নির্বাচন কর্মকর্তাদের পক্ষপাতমূলক আচরণ আশা করি না: মাহবুব তালুকদার

নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেছেন, নির্বাচনি দায়িত্ব যারা পালন করবেন, তাদের কাছ থেকে পক্ষপাতমূলক আচরণ কখনও আশা করি না।
Mahbub Talukder
মাহবুব তালুকদার। ছবি: সংগৃহীত

নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেছেন, নির্বাচনি দায়িত্ব যারা পালন করবেন, তাদের কাছ থেকে পক্ষপাতমূলক আচরণ কখনও আশা করি না।

চতুর্থ ও পঞ্চম ধাপে পৌরসভা নির্বাচনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে আজ বুধবার ভার্চুয়াল মিটিংয়ে তিনি সভাপতির বক্তব্যে এই কথা বলেন।

মিটিংয়ে পৌরসভাগুলোর রিটার্নিং কর্মকর্তা এবং সংশ্লিষ্ট জেলার পুলিশ সুপার এবং জেলা প্রশাসকরা তাদের প্রস্তুতি ও সমস্যা উপস্থাপন করেন। মাহবুব তালুকদার তার বক্তব্যে সমস্যাগুলোর সম্ভাব্য সমাধান উপস্থাপন করেন।

তিনি বলেন, ‘একটি কথা স্পষ্টভাবে বলতে চাই। নির্বাচনি দায়িত্ব যারা পালন করবেন, তাদের কাছ থেকে পক্ষপাতমূলক আচরণ কখনও আশা করি না। আমরা কোনো ব্যক্তি, গোষ্ঠী বা দলের প্রতি অনুরাগ বা বিরাগের বশবর্তী হয়ে দায়িত্ব পালন করতে আসিনি। সব প্রার্থী আমাদের কাছে এক। সবার প্রতি আচরণে আপনাদের ভূমিকা হচ্ছে বিচারকের মতো নির্মোহ।’

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্বপালনের জন্য আমরা শপথ নিয়েছি। আপনারা আমাদের শপথের অংশীদার। কারণ নির্বাচন আমরা সরাসরি করি না, নির্বাচন করেন আপনারা। নির্বাচন কমিশনের সব ক্ষমতা ও শক্তি এখন আপনাদের কাছে হস্তান্তরিত। কমিশনের নির্দেশে আপনারা এই ক্ষমতা প্রয়োগ করবেন।’

সাম্প্রতিক নির্বাচনগুলোতে ভোটবিমুখতা লক্ষ করা যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এটি গণতন্ত্রের জন্য অশনিসংকেত। এর কারণগুলো বিশ্লেষণ করে প্রতিকারের প্রচেষ্টা চালানো প্রয়োজন।’

নির্বাচনে সহিংসতা ও আচরণবিধি লঙ্ঘনের ক্রমবর্ধমান ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘নির্বাচনকালে আপনাদের হাতে যে অপরিমেয় ক্ষমতা আছে, তা প্রয়োগ করে একটি শান্তিপূর্ণ পরিবেশ কেন নিশ্চিত করা যাবে না তা আমার বোধগম্য নয়। পাশাপাশি এ কথাও বলে দিতে চাই, নির্বাচনের দায়িত্বপালনে কারও কোনো শিথিলতা বরদাস্ত করা হবে না। এ বিষয়ে আমরা “শূন্য সহিষ্ণু নীতি” বা “জিরো টলারেন্সে” বিশ্বাসী।’

এ সময় তিনি অবাধ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনী ব্যবস্থাপনাকে পাঁচটি ‘নি’ দিয়ে সংজ্ঞায়িত করে বলেন, নির্বাচনী ব্যবস্থাপনায় নিশ্চয়তা, নিরপেক্ষতা, নিরাপত্তা, নিয়ম-নীতি ও নিয়ন্ত্রণ কমিশনের জন্য গুরুত্বপূর্ণ চ্যালেঞ্জ। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার জন্য আমরা প্রস্তুত আছি। এই সংজ্ঞা নির্ধারণ নিতান্তই আমার ব্যক্তিগত উদঘাটন। এর সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের কোনো সম্পর্ক নেই।’

Comments

The Daily Star  | English

How Lucky got so lucky!

Laila Kaniz Lucky is the upazila parishad chairman of Narsingdi’s Raipura and a retired teacher of a government college.

4h ago