পটুয়াখালীতে বজ্রপাতে ৩ জন, ১০ গরু ও ১ মহিষের মৃত্যু

পটুয়াখালীর পৃথক তিন স্থানে বজ্রপাতে তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া, কমপক্ষে ১০টি গরু ও একটি মহিষ মারা গেছে।
Lightning
স্টার অনলাইন গ্রাফিক্স

পটুয়াখালীর পৃথক তিন স্থানে বজ্রপাতে তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া, কমপক্ষে ১০টি গরু ও একটি মহিষ মারা গেছে।

আজ রোববার বিকাল ৩টার দিকে বজ্রসহ বৃষ্টিপাত শুরু হলে জেলার বিভিন্ন স্থানে এসব নিহতের ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হচ্ছেন, পটুয়াখালী সদর উপজেলার মরিচবুনিয়া গ্রামের কৃষক মজিবর হাওলাদার (৩০), মির্জাগঞ্জ উপজেলার তাড়াবুনিয়া গ্রামের আবদুল জলিল (৪৭) ও গলাচিপা উপজেলার পশ্চিম ডাকুয়া গ্রামের জলিল খান (৫৫)।

সংশ্লিষ্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা (ওসি) দ্য ডেইলি স্টারকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মির্জাগঞ্জের আবদুল জলিল বৃষ্টির মধ্যে বাড়ির পাশের জমিতে কৃষিকাজ করার সময় হঠাৎ বজ্রপাতে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। ঘটনাস্থলে তার মৃত্যু হয় বলে জানান মির্জাগঞ্জ থানার ওসি মো. মহিবুল্লাহ।

সদর উপজেলার মরিচবুনিয়া গ্রামের কৃষক মজিবর হাওলাদার মাঠ থেকে গরু আনতে গেলে বজ্রপাতে মারা যান।

গলাচিপার পশ্চিম ডাকুয়া গ্রামের দিনমজুর জলিল খান বজ্রপাতে ধসে পড়া একটি রেইনট্রি গাছের চাপায় গুরুতর আহত হন। তাকে প্রথমে গলাচিপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান বলে জানান গলাচিপা থানার ওসি এ আর এম শওকত আনোয়ার ইসলাম।

সদর উপজেলার আউলিয়াপুর ইউনিয়নের পূর্ব আউলিয়াপুর গ্রামের নুরুল হক সিকদার ও ছোট আউলিয়াপুর গ্রামের গাফফার হাওলাদারের একটি করে গরু বজ্রপাতে মারা গেছে। একই উপজেলার মাদারবুনিয়া ইউনিয়নে দুটি গরু, গলাচিপা উপজেলার চরকাজল গ্রামে চারটি গরু, আমখোলা গ্রামে একটি মহিষ এবং দশমিনা উপজেলার আরজবেগি গ্রামে দুটি গরু বজ্রপাতে মারা গেছে।

এদিকে, জেলায় দুই ঘণ্টায় ৮০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে পটুয়াখালী আবহাওয়া অফিস।

আরও পড়ুন:

৮ জেলায় বজ্রপাতে নিহত ১৭

Comments

The Daily Star  | English

Speedy Trial Act set to become permanent law

Bill placed in parliament amid criticism from opposition

20m ago