আন্তর্জাতিক পুরস্কার পেল ফাওয়াজ রবের শিল্পকর্ম

মিয়ানমারের বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের দুর্দশা নিয়ে বাংলাদেশি শিল্পী ফাওয়াজ রবের আঁকা শিল্পকর্মটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার অর্জন করেছে। কম্বোডিয়ায় প্রিন্টমেকার হিসেবে তিনি প্রথম কোনো বাংলাদেশি হয়ে এই সম্মান অর্জন করলেন।
রোহিঙ্গাদের নিয়ে আঁকা ফাওয়াজ রবের শিল্পকর্ম। ছবি: সংগৃহীত

মিয়ানমারের বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের দুর্দশা নিয়ে বাংলাদেশি শিল্পী ফাওয়াজ রবের আঁকা শিল্পকর্মটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার অর্জন করেছে। কম্বোডিয়ায় প্রিন্টমেকার হিসেবে তিনি প্রথম কোনো বাংলাদেশি হয়ে এই সম্মান অর্জন করলেন।

ফ্রান্স, জাপান যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশের শিল্পীদের ৮০টি শিল্পকর্মের মধ্যে সেরা নির্বাচিত হয়েছে ফাওয়াজের আঁকা ছবিটি। ‘লং ওয়াক হোম’ শিরোনামের চিত্রকর্মটি দর্শক ও বিচারকদের ভোটে পেনআর্ট ইন্টারন্যাশনাল এক্সিবিশনে বেস্ট এন্ট্রির স্বীকৃতি পেয়েছে এটি।

আন্তর্জাতিক পুরস্কার পাওয়ার প্রতিক্রিয়ায় ফাওয়াজ বলেন, ‘এই পুরস্কার অর্জন করতে পেরে আমি খুবই আনন্দিত। যুগের অশুভের বিরুদ্ধে দাঁড়ানো একজন শিল্পীর দায়িত্ব। আর আমাদের সমসাময়িক বিশ্বের সবচেয়ে বড় ট্র্যাজেডি হলো মুসলিম সম্প্রদায়ের অমানবিকীকরণ। রোহিঙ্গাদের যন্ত্রণা, ফিলিস্তিনি কিংবা উইঘুরদের দুর্দশার কথা কৌশলে এড়িয়ে যাওয়া হচ্ছে। আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো তাদের জন্য কিছু করতে চরমভাবে ব্যর্থ হয়েছে। আমার এই শিল্পকর্ম যদি রোহিঙ্গাদের দুর্দশার প্রতি বিশ্ববাসীর দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারে, তাহলেই আমার উদ্দেশ্য সফল...।’

ফাওয়াজ রব প্রোডাক্ট ডিজাইন নিয়ে পড়াশুনো করেছেন সান ফ্রান্সিস্কো স্টেট ইউনিভার্সিটিতে। এছাড়া স্থাপত্যবিদ্যায় স্নাতকোত্তর করেছেন ইতালিয়ান একটি ইন্সটিটিউট থেকে। তার প্রথম একক প্রদর্শনী আয়োজিত হয় প্যারিসে। যা নিয়ে লা প্যারিসিয়ান ম্যাগাজিনে প্রতিবেদনও ছাপা হয়। তার শিল্পকর্ম প্রদর্শিত হয়েছে বুদাপেস্ট, জাদার, প্যারিস, কাঠমাণ্ডু, ইস্তানবুল, এ্যাথেন্স, নমপেন এবং ঢাকায়।

ফাওয়াজ নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থাপত্যবিদ্যার সহকারী অধ্যাপক হিসেবে কাজ করেছেন প্রায় ১০ বছরের উপর। বর্তমানে শিক্ষকতা ছেড়ে শিল্পচর্চায় মনোনিবেশ করেছেন।

Comments

The Daily Star  | English

Medium of education should be mother language: PM

Prime Minister Sheikh Hasina today said that the medium for education in educational institutions should be everyone's mother tongue.

1h ago