আন্তর্জাতিক

কৃষক বিদ্রোহ: কেজরিওয়াল গৃহবন্দি, স্বীকার করছে না দিল্লি পুলিশ

আন্দোলনরত কৃষকদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে ফেরার পর দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে গৃহবন্দি করা হয়েছে বলে জানিয়েছে আম আদমি পার্টি।
আন্দোলনরত কৃষকদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। ছবি: সংগৃহীত

আন্দোলনরত কৃষকদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে ফেরার পর দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে গৃহবন্দি করা হয়েছে বলে জানিয়েছে আম আদমি পার্টি।

আজ মঙ্গলবার ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস এ তথ্য জানায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আম আদমি পার্টির নেতা সৌরভ ভারদ্বাজ বলেছেন, ‘গতকাল সিংঘু সীমান্তে অবস্থান নেওয়া কৃষকদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তাদের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। সেখান থেকে ফেরার পর থেকেই দিল্লি পুলিশ মুখ্যমন্ত্রীর বাসভবন ঘেরাও করে রেখেছে এবং তাকে গৃহবন্দি করা হয়েছে। কাউকে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়িতে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না এবং মুখ্যমন্ত্রীকেও বাড়ির বাইরে বের হতে দেওয়া হচ্ছে না।’

টুইটারে আম আদমি পার্টি জানিয়েছে, গতকাল কৃষকদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে ফেরার পর থেকে মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে গৃহবন্দি করে রেখেছে দিল্লি পুলিশ।

তবে, এ অভিযোগ অস্বীকার করে দিল্লি পুলিশের (উত্তর) ডেপুটি কমিশনার অন্তু অ্যালফোনস বলেছেন, ‘মুখ্যমন্ত্রীর বাসভবনের সামনে স্বাভাবিক নিয়মেই পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে, যাতে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি না হয়। তাকে গৃহবন্দি করা হয়নি।’

এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আজ স্থানীয় সময় সকাল ১১টা থেকে শুরু হয়েছে কৃষকদের ধর্মঘট। যা চলবে বিকেল ৩টা পর্যন্ত। কৃষকদের এই ধর্মঘটের কারণে যান চলাচল বিঘ্নিত হবে। যে কারণে অন্য রুটে যান চলাচলের জন্য আলাদা নির্দেশিকা দিয়েছে দিল্লি ও হরিয়ানা রাজ্য পুলিশ।

ভারতের কৃষিখাত সংস্কারে কেন্দ্রীয় সরকারের নতুন তিনটি কৃষি বিল রাজ্যসভায় পাস হওয়ার পর গত ২৭ সেপ্টেম্বর এতে সই করেন দেশটির রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। ফলে বিলটি আইনে রূপান্তরিত হয়েছে। এরপরই এই আইনের বিরোধিতায় আন্দোলন ছড়িয়ে পড়েছে দেশটির রাজপথে। অর্থাৎ গত দুই মাসেরও বেশি সময় ধরে নতুন কৃষি আইনের বিরোধিতা করছেন কৃষকরা।

এর মধ্যে বিগত দুই সপ্তাহে আন্দোলন জোরদার করেছেন কৃষকরা। টানা ১৩ দিনের মতো দিল্লির সঙ্গে হরিয়ানা, পাঞ্জাবসহ অন্য রাজ্যগুলোর সংযোগপথ অবরুদ্ধ করে রেখেছেন আন্দোলনকারী কৃষকরা।

সর্বশেষ গত ৫ ডিসেম্বর বিকেলে আন্দোলনরত কৃষকদের সঙ্গে পঞ্চম দফা বৈঠকে নতুন কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে কৃষকেরা অনড় থাকলেও আইনটি সংশোধনের জন্য লিখিত প্রস্তাব দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। চার ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে চলা বৈঠকেও কোনো ফলপ্রসূ অগ্রগতি হয়নি। পরে আগামী ৯ ডিসেম্বর কৃষকদের সঙ্গে ষষ্ঠবারের মতো বৈঠকে বসতে একমত হয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

এই আন্দোলনে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে এ পর্যন্ত অন্তত তিন জনের মৃত্যুর সংবাদ পাওয়া গেছে।

আরও পড়ুন:

কৃষক বিদ্রোহ: গুজরাটে ১৪৪ ধারা জারি

কৃষক বিদ্রোহ: ‘আমাদের মঞ্চে কোনো রাজনৈতিক নেতাকে অনুমতি দেওয়া হবে না’

কৃষক বিদ্রোহ: প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার সমর্থন

কৃষক বিদ্রোহ: অনড় অবস্থান, ভারতজুড়ে ধর্মঘটের প্রস্তুতি

ভারতে কৃষক বিদ্রোহ: ‘আমরা খাবার এনেছি’ সরকারি খাবার ফিরিয়ে দিলেন

পুলিশি বাধা সত্ত্বেও ‘দিল্লি চলো’ কর্মসূচিতে কয়েক হাজার কৃষক

কৃষক বিদ্রোহের ভাইরাল ছবি

Comments

The Daily Star  | English
irregular migration routes to Europe from Bangladesh

To Europe via Libya: A voyage fraught with peril

An undocumented Bangladeshi migrant worker choosing to enter Europe from Libya, will almost certainly be held captive by armed militias, tortured, and their families extorted for lakhs of taka.

21h ago