বাংলাদেশ এমন কিছু দেখাবে নিউজিল্যান্ড যা আশাই করছে না!

নিউজিল্যান্ডকে তাদের দেশে কখনোই হারাতে পারেনি বাংলাদেশ। সব সংস্করণ মিলিয়ে পরিসংখ্যানটা ২৬-০!

নিউজিল্যান্ডকে তাদের দেশে কখনোই হারাতে পারেনি বাংলাদেশ। সব সংস্করণ মিলিয়ে পরিসংখ্যানটা ২৬-০! বিব্রতকর এই রেকর্ড এবার বদলানোর দারুণ সুযোগ দেখছেন বাংলাদেশের কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। তা করতে বড় ভূমিকা রাখতে পারেন তরুণ পেসাররাই। তার মতে, এই জায়গাতেই নাকি স্বাগতিকদের বড় চমক দেখাতে চলেছে বাংলাদেশ।

এবার সাত বিশেষজ্ঞ পেসার নিয়ে ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে নিউজিল্যান্ড গেছে বাংলাদেশ দল। হাসান মাহমুদ, শরিফুল ইসলামদের মতো তরুণ পেসাররা জাতীয় দলের হয়ে দ্বীপদেশটিতে গেলেন প্রথমবার।

বৃহস্পতিবার স্থানীয় গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে আশা দেখালেন বাংলাদেশের কোচ, ‘আমার মনে হয়, আমাদের কিছু তরুণ পেসার আছে, যাদের নিউজিল্যান্ড আগে দেখেনি। তারা হয়তো এমন কিছু আশা করেনি। আমাদের দারুণ কিছুর সম্ভাবনা আছে। হাসান মাহমুদ, তাসকিন আহমেদরা (আগেও নিউজিল্যান্ডে খেলেছেন) দারুণ বল করছে। আমাদের কিছু পেসার নিয়ে আমরা রোমাঞ্চিত।’

২৫ বছর বয়সী তাসকিনকে অবশ্য তরুণ বলার উপায় নেই। নিউজিল্যান্ডে তিনি খেলেছেন আগেও। দলে আছেন অভিজ্ঞ রুবেল হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমানও। আল-আমিন হোসেন, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিনও অনেক আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলে ফেলেছেন।

বাংলাদেশের কোচকে সবচেয়ে আশায় রাখছে ওয়ানডে সংস্করণটা, ‘৫০ ওভারের সংস্করণ আমাদের সবচেয়ে শক্তিশালী দিক। বিশ্বকাপে যদি দলের পারফরম্যান্স দেখেন এবং খেলোয়াড়দের গড় দেখেন, আমাদের ওয়ানডের পরিসংখ্যান বেশ ভালো।’

সবমিলিয়ে আগে কখনোই যা হয়নি, এবার তা করে দেখানোর হাতছানি ডমিঙ্গোর সামনে, ‘বাংলাদেশের কোনো দল যা করতে পারেনি, এবার তা করার দারুণ সুযোগ। আমরা তা নিয়ে রোমাঞ্চিত। বাংলাদেশের হয়ে নিউজিল্যান্ডে আমার প্রথম সফর। এর আগে দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে এখানে এসেছিলাম। আমি জানি, এখানে খেলা কত কঠিন। কিন্তু তরুণ খেলোয়াড়দের জন্য খুব ভালো সুযোগ। তিন বছরের মধ্যে বিশ্বকাপ আছে। নিউজিল্যান্ড দুনিয়ার বড় এক দল। ভারতে (অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া বিশ্বকাপে) বড় কিছু করতে হলে এসব সিরিজে ভালো করতে হবে।’

Comments