আন্তর্জাতিক

বাইডেনের দলের সঙ্গে গোপনে যোগাযোগ করছেন ট্রাম্প প্রশাসনের কর্মকর্তারা

ট্রাম্প প্রশাসনের বেশ কয়েকজন বর্তমান ও সাবেক কর্মকর্তা গোপনে প্রাথমিক গণনায় নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের দলের সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন।
Joe Biden
ওয়াশিংটনে সম্মুখ সারিতে থাকা স্বাস্থ্যকর্মীদের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠক শেষে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত জো বাইডেন। ১৮ নভেম্বর ২০২০। ছবি: রয়টার্স

ট্রাম্প প্রশাসনের বেশ কয়েকজন বর্তমান ও সাবেক কর্মকর্তা গোপনে প্রাথমিক গণনায় নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের দলের সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন।

সংবাদমাধ্যম সিএনএন জানিয়েছে, দেশটির জেনারেল সার্ভিসেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন এখনও বাইডেনের জয় মেনে নেয়নি। তারা আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রক্রিয়াও শুরু করেনি। ফলে, বাইডেন ও তার দল এখনও ফেডারেল এজেন্সিগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ, নতুন প্রশাসনের সরকারি নিয়োগে অর্থায়ন ও গোয়েন্দা ব্রিফিংয়ের অনুমতি পাচ্ছেন না।

সংবাদ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ক্ষমতা ছাড়ার প্রতি প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অনীহা প্রশাসনের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তাদের নিরাশ করছে।

ট্রাম্পের এক সাবেক কর্মকর্তা সিএনএনকে জানিয়েছেন, বাইডেনের দলের সঙ্গে যোগাযোগের প্রচেষ্টাকে তারা দেশের প্রতি কর্তব্য হিসেবে দেখছেন।

সূত্রের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনটিতে আরও বলা হয়েছে, বাইডেনের দলের সঙ্গে কর্মকর্তাদের কথোপকথনগুলো আনুষ্ঠানিক ব্রিফিংয়ের মতো বিশদ নয় যা আনুষ্ঠানিক হস্তান্তর প্রক্রিয়ায় হতো।

তবে কর্মকর্তারা বাইডেনের দলের সদস্যরা দায়িত্ব নেওয়ার পর  কী ধরনের সমস্যার মুখোমুখি হতে পারেন সে সম্পর্কে একটি ধারণা দিয়ে সাহায্য করার চেষ্টা করছেন।

কয়েক মাস আগে প্রশাসনের দায়িত্ব ছেড়েছেন হোয়াইট হাউসের এমন এক কর্মকর্তা সংবাদমাধ্যমটিকে জানিয়েছেন, বাইডেন প্রশাসনে তিনি যে পদে দায়িত্ব পালন করেছেন সে পদে আসতে পারেন এমন একজনকে তিনি ব্যক্তিগতভাবে ইমেইল করে সাহায্যের প্রস্তাব দিয়েছেন।

ট্রাম্প সরকারের ভেতর থেকে বাইডেনের দলের সঙ্গে অনানুষ্ঠানিক যোগাযোগের বিষয়টি প্রশাসনের এক বর্তমান কর্মকর্তা গতকাল বুধবার সিএনএনকে নিশ্চিত করেছিলেন।

সেই কর্মকর্তা বলেছেন, ‘এটি এমন কিছু যা আমাদেরকে সমস্যায় ফেলবে না। সাহায্যের জন্য কেবল একটি প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। তারা জানেন আমরা কী বোঝাতে চেয়েছি। আমরা কী করতে পারি, কী করতে পারি না বা বলতে পারি না- তা তারা জানেন।’

ওই কর্মকর্তা আরও জানিয়েছেন, যোগাযোগের পর এখনও পর্যন্ত বাইডেনের দলের সঙ্গে তাদের তেমন কোনো কথোপকথন হয়নি।

বাইডেনের এক জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টা এই যোগাযোগের কথা স্বীকার করেছেন। তবে তিনি এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

বাইডেনের অন্য এক সহযোগী সংবাদমাধ্যমটিকে বলেছেন, ‘আমরা এই উদ্যোগের প্রশংসা করি। বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে আগের সম্পর্কের কারণেই তারা নিজেরা যোগাযোগ করেছেন। তবে, ক্ষমতার হস্তান্তরের যে ঐতিহ্যগত পদ্ধতি সেটার তুলনায় এ যোগাযোগ তেমন কার্যকর না।’

বাইডেনের ডেপুটি ক্যাম্পেইন ম্যানেজার ও ট্রানজিশন অ্যাডভাইজার কেট বেডিংফিল্ড সিএনএনকে বলেছেন, ‘সাবেক কর্মকর্তাদের এগিয়ে আসার চাইতে সুষ্ঠুভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর নিশ্চিত করতে আরও বেশি কিছু করা প্রয়োজন। জেনারেল সার্ভিসেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের উচিত আইন মেনে চলা এবং নির্বাচনের ফলাফল মেনে নেওয়া যাতে আমেরিকানরা দুই প্রশাসনের মধ্যে একটি শান্তিপূর্ণ ও কার্যকর হস্তান্তর দেখতে পান।’

Comments

The Daily Star  | English
Dhaka Airport Third Terminal: 3rd terminal to open partially in October

HSIA’s terminal-3 to open in Oct

The much anticipated third terminal of the Dhaka airport is likely to be fully ready for use in October, enhancing the passenger and cargo handling capacity.

5h ago