মামুনুলের বিরুদ্ধে দেশি-বিদেশি জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার তথ্য মিলেছে: এসপি

হেফাজতে ইসলামের সাবেক কমিটির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের বিরুদ্ধে দেশি-বিদেশি জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা থাকার প্রাথমিক তথ্য পাওয়া গিয়েছে বলে জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার (এসপি) জায়েদুল আলম।
হেফাজত নেতা মামুনুল হক। ছবি: সংগৃহীত

হেফাজতে ইসলামের সাবেক কমিটির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের বিরুদ্ধে দেশি-বিদেশি জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা থাকার প্রাথমিক তথ্য পাওয়া গিয়েছে বলে জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার (এসপি) জায়েদুল আলম।

তিনি বলেন, রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় যাওয়ার উচ্চ অভিলাষ থেকে ২৮ মার্চ হরতালে নাশকতা চালানো হয়।

রবিবার বিকেলে সদর উপজেলার চাঁদমারী এলাকায় পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে মামুনুল হককে ৬ মামলায় ১৮ দিনের রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদের বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা জানান। তিনি বলেন, এছাড়াও ধর্ষণ মামলার অভিযোগের সত্যতাও পেয়েছে পুলিশ। 

এসপি জায়েদুল আলম বলেন, ‘১৮ মে একটি ধর্ষণ ও ৫টি ভাঙচুর ও নাশকতার মামলায় তদন্তকারী সংস্থা নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ, পিবিআই ও সিআইডি জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মামুনুল হককে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে নারায়ণগঞ্জে নিয়ে আসা হয়। এর মধ্যে প্রথমে জেলা পুলিশ ধর্ষণ মামলা ও সোনারগাঁয়ে ভাঙচুরের ৩টি মামলায় ৯ দিন, সিদ্ধিরগঞ্জে মহাসড়কে হরতালে ভাঙচুরের ২ মামলায় সিআইডি ৬ দিন ও রূপগঞ্জে ভাঙচুরের আরেকটি মামলায় পিবিআই ৩ দিন জিজ্ঞাসাবাদ করে।

জিজ্ঞাসাবাদের বিষয়ে এসপি জায়েদুল আলম বলেন, ‘ধর্ষণ মামলাটি আমরা গুরুত্বের সঙ্গে দেখছি। সেই মামলায় ভুক্তভোগী নারী যে বক্তব্য দিয়েছেন আমরা সেই বক্তব্যের সাথে জিজ্ঞাসাবাদে সত্যতা পেয়েছি। তিনি বিয়ে করেছেন এ ধরনের কোনো প্রমান, তথ্যাদি আমাদের দিতে পারেননি।

তিনি বলেন, ‘আমরা আরো গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়েছি। এ গুরুত্বপূর্ণ তথ্যের ভিত্তিতে আমরা তার বক্তব্যের যাচাই বাছাই করবো। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই আমরা আদালতে এ মামলার প্রতিবেদন দিতে পারবো।

তিনি বলেন, আমরা রাষ্ট্রের পক্ষে মামলার বাদী যাতে ন্যায় বিচার পান সেটা আমরা সর্বোচ্চ নিশ্চিত করার চেষ্টা করবো।

সোনারগাঁওয়ের ভাঙচুর মামলার বিষয়ে এসপি বলেন, ‘ভাঙচুরের মামলায় মামুনুল হক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছেন। কারা সেখানে ছিল বলেছেন। তদন্তের স্বার্থে কারো নাম বলছি না। তথ্যের মাধ্যমে আমরা অনেককে আইনের আওতায় নিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছি। আরো যারা জড়িত ছিল তাদের তথ্য যাচাই বাছাই করছি। মামলার কার্যক্রমে আমরা তাদেরকেও আইনের আওতায় নিয়ে আসতে সক্ষম হবো।’

