আন্তর্জাতিক
করোনাভাইরাস

ভারতে সাড়ে ৬ মাসের মধ্যে একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত ৮৯১২৯, মৃত্যু ৭১৪

ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও ৮৯ হাজার ১২৯ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। গত সাড়ে ছয় মাসের মধ্যে এটিই একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত। এর আগে গত বছরের ২০ সেপ্টেম্বর শনাক্ত হয়েছিল ৯২ হাজার ৬০৫ জন।
দিল্লিতে করোনা পরীক্ষার জন্যে নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে। ৩১ মার্চ ২০২১। ছবি: রয়টার্স

ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও ৮৯ হাজার ১২৯ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। গত সাড়ে ছয় মাসের মধ্যে এটিই একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত। এর আগে গত বছরের ২০ সেপ্টেম্বর শনাক্ত হয়েছিল ৯২ হাজার ৬০৫ জন।

এখন পর্যন্ত দেশটিতে এক কোটি ২৩ লাখ ৯২ হাজার ২৬০ জন শনাক্ত হয়েছেন। সংক্রমণের দিক থেকে বিশ্বের মধ্যে ভারতের অবস্থান বর্তমানে তৃতীয়তে।

একই সময়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৭১৪ জন। গত সাড়ে পাঁচ মাসের মধ্যে এটিই একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু। এর আগে গত বছরের ২১ অক্টোবর ৭১৭ জনের মৃত্যু হয়েছিল। করোনায় এ পর্যন্ত ভারতে মারা গেছেন এক লাখ ৬৪ হাজার ১১০ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আরও ৪৪ হাজার ২০২ জন। মোট সুস্থ হয়েছেন এক কোটি ১৫ লাখ ৬৯ হাজার ২৪১ জন।

আজ শনিবার ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সংক্রমণ সবচেয়ে বেশি মহারাষ্ট্রে। এরপর রয়েছে কেরালা, কর্ণাটক, অন্ধ্রপ্রদেশ, তামিল নাড়ু, দিল্লি ও উত্তর প্রদেশ। গত ২৪ ঘণ্টায় মহারাষ্ট্রে শনাক্ত হয়েছেন ৪৭ হাজার ৮২৭ জন। ভারতে করোনার সংক্রমণ শুরুর পর থেকে এটিই মহারাষ্ট্রে একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত।

ভারতে এখন পর্যন্ত প্রায় সাত কোটি মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে বলেও এনডিটিভি প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিকেল রিসার্চের তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে ১০ লাখ ৪৬ হাজার ৬০৫টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। আর এখন পর্যন্ত পরীক্ষা করা হয়েছে ২৪ কোটি ৬৯ লাখ ৫৯ হাজার ১৯২টি নমুনা।

উল্লেখ্য, গত বছরের ৩০ জানুয়ারি ভারতে প্রথম করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। জনস হপকিনস ইউনিভার্সিটির করোনাভাইরাস রিসোর্স সেন্টারের তথ্য অনুযায়ী, সংক্রমণের দিক থেকে বর্তমানে বিশ্বে ভারতের অবস্থান তিন নম্বরে। ভারতের আগে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রাজিল।

জনস হপকিনস ইউনিভার্সিটির সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১৩ কোটি এক লাখ ৪৬ হাজার ৫১ জন এবং মারা গেছেন ২৮ লাখ ৩৬ হাজার ৯৬৬ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন সাত কোটি ৩৭ লাখ ২১ হাজার ২১৫ জন।

Comments