আবারও বাড়ল ভোজ্যতেলের দাম

দেশে সয়াবিন তেলের দাম আরেক দফা বেড়েছে। মাত্র দুই সপ্তাহ আগে তেলের দাম বাড়িয়ে ১৪৪ টাকা লিটার নির্ধারণ করা হলেও আজ শনিবার থেকে বাজারে প্রতি লিটার সয়াবিন তেল ১৫৩ টাকায় বিক্রি হবে।
ফাইল ছবি

দেশে সয়াবিন তেলের দাম আরেক দফা বেড়েছে। মাত্র দুই সপ্তাহ আগে তেলের দাম বাড়িয়ে ১৪৪ টাকা লিটার নির্ধারণ করা হলেও আজ শনিবার থেকে বাজারে প্রতি লিটার সয়াবিন তেল ১৫৩ টাকায় বিক্রি হবে।

এ নিয়ে গত পাঁচ মাসে মোট পাঁচ দফায় ভোজ্যতেলের দাম বাড়ল। ৩০ ডিসেম্বর থেকে এখন পর্যন্ত বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম লিটারে ৩৮ টাকা (৩৩ শতাংশ) বেড়েছে। ওই সময় প্রতি লিটার তেল ১১৫ টাকায় বিক্রি হতো।

গত বৃহস্পতিবার এক বিজ্ঞপ্তিতে বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়শেন জানিয়েছে, তেলের নতুন দাম আজ থেকে কার্যকর হবে। এ দাম এমন সময় বাড়ানো হলো, যখন মানুষ মহামারির মধ্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির সঙ্গে তাল মেলাতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছে।

নতুন মূল্যতালিকা অনুসারে, আগের দাম ৬৮৫ টাকা থেকে ৪৩ টাকা বেড়ে পাঁচ লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম এখন ৭২৮ টাকা হবে। এ ছাড়া, প্রতি লিটার খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি হবে ১২৯ টাকায়। আগে এ তেলের দাম ছিল ১২২ টাকা লিটার।

তবে, খোলা পাম অয়েলের দাম ১১৩ টাকা থেকে কমিয়ে ১১২ টাকা লিটার করা হয়েছে।

গত বছরের ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে প্রতি লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেল প্রায় ১১৫ টাকায় এবং প্রতি লিটার খোলা সয়াবিন তেল প্রায় ১১০ টাকায় বিক্রি হতো। এর আগের মাসে লিটার প্রতি তেলের দাম আরও ১০ থেকে ১৫ টাকা কম ছিল।

দাম অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাওয়ার কারণ হিসেবে অনেক ভোক্তা সরকারের মূল্য তদারকির অভাব ও তেল প্রক্রিয়াজাতকরণের ক্ষেত্রে স্বেচ্ছাচারিতাকে দায়ী করছেন।

ঢাকার নিম্ন আয়ের ভোক্তা আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘মহামারির দুটি ঢেউয়ের মাঝে তেলের দাম বাড়ার বিষয়টি নিম্ন ও মধ্য আয়ের মানুষের জন্য তৃতীয় একটি ধাক্কা হয়ে এসেছে।’

বেসরকারি চাকরিজীবী নজরুল ইসলাম জানান, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়ায় তার পক্ষে পরিবারের খরচ চালানো খুব কঠিন হয়ে পড়েছে।

‘এত চড়া দামে কীভাবে তেল কিনব আমি? এসব দেখার কি কেউ নেই?’, প্রশ্ন তোলেন তিনি।

নাম গোপন রাখার শর্তে একটি বেসরকারি কোম্পানির কর্মকর্তা বলেন, ‘বর্তমানে দেশে ভোজ্যতেলের যে দাম, তা আন্তর্জাতিক বাজারের দামের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়।’

‘আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বেড়ে গেলে দেশের বাজারে এর প্রভাব পড়ে। কিন্তু, আন্তর্জাতিক বাজারে দাম কমলে ভোক্তারা তার প্রতিফলন দেশের বাজারে দেখতে পায় না’, অভিযোগ করেন তিনি।

তবে, সিটি গ্রুপের করপোরেট অ্যান্ড রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্সের পরিচালক বিশ্বজিৎ সাহা বলেন, ‘গত এক বছরে আন্তর্জাতিক বাজারে ভোজ্যতেলের দাম ১৬০ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে। আন্তর্জাতিক বাজারের বর্তমান দাম ধরলে, বাংলাদেশে প্রতি লিটার তেলের দাম ১৭০ টাকা থেকে ১৭৫ টাকা হতো।’

আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতি টন সয়াবিন তেলের দাম এক হাজার ৪৬০ মার্কিন ডলার উল্লেখ করে তিনি বলেন, এখন প্রতি লিটার সয়াবিন তেলের জন্য সরকারকে তাদের ২৮ টাকা থেকে ৩০ টাকা করে আমদানি শুল্ক দিতে হবে। আগে দিতে হতো ১৫ টাকা।

বিশ্বজিৎ বলেন, ‘আমরা এখন যে সয়াবিন তেল বিক্রি করছি, তা আগে কেনা। তখন আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতি টন তেলের দাম ছিল এক হাজার ২৬০ টাকা থেকে এক হাজার ২৭০ টাকা।’ সরকার আমদানি শুল্ক প্রত্যাহার করে নিলে প্রক্রিয়াজাতকারকদের পক্ষে দাম কমানো সম্ভব হবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

ইংরেজি থেকে অনুবাদ করেছেন জারীন তাসনিম

Comments

The Daily Star  | English
irregular migration routes to Europe from Bangladesh

To Europe via Libya: A voyage fraught with peril

An undocumented Bangladeshi migrant worker choosing to enter Europe from Libya, will almost certainly be held captive by armed militias, tortured, and their families extorted for lakhs of taka.

21h ago