বাংলাদেশে ফিরছেন ড. বিজন, অনুমতি পেয়েছেন

বাংলাদেশে কাজ করার জন্যে ওয়ার্ক পারমিট পেয়েছেন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বিজ্ঞানী ড. বিজন কুমার শীল। অর্থাৎ ড. বিজন বাংলাদেশে কাজ করার জন্যে যে প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়া দরকার ছিল, সেটা হয়েছে।
ড. বিজন কুমার শীল। ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশে কাজ করার জন্যে ওয়ার্ক পারমিট পেয়েছেন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বিজ্ঞানী ড. বিজন কুমার শীল। অর্থাৎ ড. বিজন বাংলাদেশে কাজ করার জন্যে যে প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়া দরকার ছিল, সেটা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে সিঙ্গাপুর থেকে টেলিফোনে দ্য ডেইলি স্টারকে তিনি নিজেই এ তথ্য জানিয়েছেন। গণস্বাস্থ্য সমাজভিত্তিক মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ডা. মহিবুল্লাহ খন্দকারও দ্য ডেইলি স্টারকে বিষয়টি জানিয়েছেন।

ড. বিজন কুমার শীল গণবিশ্ববিদ্যালয়ের অনুজীব বিজ্ঞান বিভাগের প্রধান হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তার নেতৃত্বে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র অ্যান্টিজেন ও অ্যান্টিবডি কিট উদ্ভাবন করেছে। ওয়ার্ক পারমিটের মেয়ার শেষ হয়ে যাওয়ায় তাকে সিঙ্গাপুরে চলে যেতে হয়েছিল।

পরবর্তীতে বেশ লম্বা সময় ধরে প্রক্রিয়া চলছিল, যা গতকাল শেষ হয়েছে বলে ড. বিজন জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘ওয়ার্ক পারমিটের কাগজ গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের মাধ্যমে সিঙ্গাপুরে আমার কাছে এসে পৌঁছেছে।’

বর্তমানে ওয়ার্ক পারমিটের ভিত্তিতে ভিসার জন্যে তিনি সিঙ্গাপুরের বাংলাদেশ দূতাবাসে আবেদন করবেন। সেই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সিঙ্গাপুরের বাংলাদেশ দূতাবাস তাকে ভিসা প্রদান করবে। ভিসা প্রদানের পরে তিনি বাংলাদেশে এসে গণবিশ্ববিদ্যালয়ে এবং কিট গবেষণার কাজে যোগ দেবেন। পুরো প্রক্রিয়া সম্পন্ন হতে আরও এক মাসের মতো লাগতে পারে বলে মনে করছেন ড. বিজন।

ড. বিজন কুমার শীল বলছিলেন, ‘স্বাভাবিকভাবেই দেশে কাজের অনুমোদন পাওয়ায় খুবই আনন্দিত। যখন চলে আসতে হয়েছিল, স্বাভাবিকভাবেই মন খারাপ হয়েছিল। কিন্তু, কারো প্রতি আমার কোনো অভিযোগ ছিল না। একটা প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেই আমাকে কাজ করতে হবে। সেটাকে আমি মেনেই নিয়েছলাম। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রও সেটাকে মেনে নিয়েছিল। সেই অনুযায়ী আমি বাংলাদেশে থেকে ফেরত এসেছিলাম। যেহেতু সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে, আমি আবার আমার জন্মভূমিতে ফিরে যাব এবং সেখানে আরও ভালো কিছু করার সর্বাত্মক চেষ্টা করব।’

আরও পড়ুন:

বিষণ্ন মনে জন্মভূমি ছাড়লেন ড. বিজন

আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বিজ্ঞানীর ‘সন্ন্যাসীর জীবন’ ও অনাবশ্যক বিতর্ক

আমাদেরই সবার আগে এই কিট বিশ্ববাসীর সামনে আনার সুযোগ ছিল: ড. বিজন

আমরা যা আজ ভাবছি, পশ্চিমা বিশ্ব তা আগামীকাল ভাবছে: ড. বিজন

ড. বিজনের উদ্ভাবিত পদ্ধতিতে ৩৫০ টাকায় ১৫ মিনিটে করোনা শনাক্ত সম্ভব

দ্বিতীয়বার করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সম্ভাবনা নেই: ড. বিজন

বিমানবন্দরেই দ্রুত-নির্ভুল কোভিড-১৯ পরীক্ষা সম্ভব: ডা. জাফরুল্লাহ ও ড. বিজন

গণস্বাস্থ্যের কিটে নয়, ত্রুটি নমুনা সংগ্রহ প্রক্রিয়ায়

গণস্বাস্থ্যের কিট কার্যকর নয়: বিএসএমএমইউ, কিট কার্যকর- প্রতিবেদন পেয়ে প্রতিক্রিয়া: ড. বিজন

Comments