কুষ্টিয়া

মূল স্তম্ভে বসল বঙ্গবন্ধুর ৩ ভাস্কর্য, ৭ মার্চ উন্মোচন

কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মাণাধীন ম্যুরালের মূল স্তম্ভে তিনটি ভাস্কর্য স্থাপন করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার রাতে ক্রেনের সাহায্যে তিনটি ভাস্কর্যের সর্বশেষটি মূল স্তম্ভে প্রতিস্থাপন করা হয়। এই ভাস্কর্যে বঙ্গবন্ধুকে ১৯৬৬ সালের ঐতিহাসিক ছয় দফা পাঠরত অবস্থায় উপস্থাপন করা হয়েছে।
কুষ্টিয়াতে নির্মাণাধীন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য। ছবি: সংগৃহীত

কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মাণাধীন ম্যুরালের মূল স্তম্ভে তিনটি ভাস্কর্য স্থাপন করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার রাতে ক্রেনের সাহায্যে তিনটি ভাস্কর্যের সর্বশেষটি মূল স্তম্ভে প্রতিস্থাপন করা হয়। এই ভাস্কর্যে বঙ্গবন্ধুকে ১৯৬৬ সালের ঐতিহাসিক ছয় দফা পাঠরত অবস্থায় উপস্থাপন করা হয়েছে।

পরিকল্পনা অনুযায়ী অন্য দুটির একটিতে বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ ও অন্যটিতে স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের পর অভিবাদন গ্রহণের ভঙ্গি উপস্থাপন করা হয়েছে।

একইসঙ্গে মুল স্তম্ভের চারদিকে জাতীয় চার নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমেদ, মোহাম্মদ মনসুর আলী ও আবুল হাসনাত মোহাম্মদ কামারুজ্জামানের চারটি টাইলস খোদাই প্রতিকৃতি স্থাপন করা হবে।

ইতোমধ্যে দুর্বৃত্তদের ভেঙে ফেলা প্রথম ভাস্কর্যটির মেরামত সম্পন্ন করা হয়েছে। ভাস্কর্যটিতে এখনো পুলিশ পাহারা অব্যাহত আছে।

কুষ্টিয়া পৌরসভা মুজিব জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে শহরে বঙ্গবন্ধুর তিনটি ভাস্কর্য স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেয়। ভাস্কর্যটির পরিকল্পনা করেন কুষ্টিয়া পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার আলী নিজেই। জায়গা নির্ধারিত হয় পৌরসভার অদূরে শহরের পাঁচ রাস্তার মোড়ে। দরপত্রের মাধ্যমে ৩৫ লাখ টাকার এই কাজটি পান ভাস্কর মাহবুব জামাল শামীম। অক্টোবর মাসের শেষের দিকে তাকে সাইট বুঝিয়ে দেওয়া হয়। পরিকল্পনা ছিল ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবসে এটি উদ্বোধন করা।

১৩ই নভেম্বর বসানো হয় প্রথম ভাস্কর্যটি। তবে, গত ৫ ডিসেম্বর রাতে ওই ভাস্কর্যে হামলার ঘটনা ঘটে। কুষ্টিয়া শহরেরই একটি কওমি মাদ্রাসার দুই শিক্ষার্থী হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে ভেঙে দেয় ভাস্কর্যের ডান হাতের তর্জনী। ক্ষতি সাধন করে মুখাবয়বে। এ ঘটনায় সারাদেশ জুড়ে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। গ্রেপ্তার হন ওই দুই শিক্ষার্থীর মাদ্রাসার দুই শিক্ষক।

পরে কয়েকদিন বন্ধ থাকার পর পুনরায় ভাস্কর্য প্রতিস্থাপনের কাজ শুরু হয়।

কুষ্টিয়া পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম জানান, ভাস্কর্য নির্মাণের কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। আগামী ৭ মার্চ এ ভাস্কর্য উন্মোচন করা হবে।

ভাস্কর মাহবুব জামাল শামীম জানান, কাজ নির্বিঘ্নে চলছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই শেষ হবে নির্মাণ কাজ।

কুষ্টিয়া পৌরসভার মেয়র আনোয়ার আলী জানান, কোনো ষড়যন্ত্রই বঙ্গবন্ধুর এ ভাস্কর্য নির্মাণে বাঁধা হতে পারে না। কারণ বঙ্গবন্ধু অনেক বড় বাঁধা অতিক্রম করে এদেশ স্বাধীন করেছিলেন। নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই ভাস্কর্য উন্মোচন হবে।

Comments

The Daily Star  | English

Battery-run rickshaw drivers set fire to police box in Kalshi

Battery-run rickshaw drivers set fire to a police box in the Kalshi area this evening following a clash with law enforcers in Mirpur-10 area

53m ago