সিলেটে ধারাবাহিক ভূমিকম্প: ৮ ভবন ১০ দিন বন্ধ রাখার নির্দেশ

শনিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত চার দফা ভূমিকম্প এবং রোববার ভোরে আরেক দফা ভূমিকম্পের পর বড় ধরনের ভূমিকম্পের আশঙ্কা থেকে সিলেটে সতর্কতামূলক কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে আজ রোববার নগরীর আটটি ঝুঁকিপূর্ণ ভবন আগামী দশ দিনের জন্য বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে সিলেট সিটি কর্পোরেশন (সিসিক)।
Sylhet.jpg
সিলেট নগরীর সব ঝুঁকিপূর্ণ ভবন আগামী ১০ দিন বন্ধ রাখার নির্দেশ ঘোষণা করছেন সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। ছবি: স্টার

শনিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত চার দফা ভূমিকম্প এবং রোববার ভোরে আরেক দফা ভূমিকম্পের পর বড় ধরনের ভূমিকম্পের আশঙ্কা থেকে সিলেটে সতর্কতামূলক কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে আজ রোববার নগরীর আটটি ঝুঁকিপূর্ণ ভবন আগামী দশ দিনের জন্য বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে সিলেট সিটি কর্পোরেশন (সিসিক)।

এর মধ্যে, ছয়টি বাণিজ্যিক ভবন- বন্দরবাজার এলাকার সুরমা মার্কেট, সিটি সুপার মার্কেট, মধুবন সুপার মার্কেট ও জিন্দাবাজার এলাকার সমবায় ভবন, মিতালী ম্যানশন ও রাজা ম্যানশন দীর্ঘদিন ধরেই ঝুঁকিপূর্ণ ভবন হিসেবে সিটি কর্পোরেশনের তালিকাভুক্ত।

বাকিগুলো হলো- নতুন করে নজরে আসা জিন্দাবাজার এলাকার জেন্টস গ্যালারী নামে একটি দোকান এবং শনিবার ভূমিকম্পে হেলে পড়ার গুজব ওঠা নগরীর পনিটুলা এলাকার একটি আবাসিক ভবন।

সিসিকের জনসংযোগ কর্মকর্তা আব্দুল আলিম শাহ এ তথ্য নিশ্চিত করে দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘ঝুঁকির তালিকায় মোট ২৪টি ভবন ছিল, যার মধ্যে দুটি ভবন ইতোমধ্যে ভেঙে ফেলা হয়েছে। বাকি ভবনগুলো মেরামত অথবা ভেঙে ফেলার নির্দেশনা আগে থেকেই ছিল। ভূমিকম্পের পর সিসিক আবারও এসব ভবনের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করেছে। প্রথম দিন বাণিজ্যিক ভবনগুলো পরিদর্শন করা হয়। আগামীকাল তালিকার বাকি ভবন, যার প্রায় সবই আবাসিক, সেগুলোর বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করা হবে।’

২০১৬ সালের জানুয়ারিতে ভারতে সংঘটিত ভূমিকম্পে সিলেট শহরে প্রবল নাড়া দিলে সিসিক ২৪টি ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের তালিকা তৈরি করে। সেসময়ই এসবের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে মেরামত বা ভেঙে ফেলার নির্দেশ দেওয়া হলেও দীর্ঘদিনেও সেসব নির্দেশনা বাস্তবায়ন হয়নি। এখন পর্যন্ত এ তালিকার কেবলমাত্র দুটি ভবন ভেঙে ফেলা হয়েছে।

তালিকায় থাকা বাকি ২২টি ভবন হলো- নগরীর জেলরোডের সমবায় ব্যাংক ভবন, একই এলাকায় মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার সাবেক কার্যালয় ভবন, বন্দরবাজারের সুরমা মার্কেট, সিটি সুপার মার্কেট, মধুবন সুপার মার্কেট, জিন্দাবাজারের মিতালী ম্যানশন, রাজা ম্যানশন, দরগা গেইটের হোটেল আজমীর , টিলাগড় কালাশীলের মান্নান ভিউ, শেখঘাট শুভেচ্ছা-২২৬ নম্বর ভবন, যতরপুরের নবপুষ্প ২৬/এ বাসা, চৌকিদেখির ৫১/৩ সরকার ভবন, পুরান লেনের ৪/এ কিবরিয়া লজ, খারপাড়ার মিতালী-৭৪, মির্জা জাঙ্গালের মেঘনা এ-৩৯/২ বাসা, পাঠানটুলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, উত্তর বাগবাড়ির একতা ৩৭৭/৭ ওয়ারিছ মঞ্জিল, একতা ৩৭৭/৮ হোসেইন মঞ্জিল, একতা-৩৭৭/৯ শাহনাজ রিয়াজ ভিলা, বনকলাপাড়ার নূরানি-১৪ এবং ধোপাদিঘীর দক্ষিণ পাড়ের পৌরবিপণি মার্কেট ।

এদিকে, সিলেট সিটি করপোরেশন ভূমিকম্প বিষয়ে প্রস্তুতির জন্য একটি বিশেষ কন্ট্রোল রুম গঠন করেছে এবং একটি হটলাইন নম্বর (০১৯১১২৪৯৬৯৯) সার্বক্ষণিকভাবে চালু রাখার ঘোষণা দিয়েছে।

সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিধায়ক রায় চৌধুরী দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় সরকারের দেওয়া নির্দেশনা অনুযায়ী জরুরি ভিত্তিতে সিলেটের সব প্রশাসন, দপ্তর ও সেবা সংস্থাসমূহে নিজ নিজ কন্ট্রোল রুম খুলতে অনুরোধ জানানো হয়েছে। আগামী সাত দিনের জন্য সিলেট সিটি করপোরেশনসহ সব জরুরি সেবা সংস্থা ও সহযোগী সব দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষকে সর্বোচ্চ সর্তকাবস্থায় থাকার অনুরোধ জানানো হয়েছে।’

আরও পড়ুন:

সিলেটে ধারাবাহিক ভূমিকম্প: ছড়াচ্ছে গুজব, সচেতনতায় উদ্যোগ

সিলেটে সাড়ে ৩ ঘণ্টায় ৪ বার ভূমিকম্প, যা বলছেন বিশেষজ্ঞরা

 সিলেটে আবার মৃদু ভূমিকম্প 

তিন দফা ভূমিকম্পে কাঁপলো সিলেট

Comments

The Daily Star  | English

Consumers brace for price shocks

Consumers are bracing for multiple price shocks ahead of Ramadan that usually marks a period of high household spending.

8h ago