অ্যান্ডারসনের ৬ উইকেটের পর ইংল্যান্ডকে টানছেন রুট

শ্রীলঙ্কার ইনিংস আটকে দিতে ৬ উইকেট তুলেন টেস্ট ইতিহাসের সফলতম পেসার জেমস অ্যান্ডারসন।
james anderson
ছবি: শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট

প্রথম টেস্টে দল জিতেছিল বড় ব্যবধানে। তবে ডাবল সেঞ্চুরি করে একাই সেই পথটা করে দিয়েছিলেন ইংল্যান্ড অধিনায়ক জো রুট। দ্বিতীয় টেস্টেও দলের বিপর্যয়ে কথা বলছে তার ব্যাট। এর আগে শ্রীলঙ্কার ইনিংস আটকে দিতে ৬ উইকেট তুলেন টেস্ট ইতিহাসের সফলতম পেসার জেমস অ্যান্ডারসন।

গল টেস্টে শ্রীলঙ্কা প্রথম ইনিংসে ৩৮১ রানে গুটিয়ে যাওয়ার পর খেলতে নেমে ৫ রানেই ২ উইকেট হারিয়েছিল সফরকারীরা। এরপর জনি বেয়ারস্টোকে নিয়ে ঘুরে দাঁড়ান রুট। ফিফটি করে অপরাজিত এই ডানহাতি আভাস দিচ্ছেন বড় রানের।  ২ উইকেটে ৯৮ রান তুলে দিন শেষ করেছে তারা। 

৬৭ রান নিয়ে তৃতীয় দিনে ব্যাট করতে নামবেন রুট। সঙ্গী বেয়ারস্টোর রান ২৪।

আগের দিন অভিজ্ঞ অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসের সেঞ্চুরিতে দারুণ শুরু পেয়েছিল লঙ্কানরা। ৪ উইকেটে ২২৯ রান দিয়ে দ্বিতীয় দিন শুরু করে তারা। কিন্তু সেঞ্চুরিয়ান ম্যাথিউস ফেরেন দিনের শুরুতেই। ১১০ রান করা ম্যাথিউসকে উইকেটের পেছনে ক্যাচ বানিয়ে চতুর্থ উইকেট নেন অ্যান্ডারসন।

খানিকপর মার্ক উডের বলে কোন রান না করেই ফেরেন রমেশ মেন্ডিস। লঙ্কানদের বিশাল সংগ্রহের আশা তখনই নিভে যায়। দিলরুয়ান পেরেরার সঙ্গে অবশ্য দারুণ এক জুটি পেয়ে যান নিরোশান ডিকভেলা। সপ্তম উইকেটে তারা আনেন ৮৯ রান। সেঞ্চুরির পথে থাকা ডিকভেলাকে ফিরিয়ে এই জুটি ভাঙ্গার পাশাপাশি ৫ উইকেট পুরো করেন ৩৮ পেরুনো অ্যান্ডারসন। ওই ওভারেই সুরাঙ্গা লাকমালকে ছেঁটে ৬ষ্ঠ উইকেট তুলেন তিনি।

৬৭ করা দিলরুয়ান পেরেরাকে ফেরান স্যাম কারান। ৩৮১ রানে আটকে যায় স্বাগতিকরা। ৪০ রানে ৬ উইকেট পান অ্যান্ডারসন। দেশের বাইরে এটিই তার সেরা বোলিং ফিগার। এর আগে ২০১৫ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাঠে ৪২ রানে ৬ উইকেট পেয়েছিলেন তিনি।

খেলতে নেমেই বাঁহাতি স্পিনার লাসিথ এম্বুলদেনিয়ার তোপে পড়ে ইংলিশরা। কোন রান দেওয়ার আগেই এই স্পিনার তুলে নেন ২ উইকেট। ৬ষ্ট ওভারে দলের ৪ রানে ওপেনার ডম সিবলি তার বলে হয়েছেন এলবিডব্লিউ। ১ রান যোগ করতেই আরেক ওপেনার জ্যাক ক্রাউলি স্লিপে দেন ক্যাচ।

বিপর্যস্ত এই পরিস্থিতি অবশ্য দ্রুতই উবে যায় রুট-বেয়ারস্টোর ব্যাটে। অবিচ্ছিন্ন ৯৩ রানের জুটিতে বড় রানের আভাস দিচ্ছেন তারা।

Comments

The Daily Star  | English

Phase 2 UZ Polls: AL working to contain feuds, increase turnout

Shifting focus from its earlier position to keep relatives of its lawmakers from the upazila election, the ruling Awami League now seeks to minimise internal feuds centering on the polls and increase the voter turnout.

8h ago