প্রত্যাশা থেকেই হয়তবা মানুষ ট্রল করেছে: শান্ত

বুধবার পালেকেল্লেতে প্রথম টেস্টে মাত্র দ্বিতীয় ওভারেই ক্রিজে আসতে হয়েছিল শান্তকে। দিনশেষে তিনি আর আউট হননি। ২৮৮ বল খেলে অপরাজিত আছেন ১২৬ রানে। ১৪ চার আর ১ ছক্কার ইনিংসে ছিল পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ। ২৮ রানে একবার জীবন পাওয়া বাদ দিলে লঙ্কান বোলারদের কোন সুযোগই দেননি তিনি। দেখিয়েছেন নিবেদন আর দৃঢ়তার সর্বোচ্চ।
Najmul Hossain Shanto
ক্রিজে আছেন নাজমুল হোসেন শান্ত। ফাইল ছবি: এসএলসি

সব রকমের প্রক্রিয়া পেরিয়ে অনেক সম্ভাবনা নিয়ে জাতীয় দলে এসেছিলেন নাজমুল হোসেন শান্ত। কিন্তু সামর্থ্য-প্রত্যাশার সঙ্গে বাস্তবের ছিল বিস্তর ফারাক। গুরুত্বপূর্ণ তিন নম্বর পজিশনে ব্যাট করতে নেমে নিজেকে মেলে ধরতে না পারায় সমালোচনার তীর ক্যারিয়ারের প্রারম্ভেই বিদ্ধ করছিল তাকে। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে নিজের প্রথম আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরির পর তিনি জানালেন, নিজের উপর বিশ্বাসটা কখনই নড়ে যায়নি তার। আর তার উপর বেশি আশা ছিল বলেই এসেছে তীব্র সমালোচনা।  

বুধবার পালেকেল্লেতে প্রথম টেস্টে মাত্র দ্বিতীয় ওভারেই ক্রিজে আসতে হয়েছিল শান্তকে। দিনশেষে তিনি আর আউট হননি। ২৮৮ বল খেলে অপরাজিত আছেন ১২৬ রানে। ১৪ চার আর ১ ছক্কার ইনিংসে ছিল পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ। ২৮ রানে একবার জীবন পাওয়া বাদ দিলে লঙ্কান বোলারদের কোন সুযোগই দেননি তিনি। দেখিয়েছেন নিবেদন আর দৃঢ়তার সর্বোচ্চ। তার এমন দিনে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম দিনে ২ উইকেট হারিয়ে ৩০২ রান তুলে ফেলেছে বাংলাদেশ। সেঞ্চুরির পর সাদামাটা উদযাপন করা শান্ত এই ইনিংসটা টানতে চান আরও বহুদূর।  

অথচ এই ইনিংসের আগের ৮ আন্তর্জাতিক ইনিংসে তার রান মোটে ৮৬। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে সাকিব আল হাসানের বদলে তিনে নেমে করেন মাত্র ৩৮ রান। টেস্টের চার ইনিংসে করেন কেবল ৪০ রান। নিউজিল্যান্ডে গিয়ে শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে সুযোগ পেয়ে করেন মাত্র ৮ রান।

চরম খারাপ সময়ে ঘুরপাক খাচ্ছিলেন তিনি। দলে তার অবস্থানও নিয়েও উঠেছিল প্রশ্ন। বুধবার দিনশেষে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে  তবুও নিজের উপর তার বিশ্বাস ছিল অটুট, ‘নিজেকে প্রমাণ করার কিছু নেই। আমার বিশ্বাস ছিল যে আমি রান করতে পারব। কারণ গত পাঁচ-ছয় মাসে আমি অনেক পরিশ্রম করেছি। হ্যাঁ ফল আসেনি, কিন্তু ওই বিশ্বাসটা ছিল যে আমি বড় রান করতে পারব। কাজেই কোন কিছু প্রমাণ করার ওই রকম বিষয় আমার মনে হয়নি।’

তিনে নেমে রান না পাওয়ায় অস্থির সমর্থকদের রোষানলেও পড়তে হয়েছে তাকে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শিকার হতে হয়েছে আপত্তিকর ট্রলের। শান্ত এসব ট্রলকে দেখেন ইতিবাচকভাবেই,  ‘সত্যি কথা বলতে আমাকে নিয়ে কি হয়েছে আমি খুব একটা দেখিনি, শুনেছি পারিবারিক বন্ধুদের কাছ থেকে যে এরকম হচ্ছে। কিন্তু আমার মনে হয় সবাই আমার কাছ থেকে অনেক আশা করে যে আমি হয়তবা ভাল করতে পারি, বা ভাল করার সামর্থ্য আছে। এইজন্য হয়ত মানুষ এইগুলা (ট্রল) করে।’ 

Comments

The Daily Star  | English

Economy with deep scars limps along

Business and industrial activities resumed yesterday amid a semblance of normalcy after a spasm of violence, internet outage and a curfew left deep wounds on almost all corners of the economy.

1h ago