এসপি আরও বলেন, ‘আমরা যতটুকু তথ্য পাচ্ছি তাতে তার সঙ্গে দেশি ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠনের সংশ্লিষ্টতা থাকার প্রাথমিক তথ্য আমরা পেয়েছি। যাচাই বাছাই করে আমরা সেটা বলতে চাই।’

হরতালে নাশকতার উদ্দেশ্য নিয়ে এসপি বলেন, ‘বিভিন্ন ধর্মীয় রাজনৈতিক সংগঠনের উগ্রবাদী নেতারা হেফাজতে ইসলামে এসে একটা প্লাটফর্ম করেছে। সেখানে তারা রাজনৈতিক ফয়দা নেওয়ার জন্য কাজ করছে, সেটিই প্রতীয়মান হয়েছে। মামুনুল হকসহ তারা তাদের ভাষায় ক্ষমতায় যাওয়ার উদ্দেশ্য ছিল। তার মধ্যে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় যাওয়ার উচ্চ অভিলাষ স্পষ্ট প্রতীয়মান হয়েছে। তবে বিস্তারিত আরো তদন্ত করে জানা যাবে।’

পিবিআই নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘মামুনুল হক আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি না দিলেও তাদের সহযোগীরা আদালতে জবানবন্দিতে মামুনুল হক ও মুফতী বশিরউল্লাহসহ অনেকের নাম বলেছে। এছাড়া মামুনুল হক নিজেও আমাদের দেখানো ভিডিও ফুটেজে বেশ কিছু নাশকতাকারীকে চিহ্নিত করেছে।’

মামুনুল হকের সম্পত্তি ও টাকার বিষয়ে এসপি জায়েদুল আলম বলেন, ‘আমরা পত্র পত্রিকায় দেখেছি যে তার স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি ও আয়ের হিসাব চেয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। আমাদের জিজ্ঞাসাবাদেও তার সম্পত্তির বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়েছি। আমরা সেটা যাচাই বাছাই করছি।

তিনি বলেন, ‘তার ঢাকায় একাধিক বাড়ি ও একাধিক মাদ্রাসা আছে। সেখানে তার প্রত্যেক মাসে মাদ্রাসার নামে বে-নামে প্রচুর অর্থ আসে। ঢাকায় যে তার বাড়ি ও সম্পত্তি আছে সেটার বিষয়ে সে কোন সদুত্তর দিতে পারেনি। এ বিষয়গুলো আমরা খতিয়ে দেখছি। সংশ্লিষ্ট যে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা আছে বা যারা আইনগত ভাবে এগুলো দেখছেন তাদের সাথে আমরা যোগাযোগ রাখছি।

মামুনুল হকের টাকার উৎসের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এ বিষয়ে আমরা তার দেওয়া তথ্য যাচাই বাছাই করছি। তবে দেশি ও বিদেশি বিভিন্ন জায়গা থেকে তিনি পর্যাপ্ত পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করেছেন বলে আমাদের কাছে প্রতীয়মান হয়েছে।’

গত ৩ এপ্রিল সোনারগাঁয়ে মামুনুলকে কেন্দ্র করে গাড়ি ভাঙচুর, মহাসড়কে আগুন দিয়ে বিক্ষোভ, আওয়ামী লীগ অফিস, যুবলীগ, ছাত্রলীগ নেতার বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে হেফাজতে ইসলামের কর্মীরা। এ ঘটনায় ৬টি মামলা হয়।

পরে ৩০ এপ্রিল ধর্ষণের অভিযোগে মামুনুল হকের বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও থানায় মামলা করেন এক নারী।

এছাড়াও গত ২৮ মার্চ হেফাজতে ইসলামের ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের শিমরাইল এলাকায় গাড়ি ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগসহ সহিংসতা ও নাশকতার ঘটনায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় পুলিশের ৫টি ও র‌্যাবের একটি মামলা করা হয়। পরবর্তীতে পুলিশ হেডকোর্টের নির্দেশে মামলার তদন্তভার পিবিআই ও সিআইডিকে দেয়া হয়।

Comments