এটা প্রত্যাশিত রায়: দীপনের বাবা

জাগৃতি প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী ফয়সল আরেফিন দীপন হত্যা মামলায় আট আসামির প্রত্যেককে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এই রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন তার বাবা আবুল কাসেম ফজলুল হক। আজ বুধবার দুপুরে রায় ঘোষণার পরে যোগাযোগ করা হলে তিনি দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘এটা প্রত্যাশিত রায়।’
Abu_Kasem_Fazlul_Haque.jpg
আবুল কাসেম ফজলুল হক | ছবি: সংগৃহীত
জাগৃতি প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী ফয়সল আরেফিন দীপন হত্যা মামলায় আট আসামির প্রত্যেককে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এই রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন তার বাবা আবুল কাসেম ফজলুল হক। আজ বুধবার দুপুরে রায় ঘোষণার পরে যোগাযোগ করা হলে তিনি দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘এটা প্রত্যাশিত রায়।’
 
তিনি আরও বলেন, আদালত থেকে জানানো হয়েছে, আট জনের ফাঁসির আদেশ হয়েছে। যারা আসামি তাদের সম্পর্কে আমি কিছু জানি না। সরকারি ধারায় বিচার হয়েছে। গোয়েন্দা শাখা থেকে যে চার্জশিট দেওয়া হয়েছে, সেখানে যেমন বিবরণ এসেছে, সাক্ষীরা সাক্ষ্য দিয়েছেন, আসামিদের আইনজীবীরা ছিলেন, সে সবের ভিত্তিতে বিচারক বোঝার চেষ্টা করেছেন এবং রায় দেওয়া দিয়েছেন। আমার ধারণা সেসব সঠিকভাবে হয়েছে।
 
রাজধানীর শাহবাগ এলাকায় ২০১৫ সালের ৩১ অক্টোবর ফয়সল আরেফিন দীপনকে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। ২ নভেম্বর তার স্ত্রী রাজিয়া রহমান বাদী হয়ে শাহবাগ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছিলেন। মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) দক্ষিণের সহকারী পুলিশ কমিশনার ফজলুর রহমান ২০১৮ সালের ১৪ নভেম্বর সন্ত্রাসবিরোধী আইনে নিষিদ্ধ ঘোষিত আনসার আল ইসলামের আট জনকে অভিযুক্ত করে অভিযোগপত্র জমা দেন। 
 
এরা হলেন— মেজর (বরখাস্ত) সৈয়দ জিয়াউল হক জিয়া, কিলিং স্কোয়াডের প্রধান মঈনুল হাসান শামীম, প্রশিক্ষক আবদুর সবুর এবং টপ অপারেটিভ খাইরুল ইসলাম, শেখ আবদুল্লাহ, আবু সিদ্দিক সোহেল, মোজাম্মেল হুসাইন এবং আকরাম হোসেন। এ মামলায় ২৩ জনের সাক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। আজ দুপুরে ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মজিবুর রহমান প্রত্যেক আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দেন।
 

Comments

The Daily Star  | English
national election

Human rights issues in Bangladesh: US to keep expressing concerns

The US will continue to express concerns on the fundamental human rights issues in Bangladesh including the freedom of the press and freedom of association and urge the government to uphold those, said a senior US State Department official

3h ago