভেদ, জয়ে ফিরল আর্জেন্টিনা

বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচে পেরুর মাঠে ২-০ গোলে জিতেছে লিওনেল স্কালোনির দল।
argentina football
ছবি: টুইটার

কেউ কাউকে ছেড়ে কথা বলেনি। লড়াই হলো সমানে সমান। আর্জেন্টিনার চেয়ে পেরু বরং এগিয়ে ছিল বল দখলে। তবে পার্থক্য গড়ে দিল দুই দলের ফরোয়ার্ডদের সাফল্য-ব্যর্থতা। তরুণ নিকোলাস গঞ্জালেজ ও লাউতারো মার্তিনেজের লক্ষ্যভেদে পূর্ণ পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়ল লিওনেল স্কালোনির দল।

আগের ম্যাচে ঘরের মাঠে প্যারাগুয়ের সঙ্গে ড্রয়ের পর জয়ে ফিরেছে আর্জেন্টিনা। বুধবার সকালে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচে পেরুর মাঠে ২-০ গোলে জিতেছে তারা। দুটি গোলই আসে ম্যাচের প্রথমার্ধে। গঞ্জালেজের কল্যাণে এগিয়ে যাওয়া সফরকারীরা ব্যবধান দ্বিগুণ করে লাউতারোর দক্ষতায়।

পুরো ম্যাচে প্রতিপক্ষের গোলমুখে ১৩টি শট নেয় আর্জেন্টিনা। পেরু শট নেয় ১১টি। তবে আর্জেন্টাইনদের তিনটি লক্ষ্যে থাকলেও পেরুভিয়ানরা লক্ষ্যে রাখতে পারে মোটে একটি শট। গোলপোস্টের সামনে গিয়ে বারবার খেই হারিয়ে ফেলে তারা।

nicolas
ছবি: টুইটার

অষ্টম মিনিটে ক্রিস্টিয়ান কুয়েভা দারুণ এক সুযোগ পেয়েছিলেন স্বাগতিকদের এগিয়ে দেওয়ার। কিন্তু তার চিপ লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। সেসময় অবশ্য পেনাল্টির আবেদন করেছিল পেরু। আর্জেন্টিনার গোলরক্ষক ফ্রাঙ্কো আরমানির বিরুদ্ধে কুয়েভাকে ডি-বক্সে ফেলে দেওয়ার দাবি তুলেছিল তারা। ভিএআরের সাহায্য নিলেও পেনাল্টি দেননি রেফারি।

ছন্দ খুঁজে নিতে দেরি হয়নি সফরকারীদের। ফলে ১৭তম মিনিটে লিড নেয় তারা। জিওভানি লো সেলসোর ক্রস ডান পায়ে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বাম পায়ের কোণাকুণি শটে জাল খুঁজে নেন গঞ্জালেজ। প্যারাগুয়ের বিপক্ষে আগের ম্যাচে আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে নিজের প্রথম গোলটি করেছিলেন স্টুটগার্টের এই ফরোয়ার্ড।

প্রতিপক্ষের রক্ষণে চাপ ধরে রেখে ২৮তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে আর্জেন্টিনা। লেয়ান্দ্রো পারেদেসের রক্ষণচেরা পাস ধরে পেরু গোলরক্ষককে কাটিয়ে বাম পায়ের গড়ানো শটে ফাঁকা জালে বল পাঠান ইন্টার মিলানের ফরোয়ার্ড লাউতারো। 

৩৮তম মিনিটে গঞ্জালেজের কাট-ব্যাকে অধিনায়ক লিওনেল মেসির বাঁ পায়ের চিপ ক্রসবারের উপর দিয়ে চলে যায়। ফলে দুই গোলের ব্যবধানে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় আর্জেন্টিনা।

lautaro martinez
ছবি: টুইটার

৫৪তম মিনিটে ব্যবধান কমানোর সুযোগ নষ্ট করেন আন্দারসন সান্তামারিয়া। সতীর্থের ফ্রি-কিকে ছয় গজের বক্সের ভেতর থেকে হেড লক্ষ্যে রাখতে পারেননি তিনি। পাঁচ মিনিট পর লুকাস ওকাম্পোসের শট গোলরক্ষক রুখে দেন পেরু গোলরক্ষক।

৬২তম মিনিটে বার্সেলোনা তারকা মেসিকে ডি-বক্সে ফেলে দিয়েছিলেন সান্তামারিয়া। তবে আর্জেন্টিনার পেনাল্টির আবেদনে সাড়া দেননি রেফারি। ৭৭তম মিনিটে অবশ্য গোল প্রায় পেয়েই গিয়েছিলেন রেকর্ড ছয়বারের ব্যালন ডি’অর জয়ী ফরোয়ার্ড। অনেকটা দৌড়ে এক ডিফেন্ডারকে এড়িয়ে তার নেওয়া বাঁ পায়ের শট পোস্টের সামান্য বাইরে দিয়ে চলে যায়।

বাছাইয়ের চার রাউন্ড শেষে ১০ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট তালিকার দুই নম্বরে আছে আর্জেন্টিনা। ১ পয়েন্ট নিয়ে নয় নম্বরে রয়েছে পেরু। আরেক ম্যাচে উরুগুয়েকে ২-০ গোলে হারিয়ে শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে ব্রাজিল। তাদের পয়েন্ট ১২। ৯ পয়েন্ট নিয়ে তিনে আছে ইকুয়েডর। তারা কলম্বিয়াকে বিধ্বস্ত করেছে ৬-১ গোলে।

Comments

The Daily Star  | English
Bangladesh economic crisis

We need humility, not hubris, to turn the economy around

While a privileged minority, sitting in their high castles, continue to enjoy a larger and larger share of the fruits of “development,” it is becoming obvious that the vast majority are increasingly struggling.

5h ago