ফেনীতে ট্রাফিক পুলিশ পরিদর্শকের মরদেহ উদ্ধার

ফেনীতে ট্রাফিক পুলিশ পরিদর্শক (টিএসআই) শফিকুল আজমের (৪৩) মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তিনি ফেনীর ছাগলনাইয়া উপজেলা সদরে কর্মরত ছিলেন। কিন্তু, ফেনী শহরের মধ্যম চাড়িপুর পাগলা মিয়া সড়ক (হাজারী রোড) সংলগ্ন একটি ভাড়া বাসায় থাকতেন। ওই বাসা থেকেই তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।
শফিকুল আজম। ছবি: সংগৃহীত

ফেনীতে ট্রাফিক পুলিশ পরিদর্শক (টিএসআই) শফিকুল আজমের (৪৩) মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তিনি ফেনীর ছাগলনাইয়া উপজেলা সদরে কর্মরত ছিলেন। কিন্তু, ফেনী শহরের মধ্যম চাড়িপুর পাগলা মিয়া সড়ক (হাজারী রোড) সংলগ্ন একটি ভাড়া বাসায় থাকতেন। ওই বাসা থেকেই তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

আজ সোমবার বিকেল ৫টার দিকে পুলিশ ওই বাসার দরজা ভেঙে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ফেনী ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

নিহত শফিকুল আজমের বাড়ী টাঙ্গাইলের নাগরপুর থানার আউটপাড়ায়।

ফেনীর জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি-ডিএসবি) খালেদ হোসেন ট্রাফিক পুলিশ পরিদর্শকের মরদেহ উদ্ধারের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, পুলিশ প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে- ওই পরিদর্শক হৃদযন্ত্রের ক্রীড়া (হার্টএ্যাটাক) বন্ধ হয়ে মারা গেছেন। তারপরও ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর আসল কারণ জানা যাবে। ইতোমধ্যে তার পরিবারকেও মৃত্যুর সংবাদ জানানো হয়েছে।

পুলিশ জানায়, ফেনীর ট্রাফিক পুলিশ পরিদর্শক (টিএসআই) শফিকুল আজম গত শনিবার ডিউটি শেষে ফেনী শহরের পাগলা মিয়া সড়কের (হাজারী রোড) বাসায় ফিরে যান। তারপর তাকে আর দেখা যায়নি এবং তিনি বাসাতেই ছিলেন। দুই দিন বাসা থেকে বের না হওয়ায় এবং বাসা থেকে দুর্গন্ধ বের হওয়ায় বাড়ির মালিক আজ বিকেলে দরজার বাইরে থেকে অনেক ডাকাডাকি করেন। কিন্তু, বাসার ভেতর থেকে কোনো ধরনের সাড়া-শব্দ না পাওয়ায় এবং বাসার ভেতর থেকে দুর্গন্ধ পেয়ে তিনি পুলিশকে খবর দেন। খবর পেয়ে পুলিশ ওই বাসায় গিয়ে দরজার ছিটকানি ভেঙে ভেতরে ঢুকে খাটের ওপর মরদেহ পড়ে থাকতে দেখেন।

Comments

The Daily Star  | English
bailey road fire

Owners of shopping mall, ‘Chumuk’, ‘Kacchi Bhai’ sued

Police have filed a case against Amin Mohammad Group and three persons for the deadly fire at the Green Cozy Cottage shopping mall on Bailey Road in Dhaka that claimed 46 lives

39m ago