করোনাভাইরাস

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৫০ শনাক্ত ১৭৪২

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও ৫০ জন। এর আগে গতকাল ৬১ ও গত পরশু ৬৫ জন মারা গেছেন। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ১১ হাজার ৭৫৫ জন।
করোনাভাইরাস
ছবি: সংগৃহীত

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও ৫০ জন। এর আগে গতকাল ৬১ ও গত পরশু ৬৫ জন মারা গেছেন। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ১১ হাজার ৭৫৫ জন।

একই সময়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও এক হাজার ৭৪২ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হয়েছেন সাত লাখ ৬৭ হাজার ৩৩৮ জন।

আজ বুধবার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে দেওয়া সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত অ্যান্টিজেন ও আরটি-পিসিআর পদ্ধতিতে ২০ হাজার ২৮৪টি নমুনা পরীক্ষা করে করোনায় আক্রান্ত আরও এক হাজার ৭৪২ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার আট দশমিক ৫৯ শতাংশ।

আজ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ৫০ জনের মধ্যে ৩২ জন পুরুষ ও ১৮ জন নারী। বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে তাদের মধ্যে দুই জনের বয়স ৩১-৪০ বছরের মধ্যে, পাঁচ জনের বয়স ৪১-৫০ বছরের মধ্যে, ১৩ জনের বয়স ৫১-৬০ বছরের মধ্যে ও ষাটোর্ধ্ব ৩০ জন।

২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন তিন হাজার ৪৩৩ জন। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ছয় লাখ ৯৮ হাজার ৪৬৫ জন। সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত ৫৫ লাখ ৫০ হাজার ৬৭৮টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, দেশে মোট পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৮০ শতাংশ। মোট শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯১ দশমিক ০২ শতাংশ ও মৃত্যুর হার এক দশমিক ৫৩ শতাংশ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল মিলিয়ে সারাদেশে মোট আইসিইউ শয্যার সংখ্যা এক হাজার ৯০। এর মধ্যে বর্তমানে ফাঁকা রয়েছে ৬১৮টি। এখন পর্যন্ত সারাদেশে ৫৮ লাখ ১৯ হাজার ৭৫৭ জনকে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে। আর ৩১ লাখ ছয় হাজার ৭০৯ জনকে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:

আজ মৃত্যু ৬১ শনাক্ত ১৯১৪

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৬৫ শনাক্ত ১৭৩৯

আজ মৃত্যু ৬৯ শনাক্ত ১৩৫৯

Comments

The Daily Star  | English

Create right conditions for Rohingya repatriation: G7

Foreign ministers from the Group of Seven (G7) countries have stressed the need to create conditions for the voluntary, safe, dignified, and sustainable return of all Rohingya refugees and displaced persons to Myanmar

2h ago