আইপিএলের জন্য পিছিয়ে যাচ্ছে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল!

ভারতীয় গণমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়ার একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) কথা মাথায় রেখে আট দিন পিছিয়ে দেওয়া হচ্ছে ফাইনাল।
ipl
ফাইল ছবি: এএফপি

বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অভিষেক আসরের ফাইনাল আগামী ১০ জুন থেকে ইংল্যান্ডের লর্ডসে শুরু হওয়ার প্রাথমিক পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু ভেন্যু ঠিক রাখলেও ম্যাচের তারিখ পরিবর্তন করতে যাচ্ছে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি। ভারতীয় গণমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়ার একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) কথা মাথায় রেখে আট দিন পিছিয়ে দেওয়া হচ্ছে ফাইনাল।

করোনাভাইরাসের কারণে আইপিএলের সবশেষ আসর নির্ধারিত সময়ে অনুষ্ঠিত হতে পারেনি। কয়েক দফা পিছিয়ে শেষ পর্যন্ত গত বছরের সেপ্টেম্বর-নভেম্বরে সংযুক্ত আরব আমিরাতের মাঠে গড়ায় জনপ্রিয় এই ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি প্রতিযোগিতাটি। কিন্তু আগামী ১৪তম আসর সূচি মেনে আয়োজন করতে চায় ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)। প্রস্তাবিত পরিকল্পনা অনুসারে, আগামী মে মাসের শেষদিকে শেষ হবে আইপিএল।

পরিবর্তিত বাস্তবতায় যেকোনো সফরকারী ক্রিকেট দলকে স্বাগতিক দেশের কোয়ারেন্টিনের কঠোর নিয়ম মানতে হয়। ফলে মে মাসের শেষদিকে আইপিএল শেষ হলে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালের প্রস্তুতি নেওয়া বেশ কঠিন হয়ে যাবে অংশগ্রহণকারী দলগুলোর জন্য। কারণ, কোয়ারেন্টিন বিধি মানার পর অনুশীলনের জন্য মিলবে না পর্যাপ্ত সময়। তাছাড়া, ইংল্যান্ডে নতুন ধরনের যে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ছে, তা আরও ভয়ঙ্কর। তাই আইসিসি নাকি ১০ জুনের পরিবর্তে ১৮ জুন থেকে ফাইনাল শুরু করার সিদ্ধান্তের পথে হেঁটেছে। যদিও সংস্থাটির পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে এখনও কিছু জানানো হয়নি।

সোমবার স্বদেশি বার্তা সংস্থা প্রেস ট্রাস্ট অব ইন্ডিয়ার (পিটিআই) বরাতে বিসিসিআইয়ের এক কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করে টাইমস অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে, ‘বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল পিছিয়ে আগামী ১৮-২২ জুন অনুষ্ঠিত হবে এবং ২৩ জুনকে রিজার্ভ ডে হিসেবে রাখা হয়েছে।’

টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে জায়গা করে নেওয়া নিয়ে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস রয়েছে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষ চার দলের মধ্যে। সম্ভাব্য পয়েন্টের শতকরা ৭১.৭ ভাগ পেয়ে এক নম্বরে রয়েছে ভারত। দুইয়ে থাকা নিউজিল্যান্ডের পয়েন্টের হার ৭০ শতাংশ। শতকরা ৬৯.২ শতাংশ পয়েন্ট নিয়ে তিনে আছে অস্ট্রেলিয়া। চারে থেকে ইংল্যান্ড পেয়েছে সম্ভাব্য পয়েন্টের শতকরা ৬৮.৭ ভাগ।

Comments

The Daily Star  | English

Fewer but fiercer since the 90s

Though Bangladesh is experiencing fewer cyclones than in the 1960s, their intensity has increased, a recent study has found.

5h ago