ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেললে ফল পক্ষে আনা সম্ভব: মাহমুদউল্লাহ

বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টিতে নিউজিল্যান্ডের মুখোমুখি হয়েছে সাতবার। দেশ, বিদেশ, নিরপেক্ষ ভেন্যু- যেখানেই খেলা হোক না কেন, প্রতিবারই তাদের কপালে জুটেছে হারের তিক্ত স্বাদ।
mahmudullah
ছবি: টুইটার

ওয়ানডে সিরিজ শুরুর আগে অনেক আশার বাণী শুনিয়েছিলেন অধিনায়ক তামিম ইকবাল। কিন্তু প্রাপ্তির খাতায় জুটেছে শূন্য! আরও একবার নিউজিল্যান্ডের মাটিতে হোয়াইটওয়াশড হয়েছে বাংলাদেশ। আগামীকাল রবিবার থেকে শুরু হতে যাওয়া টি-টোয়েন্টি সিরিজে টাইগারদের নেতৃত্ব দিবেন মাহমুদউল্লাহ। তার কণ্ঠেও বেজে উঠেছে একই সুর। তবে অতীত পরিসংখ্যান ও সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স বিবেচনায় প্রত্যাশা কতটুকু পূরণ হবে তা নিয়ে থাকছে তীব্র সংশয়।

বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ডের তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথমটির ভেন্যু হ্যামিল্টনের সেডন পার্ক। খেলা শুরু হবে বাংলাদেশ সময় সকাল ৭টায়। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে স্বাগতিকদের বিপক্ষে এখন পর্যন্ত সব সংস্করণ মিলিয়ে ২৯ ম্যাচ খেলেও জয়ের মুখ দেখেনি বাংলাদেশ।

শনিবার নিউজিল্যান্ড থেকে পাঠানো ভিডিও বার্তায় মাহমুদউল্লাহ কাঁটাছেঁড়া করেন ওয়ানডে সিরিজের ফল নিয়ে, ‘এখানকার কন্ডিশন বরাবরই আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং। ওয়ানডে সিরিজেও আমরা দেখেছি। তারা তাদের কন্ডিশনকে অনেক ভালোভাবে কাজে লাগিয়েছে। ব্যাটিং ইউনিট হিসেবে আমরা ভালো করতে পারিনি। যদিও আমাদের বোলাররা ভালো পারফর্ম করেছে। কিন্তু কিছু ভুল ফিল্ডিংয়ের কারণে ফলাফল পক্ষে আনতে পারিনি।’

এই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানের চাওয়া, ওয়ানডে সিরিজে অসহায় আত্মসমর্পণের প্রভাব যেন টি-টোয়েন্টিতে না পড়ে, ‘ওয়ানডে সিরিজের ফলাফল যেন আমাদের এই খেলায় নেতিবাচক প্রভাব না ফেলে, সেজন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে। জয়ের বিকল্প নেই। অন্য কোনো পথ নেই। নিউজিল্যান্ডকে যদি নিউজিল্যান্ডে হারাতে চান, তাহলে ব্যতিক্রমী কিছু করতে হবে। এই চ্যালেঞ্জ নিতে আমরা মুখিয়ে আছি।’

এরপর মাহমুদউল্লাহ শোনান সেই চিরায়ত গল্প, কী কী করলে ফল বাংলাদেশের পক্ষে আসবে, ‘টি-টোয়েন্টিতে কোনো ধরনের জড়তা ছাড়া ভয়ডরহীন ক্রিকেট যদি আমরা খেলতে পারি, তাহলে ফল আমাদের পক্ষে নিয়ে আসা সম্ভব। আমি বিশ্বাস করি, আমাদের জয়ের ক্ষুধা তীব্র আকারে আছে। আমরা এটার জন্য মুখিয়ে আছি। কাল (রবিবার) আমাদের সেরা ক্রিকেট খেলার চেষ্টা করব।’

ব্যাটিং নিয়ে ফের হতাশা প্রকাশ করলেও বোলারদের বেশ নিয়ে আত্মবিশ্বাসী তিনি, ‘বোলারদের জয়ের রসদ এনে দিতে ব্যাটিং ইউনিটকে আরও ভালো পারফর্ম করতে হবে। বোলাররা খুব ভালো ছন্দে আছে। আমাদের যে বোলিং ইউনিট আছে- (শেখ) মেহেদী (হাসান), নাসুম (আহমেদ), (মেহেদী হাসান) মিরাজ, সব ফাস্ট বোলাররা... আমাদের বোলিং আক্রমণ তাদের আটকানোর জন্য যথেষ্ট ভালো।’

এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টিতে নিউজিল্যান্ডের মুখোমুখি হয়েছে সাতবার। দেশ, বিদেশ, নিরপেক্ষ ভেন্যু- যেখানেই খেলা হোক না কেন, প্রতিবারই তাদের কপালে জুটেছে হারের তিক্ত স্বাদ।

Comments

The Daily Star  | English

C&F staff halt work at 4 container depots

Staffers of clearing and forwarding (C&F) agents stopped working at four leading inland container depots (ICDs) in the port city since the early hours today following a dispute with customs officials, which eventually led to a clash between C&F staff and staff of an ICD

22m ago