দক্ষিণ আফ্রিকা ও ব্রাজিলের করোনা ভ্যারিয়েন্ট ভারতে শনাক্ত

ইন্ডিয়ান সেন্টার ফর মেডিক্যাল রিসার্চের (আইসিএমআর) ডিরেক্টর জেনারেল ড. বলরাম ভার্গভ গণমাধ্যমকে বলেছেন, ভারতে করোনার ব্রাজিলিয়ান ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত অন্তত একজনকে শনাক্ত করা হয়েছে।
ছবি: রয়টার্স ফাইল ফটো

ইন্ডিয়ান সেন্টার ফর মেডিক্যাল রিসার্চের (আইসিএমআর) ডিরেক্টর জেনারেল ড. বলরাম ভার্গভ গণমাধ্যমকে বলেছেন, ভারতে করোনার ব্রাজিলিয়ান ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত অন্তত একজনকে শনাক্ত করা হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার তিনি এ কথা বলেন বলে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়া টুডে

কোভিড-১৯ বিষয়ক সংবাদ সম্মেলনে ড. ভার্গভ বলেন, আক্রান্ত ব্যক্তি এবং তার সঙ্গে যোগাযোগকারীদের কোয়ারেন্টিন করা হয়েছে।

ড. ভার্গভ বলেন, ‘আইসিএমআর-এনআইভি দক্ষিণ আফ্রিকার এসএআরএস-কোভ-২ এর ভ্যারিয়েন্টকে আলাদা এবং সংস্কৃতি করার চেষ্টা করছে। অন্যদিকে এসএএস-কোভ -২ এর ব্রাজিলিয়ান ভ্যারিয়েন্টকে আলাদা এবং আইসিএমআর-এনআইভি-পুনেতে সংস্কৃতি করা হয়েছে।’

আইসিএমআর প্রধান বলেন, বর্তমানে ভারতে ১৮৭ জন করোনা রোগী যুক্তরাজ্যের ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত। তবে, যুক্তরাজ্যের ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত কারো মৃত্যু হয়নি।

‘শনাক্তদের কোয়ারেন্টিন করা হয় এবং চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। তাদের সঙ্গে যোগাযোগকারীদের আলাদা করা হয় এবং সবার নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। আমাদের যে ভ্যাকসিন আছে তার মাধ্যমে যুক্তরাজ্যের ভ্যারিয়েন্টের নিষ্ক্রিয় করার সম্ভাবনা আছে,’ বলেন ড. বলরাম ভার্গভ।

আইসিএমআর প্রধান জানান, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং ব্রাজিলের বিভিন্ন ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধে ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা নির্ণয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে। কারণ, এসব ভ্যারিয়েন্টগুলো যুক্তরাজ্যের থেকে আলাদা।

ড. ভার্গভ আরও জানান, দক্ষিণ আফ্রিকার এই ভ্যারিয়েন্ট ইতোমধ্যে ৪৪ দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। ভারতে দক্ষিণ আফ্রিকার ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত যে চারজনকে পজিটিভ শনাক্ত করা হয়েছে তারা অ্যাঙ্গোলা (১), তানজানিয়া (১) এবং দক্ষিণ আফ্রিকা (২) থেকে এসেছেন। এছাড়া, ব্রাজিলিয়ান ভ্যারিয়েন্ট এখন পর্যন্ত ১৫ দেশে রিপোর্ট করা হয়েছে।

Comments

The Daily Star  | English

Create right conditions for Rohingya repatriation: G7

Foreign ministers from the Group of Seven (G7) countries have stressed the need to create conditions for the voluntary, safe, dignified, and sustainable return of all Rohingya refugees and displaced persons to Myanmar

57m ago