মহামারির মধ্যেও চলছে মোদির সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্পের কাজ

সর্বত্র অক্সিজেনের জন্য হাহাকার। সংক্রমণ ও মৃত্যু রেকর্ড ছাড়াচ্ছে প্রতিদিন। করোনাভাইরাস মহামারির দ্বিতীয় ঢেউয়ে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে ভারতের স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা। আর্থিক খাতের অবস্থাও ভালো নয়। এমন বিপর্যয়ের মধ্যেও ব্যয়বহুল সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্পের আওতায় দিল্লিতে পুরাতন পার্লামেন্ট ভবন সংস্কার ও প্রধানমন্ত্রীর জন্য ভবন নির্মাণের কাজ চলছে।
২০২২ সালের মধ্যে নতুন পার্লামেন্ট ভবনের নির্মাণ কাজ শেষ করার কথা আছে। ছবি: এনডিটিভি

সর্বত্র অক্সিজেনের জন্য হাহাকার। সংক্রমণ ও মৃত্যু রেকর্ড ছাড়াচ্ছে প্রতিদিন। করোনাভাইরাস মহামারির দ্বিতীয় ঢেউয়ে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে ভারতের স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা। আর্থিক খাতের অবস্থাও ভালো নয়। এমন বিপর্যয়ের মধ্যেও ব্যয়বহুল সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্পের আওতায় দিল্লিতে পুরাতন পার্লামেন্ট ভবন সংস্কার ও প্রধানমন্ত্রীর জন্য ভবন নির্মাণের কাজ চলছে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির এমন সিদ্ধান্ত ক্ষুব্ধ করে তুলেছে অনেককে। প্রশ্ন তুলছেন বিরোধী রাজনীতিকরা। চলছে বিতর্ক।

সিএনএনের প্রতিবেদন অনুসারে, ‘সেন্ট্রাল ভিস্তা রিডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট’ শীর্ষক এই প্রকল্পের ঘোষণা দেওয়া হয় ২০১৯ সালে। ব্যয় ধরা হয় ১৮০ কোটি মার্কিন ডলার। যার আওতায় নতুন পার্লামেন্ট ভবন নির্মাণের পাশাপাশি ১৫ একর জায়গাজুড়ে ১০টি ভবনসহ প্রধানমন্ত্রীর জন্য আবাসন তৈরি করা হবে।

প্রকল্পটি ঘোষণার সময়েই সমালোচকেরা এর অযৌক্তিক ব্যয় ও পরিবেশগত অভিঘাত নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। কেউ কেউ এটাকে চিহ্নিত করেন সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের প্রতি হুমকি হিসেবে। সম্প্রতি এই বিরোধীতা আরও তীব্র হয়েছে। অনেকে এটাকে অভিহিত করছেন একটা অসার স্থাপত্য প্রকল্প হিসেবে। যা সাধারণ মানুষের কাজে আসবে না।

বিষয়টির সমালোচনা করে গত সপ্তাহে করা এক টুইটে ভারতের বিরোধী দলীয় সংসদ সদস্য রাহুল গান্ধী বলেন, ‘এই প্রকল্পের জন্য যে ব্যয় ধরা হয়েছে তা দিয়ে ৪৫ কোটি মানুষের জন্য টিকা অথবা ১ কোটি অক্সিজেন সিলিন্ডার কেনা সম্ভব। কিন্তু মোদির ইগো মানুষের জীবনের চেয়ে বড়।’

এর মধ্যে মোদি সরকার এই প্রকল্পটিকে ‘জরুরি সেবা’র আওতায় এনেছে। ফলে মহামারির মধ্যে অন্যান্য নির্মাণকাজ বন্ধ থাকলেও এই প্রকল্পের কাজ চলছে। এ ক্ষেত্রে অনেকে বিষয়টি ভারতের স্বাধীনতার ৭৫ বছর পূর্তিকে সামনে রেখে ২০২২ সালের মধ্যে নতুন পার্লামেন্ট ভবনের নির্মাণের কাজ শেষ করার প্রতিযোগিতা হিসেবে দেখছেন।

মোদির তীব্র সমালোচক ভারতের সংসদ সদস্য ও লেখক শশী থারুর অনেক দিন ধরেই এই প্রকল্পের বিরোধিতা করে আসছেন। মহামারির শুরুর দিকে তিনি এই প্রকল্পের টাকা কোডিভ পরিস্থিতি সামলানোর কাজে লাগানোর জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন।

চলতি বছরের শুরুর দিকে তিনি সিএনএনকে এ বিষয়ে বলছিলেন, ‘এমন একটা সময়ে এই বিপুল খরচ কিসের জন্য? যখন লকডাউনের প্রভাবে দেশের অর্থনীতি ধুঁকছে।’

এদিকে প্রকল্পটির কাজ বন্ধের আর্জি জানিয়ে গত বুধবার দিল্লি হাইকোর্টে আবদন করেন ভারতের দুই নাগরিক। আবেদনকারীদের যুক্তি পার্লামেন্ট ভবন নির্মাণের কাজ জরুরি সেবা হিসেবে বিবেচিত হতে পারে না। আর এই নির্মাণযজ্ঞ করোনা বিস্তারের ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে পারে।

তবে ঘটনার ব্যাপকতা বুঝতে ‘ব্যর্থ’ হওয়ার কারণ দেখিয়ে আবেদনকারীরা পরে বিষয়টি নিয়ে সুপ্রিমকোর্টে গেছেন।

এর আগে গত বছরের এপ্রিলে এই পরিকল্পনার আইনি ও পরিবেশগত ভিত্তি নিয়ে প্রশ্ন তুলে সুপ্রিম কোর্টে একটি পিটিশন দায়ের করা হয়। এই ঘটনার দুই মাস পর প্রকল্পটিকে ‘অবিবেচনাপ্রসূত ও অদায়িত্বশীল আচরণ’ হিসেবে অভিহিত করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বরাবর খোলা চিঠি লেখেন ভারতের সাবেক ৬০ জন আমলা। 

প্রায় ৮৬ একর জায়গাজুড়ে চলমান এই সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্প বাস্তবায়নের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের ভাষ্য, একশ বছরের পুরোনো পার্লামেন্ট ভবনটি এখন আর কাজ চালানোর জন্য উপযুক্ত নেই। গত বছরের ডিসেম্বরে প্রকল্পের কাজ উদ্বোধনের সময় মোদি বলেছিলেন ‘ভারতের মানুষই ঐক্যবদ্ধভাবে নতুন পার্লামেন্ট ভবন নির্মাণ করবে।’

এই প্রকল্পের আরেক সমালোচক ভারতের সাবেক অর্থ ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী যশবন্ত সিনহা। এক টুইটে তিনি বলেন, ‘কোভিডে মানুষ মরছে। কিন্তু (মোদির) অগ্রাধিকার হলো সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্প। এর বদলে কি হাসপাতাল বানানো দরকার ছিল না?’

‘একজন ক্ষমতালোভী মানুষকে নির্বাচিত করার জন্য আর কত মূল্য দিতে হবে জাতিকে?’ – প্রশ্ন রাখেন শাসকদল বিজেপির সাবেক এই সদস্য।

Comments

The Daily Star  | English
Bangladesh lacking in remittance earning compared to four South Asian countries

Remittance hits eight-month high

In February, migrants sent home $2.16 billion, up 39% year-on-year

1h ago