'কীভাবে খেলতে হয় জার্মানিকে দেখিয়ে দিয়েছে স্পেন'

স্পেনের মাঠে আগের দিন এক বিব্রতকর হার উপহার পেয়েছে জার্মানি। চার বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের রীতিমতো তাদের উড়িয়ে দিয়েছে স্প্যানিশরা। ছয়টি গোল হজম করেছে দলটি। আর এমন হারের কোনো ব্যাখ্যা খুঁজে পাচ্ছেন না দলের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় টনি ক্রুস। কীভাবে খেলতে হয় তাই যেন স্পেন তাদের শিখিয়ে দিয়েছে বলেই মনে করেন এ রিয়াল মাদ্রিদ তারকা।
ছবি: রয়টার্স

স্পেনের মাঠে আগের দিন এক বিব্রতকর হার উপহার পেয়েছে জার্মানি। চার বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের রীতিমতো তাদের উড়িয়ে দিয়েছে স্প্যানিশরা। ছয়টি গোল হজম করেছে দলটি। আর এমন হারের কোনো ব্যাখ্যা খুঁজে পাচ্ছেন না দলের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় টনি ক্রুস। কীভাবে খেলতে হয় তাই যেন স্পেন তাদের শিখিয়ে দিয়েছে বলেই মনে করেন এ রিয়াল মাদ্রিদ তারকা।

অথচ স্পেনের সাম্প্রতিক সময় খুব একটা ভালো যাচ্ছে না। আগের ম্যাচেই সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে ড্র করেছে দলটি। সেই দলটি আগের দিন ঘুরে দাঁড়িয়ে ৬-০ গোলের ব্যবধানে হারায় জার্মানদের। প্রথমার্ধেই তিন গোলে এগিয়ে গিয়েছিল দলটি। ৭০ শতাংশ বলের দখলও ছিল তাদের। শটও নিয়েছেন মোট ২৩টি। অন্যদিকে বলার মতো কেবল একটি আক্রমণ করতে পারে জার্মানরা।

১৯৫৮ সালে ফ্রান্সের কাছে সব শেষ ছয় গোল হজম করেছিল দলটি। এমন হারের পর স্বাভাবিকভাবেই বিধ্বস্ত ক্রুস। জার্মান টিভি চ্যানেল এআরডিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, 'এটা মেনে নেওয়া খুবই কষ্টদায়ক। রক্ষণভাগে, আজ আমরা মোটেই কোনো সুযোগ পাইনি। স্পেন আমাদের দেখিয়েছে কীভাবে রক্ষণ সামলাতে হয়, কীভাবে বল নিয়ে এবং বল ছাড়াই খেলতে হয়।'

ক্রুসের সঙ্গে সুর মিলিয়ে একই কথা বলেছেন আরেক তারকা সার্জ ন্যাব্রি, 'আজ আমাদের জন্য কিছুই কাজ করেনি, আমরা কোনো সুযোগই পাইনি। স্পেন তাদের শক্তি দেখিয়ে প্রাপ্য জয়ই পেয়েছে। আমরা একে অপরকে ধাক্কা দেওয়ার চেষ্টা করেছি। স্পেন কেবল ভালো করেছে, আমরা খুব খারাপ খেলেছি। এখন আমরা জানি আমরা কোথায় দাঁড়িয়ে আছি। এটি আমাদের ভাবতে বাধ্য করছে। আমাদের এখনও কিছুটা সময় আছে এবং এর সঠিক ব্যবহার করতে হবে।'

স্পেনের কাছে বিধ্বস্ত হওয়ার আগে টানা ১২ ম্যাচে অপরাজিত ছিল জার্মানি। সবশেষ ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে হার দেখেছিল দলটি। সে ম্যাচে তারা নেদারল্যান্ডসের কাছে ৪-২ ব্যবধানে হারে।

Comments

The Daily Star  | English

Inadequate Fire Safety Measures: 3 out of 4 city markets risky

Three in four markets and shopping arcades in Dhaka city lack proper fire safety measures, according to a Fire Service and Civil Defence inspection report.

2h ago