শেষ সময়ে সাবেক সহযোগী ব্যাননসহ ৭৩ জনকে ক্ষমা করার সিদ্ধান্ত ট্রাম্পের

বুধবার ভোরে দায়িত্ব ছাড়ার কয়েক ঘণ্টা আগে সাবেক প্রধান কৌশলবিদ স্টিভ ব্যাননসহ ৭৩ জনকে সম্পূর্ণ ক্ষমা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এ ছাড়াও, আরও ৭০ জনের সাজা কমিয়ে দিয়েছেন তিনি।
donald trump
ডোনাল্ড ট্রাম্প। ছবি: ফাইল ফটো

বুধবার ভোরে দায়িত্ব ছাড়ার কয়েক ঘণ্টা আগে সাবেক প্রধান কৌশলবিদ স্টিভ ব্যাননসহ ৭৩ জনকে সম্পূর্ণ ক্ষমা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এ ছাড়াও, আরও ৭০ জনের সাজা কমিয়ে দিয়েছেন তিনি।

আজ বুধবার এক প্রতিবেদনে বিবিসি জানায়, ট্রাম্পের ক্ষমার তালিকায় তার অন্যতম সহযোগী স্টিম ব্যানন ছাড়াও র‍্যাপার লিল ওয়েইন, কোভাক ব্ল্যাক, কাওমি কিলপ্যাট্রিক, অ্যান্থনি লেভানডোস্কি, রিক রেনজি, এলিয়ট ব্রোডিসহ আরও অনেকেই আছেন।

ডোনাল্ড ট্রাম্পের ২০১৬ সালের নির্বাচনী প্রচারণার সময় অন্যতম প্রধান কৌশলবিদ ও উপদেষ্টা হিসাবে কাজ করেছিলেন স্টিভ ব্যানন। যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্তে বহুল আলোচিত দেয়াল তোলার জন্য তহবিল সংগ্রহে প্রতারণার অভিযোগে গত বছরের আগস্টে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছিল। অভিযোগ ছিল যে, আরও তিন জনের সঙ্গে মিলে ব্যানন তহবিল থেকে লাখো ডলার সরিয়েছেন।

৬ জানুয়ারি ক্যাপিটল ভবনে ট্রাম্পের উগ্র সমর্থকদের হামলার ঘটনায় ব্যাননের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে বলেও সন্দেহ করা হচ্ছে।

অন্যদিকে ওয়েইন কার্টার ওরফে র‍্যাপার লিল ওয়েইনের গত বছর অস্ত্র সংক্রান্ত ফেডারেল অভিযোগে সাজা হয়েছিল। তিনি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের অপরাধী সংক্রান্ত সংস্কার কার্যক্রমকে স্বাগত জানিয়ে তার সঙ্গে একটি ছবি পোস্ট করেছিলেন।

বিল কে কাপরি, যিনি কোডাক ব্ল্যাক নামে পরিচিত, তার বিরুদ্ধেও অস্ত্র সংক্রান্ত অভিযোগ রয়েছে। তার তিন বছর ১০ মাসের সাজা হয়েছিল।

দুর্নীতির অভিযোগে ডেট্রয়েটের সাবেক মেয়র কাওমি কিলপ্যাট্রিককে ২৮ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছিল। তার বিরুদ্ধে ২০০২ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত মেয়র থাকার সময় চাঁদা ও ঘুষ গ্রহণ, হুমকি দেওয়ার অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে।

প্রেসিডেন্টের মেয়াদের শেষ দিকে ১৮ মাসের সাজা থেকে পূর্ণ ক্ষমা পেয়েছেন অ্যান্থনি লেভানডোস্কি। তিনি গুগলের সাবেক প্রকৌশলী। প্রতিষ্ঠানের স্বয়ংক্রিয় গাড়ি সংক্রান্ত প্রকল্পের তথ্য চুরি করার কথা স্বীকার করেছিলেন তিনি।

অ্যারিজোনা থেকে নির্বাচিত আইনপ্রণেতা রিক রেনজিকে ২০১৩ সালে চাঁদাবাজি, ঘুষ গ্রহণ, বিমা জালিয়াতি, অর্থ পাচারের অভিযোগে দুই বছরের কারাদণ্ড, দুই বছরের নজরদারি আর ২৫ হাজার ডলার জরিমানা করা হয়েছিল। তিনিও পূর্ণ ক্ষমা পেয়েছেন।

এ ছাড়াও, রিপাবলিকান তহবিল সংগ্রহকারী এলিয়ট ব্রোডিও প্রেসিডেন্টের কাছ থেকে পূর্ণ ক্ষমা পেয়েছেন। তিনি চীনা ও মালয়েশিয়ার স্বার্থে ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে লবিং করার জন্য তহবিল গ্রহণ করার অভিযোগ স্বীকার করেছিলেন।

মেয়াদের শেষ সময়ে ক্ষমার তালিকায় ট্রাম্পের নিজ পরিবারের কোনো সদস্যের নাম আছে কি না, তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন:

পরিবারের সদস্য ও সহযোগীদের ক্ষমা নিয়ে চিন্তিত ট্রাম্প

যা করতে এসেছিলাম, তার সবই করেছি: বিদায়ী ভাষণে ট্রাম্প

ট্রাম্পের নয়, বাইডেনের অনুষ্ঠানে থাকছেন পেন্স

করোনায় মৃতদের স্মরণে বাইডেন

হোয়াইট হাউসে বাইডেনের আগমন: উত্তরসূরিকে স্বাগত জানাবে না ট্রাম্প দম্পতি

জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থায় ট্রাম্পের অনুগতের দায়িত্ব না দেওয়ার অনুরোধ পেলোসির

কঠোর নিরাপত্তার মধ্যেও মার্কিন স্টেট হাউজগুলোর সামনে সশস্ত্র বিক্ষোভ

সবচেয়ে কম জনপ্রিয়তা নিয়ে হোয়াইট হাউস ছাড়ছেন মেলানিয়া ট্রাম্প

Comments